কুবিতে ছাত্রলীগের সংঘর্ষে নেতা নিহত : বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ

ডেস্কঃ

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে শোকের মাস পালনের কর্মসূচির মধ্যে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের গোলাগুলিতে দলের এক নেতা গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছে। শোকের মাসে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে মোমবাতি প্রজ্বলনের পর রবিবার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকাল বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ছাত্রদের বেলা ১১টা ও ছাত্রীদের বেলা ২টার মধ্যে হলত্যাগের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। উপাচার্য মো. আলী আশরাফের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেটের জরুরি সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।   
নিহত খালেদ সাইফুল্লাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের সপ্তম ব্যাচের শিক্ষার্থী ও কবি নজরুল হলের ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। আজ সোমবার ভোরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। তার বাড়ি কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলায়। 
সংঘর্ষের সময় আতঙ্কে হল থেকে লাফিয়ে পড়ে, গুলিতে ও রামদার কোপে অন্তত ৯ জন আহত হয়েছে। তারা কুমিল্লার বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। 
প্রত্যক্ষদর্শী শিক্ষার্থী ও প্রশাসন বলছে, গতকাল দিবাগত রাত ১২টা ১ মিনিটে বঙ্গবন্ধু হলে শোকের মাসে ছাত্রলীগের উদ্যোগে মোমবাতি জ্বালানো হয়। কর্মসূচি শেষ হওয়ার পরে রাত সাড়ে ১২টার দিকে শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত হলের ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত নেতা ইলিয়াস হোসেনের নেতৃত্বে ৫০ থেকে ৬০ জন ছাত্রলীগ কর্মী বঙ্গবন্ধু হলে যায়। হলের ভেতরে দু’পক্ষের মধ্যে এলোপাতাড়ি গুলিবিনিময় হয়। ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রেজা ই এলাহীর কক্ষ ভাঙচুর করা হয়। কয়েকজনের কাছে রামদা, পিস্তল ছিল। সংঘর্ষের একপর্যায়ে খালেদের মাথার কাছে গুলি লাগে। তাঁকে প্রথমে কুমিল্লার স্থানীয় একটি হাসপাতালে পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে আজ ভোরে তিনি মারা যান। 
বিশ্ববিদ্যালয় প্রক্টর মোহাম্মদ আয়নুল হক বলেন, ছাত্রলীগের একপক্ষ মধ্যরাতে আরেক হলে এসে গুলি ছোড়ে। এতে একজন গুলিবিদ্ধ হয়েছে। আহত হয়েছে ৯ জন। 
কুমিল্লার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (দক্ষিণ) আবদুল্লাহ আল মামুন জানান, ছাত্রলীগের দুই পক্ষের গুলিবিনিময়ে একজন নিহত হয়েছেন। 

পুরোনো সংবাদ

শিক্ষা-শিক্ষাঙ্গন 643047251138326080

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item