নীলফামারীর রামগঞ্জ ট্যাজেডির নিহতের স্মরণ সভা


নির্ণয়,নীলফামারী॥
নীলফামারীর রামগঞ্জে সংসদ সদস্য সাবেক সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুরের গাড়িবহরে হামলা ও আওয়ামী লীগের চার নেতাকর্মী হত্যার ঘটনায় স্মরণ সভা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার(১৪ ডিসেম্বর) দুপুরে সদর উপজেলার টুপামারী ইউনিয়নের রামগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এই কর্মসুচী পালন করা হয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে। স্মরণসভার আগে নিহত চার নেতাকর্মীর কবরে পু¯পমাল্য অর্পণ শেষে তাদের পরিবারের সদস্যদের সমবেদনা জানান জেলা ও উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীরা।

টুপামারী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি একরামুল হক শাহের সভাপতিত্বে স্মরণসভায় অনলাইনে ভার্চ্যুয়ালীতে  ঢাকা থেকে অংশ নেন সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নুর। এসময় জেলা আওয়ামালীগের সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদ, সাধারণ স¤পাদক এ্যাডভোকেট মমতাজুল হক, জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি হাফিজুর রশিদ মঞ্জু, সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুজার রহমান, সাধারণ স¤পাদক ওয়াদুদ রহমান, পৌর সভাপতি মসফিকুল ইসলাম, সাধারণ স¤পাদক আরিফ হোসেন মুন, জেলা যুবলীগের সাধারণ স¤পাদক ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শাহিদ মাহমুদ বক্তব্য দেন স্মরণ সভায়।

উল্লেখ যে ২০১৩ সালের ১৪ ডিসেম্বর বিকালে সদরের টুপামারী ইউনিয়নের রামগঞ্জে জামায়াত শিবির ও বিএনপির হামলায় ক্ষতিগ্রস্থ হয় সংখ্যালঘুদের ঘরবাড়ি। যা পরিদর্শনে যান নীলফামারী-২ (সদর) আসনের সংসদ সদস্য আসাদুজ্জামান নুর। রামগঞ্জ বাজারে ওই সময় আসাদুজ্জামান নুরের গাড়ী বহরে হামলা চালিয়েছিল জামায়াত শিবির ও  বিএনপি। আসাদুজ্জামান নুর প্রাণে বেঁচে গেলেও ওই হামলায় চার আওয়ামী লীগ নেতা ও এক পথচারী সহ ৫ জন নিহত হন।নিহতরা হলেন, টুপামারী ইউনিয়ন কৃষক লীগের সভাপতি খোরশেদ আলম চৌধুরী, টুপামারী ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা ফরহাদ হোসেন শাহ্ ও তার ছোট ভাই মুরাদ হোসেন শাহ্, আওয়ামী লীগ কর্মী লিটন হোসেন লেবু মিয়া। এ সময় পথচারী বাঁশ বিক্রেতা আবু বক্কর সিদ্দিক নিহত হন।

নিহতদের স্বজনদের অভিযোগ, আলোচিত ওই হত্যার ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলার আট বছরেও কোনো অগ্রগতি নেই। বিচারকার্য শুরু না হওয়ায় আসামীরা আদালত থেকে জামিনে রয়েছে।#


পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 3318614252465063081

অনুসরণ করুন

Logo

ফেকবুক পেজ

কৃষিকথা

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item