কিশোরগঞ্জে একটি ব্রীজের অভাবে দুভোর্গে ১০ গ্রামের ২০ হাজার মানুষ,কলার ভেলায় পারাপার

মোঃ শামীম হোসেন বাবু,কিশোরগঞ্জ(নীলফামারী)সংবাদদাতাঃ একটি ব্রীজের অভাবে নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলার রণচন্ডি ও গাড়াগ্রাম ইউনিয়নের  ১০ গ্রামের মানুষ বছরের পর বছর পারাপারে চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। রণচন্ডি ও গাড়াগ্রাম ইউনিয়নের সংযোগ সড়কের  ধরেয়ার বাজার নামক স্থানের নাউয়ার ঘাটে ব্রীজ নির্মানের জন্য দীর্ঘদিন থেকে এলাকাবাসী দাবি জানিয়ে এলেও তা বাস্তবায়ন হয়নি।
গত শনিবার সরেজমিনে গিয়ে এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা গেছে, গাড়াগ্রাম ইউনিয়নের পুর্ব দলিরাম, পশ্চিম দলিরাম, হিন্দুপাড়া, মাঝাপাড়া ও গাড়াগ্রাম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও রণচন্ডি ইউনিয়নের বাবুর বাজার, ধরেয়ার বাজার, ডাঙ্গাপাড়া, রণচন্ডি অবিলের বাজার, রণচন্ডি দালালপাড়া ও রণচন্ডি স্কুল এ্যান্ড কলেজ সহ দশ গ্রামের প্রায় ২০ হাজার মানুষ  কলার ভেলা বানিয়ে বুল্লাই নদী পারাপার করছে।
রণচন্ডি ইউনিয়নের ধরেয়ার বাজার গ্রামের বাসিন্দা মঞ্জুরুল ইসলাম বলেন, আমরা দশ গ্রামের বাসিন্দারা প্রতি গ্রামে গিয়ে চাঁদা তুলে প্রায় এক লাখ ৪৫ হাজার টাকা ব্যায় করে নাউয়ার ঘাটে একটি বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করেছিলাম। কিন্তু সেটি পুরাতন হয়ে যাওয়ায় সেটি ভেঙ্গে যায় তাই বাধ্য হয়ে এলাকাবাসী সহ স্কুল কলেজের ছাত্রছাত্রীরা কলার ভেলায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পারাপার করছে।
রণচন্ডি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোকলেছার  রহমান বলেন, আমি উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে বলে সেখানে ত্রানের একটি ব্রীজ নির্মাণ করার জন্য সব ব্যাবস্থা করেছিলাম। কিন্তু মাপযোগ করে দেখা যায় সেখানে ত্রানের ব্রীজ দিয়ে হয়না। সেখানে ব্রীজ করতে গেলে কমপক্ষে ৮০ থেকে ১০০ মিটার ব্রীজ দরকার এবং সেটি উপজেলা এলজিইডির মাধ্যমে করতে হবে। তাই বিষয়টি উপজেলা প্রকেীশলিকে জানিয়েছি।
উপজেলা প্রকেীশলী এসএম কেরামত আলী নান্নু বলেন,  নাউয়ার ঘাটে বুল্লাই নদীর উপর একটি ব্রীজ নির্মানের জন্য বরাদ্দ চেয়ে স্কিম পাঠানো হয়েছে। বরাদ্দ এলে ব্রীজটি নির্মান করা হবে।

পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 1106630482508565330

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item