পার্বতীপুরে সাইন বোর্ড সর্বস সংঘের অন্তরালে মৎস্য ব্যবসা ও মাদক সেবন কেন্দ্র


পার্বতীপুর(দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ 
দিনাজপুরের পার্বতীপুরের হলদীবাড়ী রেলওয়ে কলোনী,র একটি সাইন বোর্ড সর্বস সংঘের অন্তরালে চলছে মৎস্য ব্যবসা আর সেই সাথে স্হানটি মাদক সেবন কেন্দ্র হিসেবে পরিনত হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে৷
জানা গেছে,দিনাজপুরের পার্বতীপুর রেলওয়ে জংশনের অদুরে হলদীবাড়ী রেলওয়ে কলোনীর পার্বতীপুর-খুলনা রেলপথের গাঘেঁষে রেলের জমিতে একটি সংঘের সাইন বোর্ড ঝুলিয়ে অভ্যন্তরে চালানো হচ্ছে মৎস্য ব্যবসা আর সেই সাথে স্হানটি পরিনত হয়েছে মাদক সেবন কেন্দ্রে৷ হলদীবাড়ী রেলওয়ে কলোনীর রেল কোয়াটারে বসবাসরত বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার ছাতিন গ্রাম এলাকার জনৈক আব্দুর রহমান সুকৌশলে রেলের জায়গা দখল করে বিশেষ সুবিধা আদায়ের জন্যে মহান মুক্তিযুদ্ধের নাম ব্যবহার করে" মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি সংঘের"সাইন বোর্ড ঝূলিয়ে এসব কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে৷ সম্পূর্ন ব্যক্তি উদ্যোগে সে এসব কর্মকান্ড চালালেও তার সহযোগী হিসেবে কাজ করছে একই কলোনীর রেল কোয়াটারে বসবাসকারী বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার সুদিন গ্রামের জনৈক জয়েন উদ্দিন৷ স্হানীয় ভাবে খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায় জয়েন উদ্দীন পার্বতীপুরের ভোটার নয়৷ শুধু তাই নয়,তার পদ ও পদবী নিয়েও বিতর্ক রয়েছে৷ 
জানা যায়,রেলের জায়গা-জমি দখল করে পুকুর খনন,কাচা-পাকা ঘর বাড়ী নির্মান করে,বিভিন্ন ধরনের গাছ লাগিয়ে সে গুলোর সুফল জনৈক আব্দুর রহমান  ব্যক্তিগত ভাবে ভোগ করলেও ঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে সংঘের সাইন বোর্ড৷ সেখানে নিরাপদ স্হান হিসেবে তার পরিবারের সদস্যরা ছাড়াও মাদক সেবনকারীরা এসে মাদক সেবন করছে৷ সম্পূর্ন বেআইনী ভাবে এসব কর্মকান্ড চালিয়ে গেলেও কেউ এর প্রতিবাদ করলেই হামলা-মামলার ভয় দেখিয়ে তাকে দমিয়ে দেওয়া হয়৷ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকার একজন সচেতন মানুষ বলেন,তার মাদক সেবনকারী ছেলের ঢোপ চেষ্ট করা হলেই সব কিছু স্পষ্ট হয়ে যাবে৷ এমনও অভিযোগ শোনা যায়, রেল লাইলের পাশ দিয়ে বেড়া দেওয়ায় এবং বেড়ে উঠা গাছের ডাল-পালার কারনে ট্রেন চালকদের সংকেতের বাতি দেখতেও অসুবিধা হয়৷ ফলে যে কোন সময় বড় ধরনের দূর্ঘটনার আশংকা থেকে যায়৷ শুধু তাই নয়,তার বাসার আবাসিক বিদ্যুতের মিটার থেকে লাইন টেনে নিয়ে গিয়ে ব্যানিজিক ভাবে ব্যবহৃত সৎস্য খামারে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে৷ খরা মৌসুমে রেলপথের নিজ দিয়ে খুঁড়ে পাইপ ঢুকিয়ে ডিপ মেশিন দিয়ে তোলা পানি এনে মৎস্য খামারের পুকুর ভর্তি করে৷এমন অনেক অপকর্ম ঢাকতে এলাকার মানুষের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি করে রেখেছে৷ গড়ে তুলেছে একটি অপরাধী চক্র৷ যারা বিভিন্ন সময় তার অপকর্মের সহযোগীতা করে থাকে৷ বিদেশে পাঠানো ও চাকুরী দেওয়ার নাম করে সর্বশান্ত করেছে হলদীবাড়ী গ্রামের হাফিজুলের মতো নিরীহ যুবকসহ অনেক কে৷ কাকে কি ভাবে ঘায়েল করতে হবে তার সব পরিকল্পনাই হয় সাইন বোর্ড সর্বস সংঘের ঘরে বসে৷ 
এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্হা গ্রহনের জন্য সংশ্লিষ্ট  কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করা হয়েছে৷

পুরোনো সংবাদ

দিনাজপুর 6043784099743148840

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item