স্বাধীনতার ৫০ বছর পর বধ্যভূমি খুঁড়ে মিলল রক্তমাখা কাপড় মাথার খুলি


রংপুর প্রতিনিধিঃ

স্বাধীনতার ৫০ বছর রংপুর নগরের কাচনা সাহেবগঞ্জ বধ্যভূমিতে মানুষের হাড়গোড় ও রক্তমাখা কাপড় পাওয়া গেছে। একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানি সেনারা বাঙালি ইপিআর সদস্যকে ধরে এনে বধ্যভূমিতে হত্যা করেন। 


মঙ্গলবার (৯ মার্চ) বিকেলে ওই বধ্যভূমিতে মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ কাজের জন্য মাটি খোঁড়ার সময় এসব হাড়গোড় ও কাপড় পাওয়া যায়। 

বিষয়টি জানাজানি হলে রংপুরের জেলা প্রশাসক আসিব আহসান, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোছাদ্দেক হোসেন বাবলুসহ জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বধ্যভূমি পরিদর্শন করেন।


খনন কালে উপস্থিত ছিলেন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের তত্ত্বাবধায়ক খলিলুর রহমান। তিনি বলেন, বধ্যভূমির উপরিভাগ খোঁড়ার পর একটু নিচে খুঁড়তেই মুক্তিযুদ্ধকালীন নির্যাতনের শিকার হয়ে মারা যাওয়া মানুষের হাড়গোড়, পরনের রক্তমাখা কাপড় ও মাথার খুলি পাওয়া যায়। পরে ঘটনাটি প্রশাসনকে জানানো হলে প্রশাসন সন্ধ্যায় এসে হাড়গোড় নিয়ে যায়।  


হারাগাছ রোড ও সাহেবগঞ্জের মাঝামাঝি স্থানের এই বধ্যভূমিতে নামফলক সম্বলিত ১৯ জন শহীদের গণকবর ছিল। 


বধ্যভূমি পরিদর্শনে এসে মুক্তিযোদ্ধা মোছাদ্দেক হোসেন বাবলু বলেন, মুক্তিযুদ্ধকালীন নিরীহ মানুষদের ধরে এনে পাকিস্তান বাহিনী তাদেরকে হত্যা করে রংপুরের বিভিন্ন স্থানে ফেলে দিয়েছিল। এই ইতিহাসের কথা এতদিন অনেকেই শুধু শুনেছেন। আজ সেই হায়েনাদের হাতে মারা যাওয়া মানুষের হাড়গোড় মিলেছে। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সংরক্ষণে এসব হাড়গোড় সংরক্ষণ করা হবে।’


জেলা প্রশাসক আসিব আহসান জানান, ‘ইতিহাস ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে বাঁচিয়ে রাখতে এসব হাড়গোড় সংরক্ষণ করা হবে। 


পুরোনো সংবাদ

হাইলাইটস 2395137020101282649

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

ফেকবুক পেজ

কৃষিকথা

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item