বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে ধারণ করে শেখ হাসিনার হাত শক্তিশালি করতে হবে-নীলফামারীতে হুইপ স্বপন


ইনজামাম-উল-হক নির্ণয়,নীলফামারী॥ আওয়ামী লীগের রংপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও জাতীয় সংসদের হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন বলেছেন, আওয়ামী লীগ করতে হলে প্রথমে বঙ্গবন্ধুর আর্দশকে ধারন করতে হবে। সেই সঙ্গে দলের ভেদাভেদ ভুলে আমাদের দলের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে হবে। যারা এমপি কিংবা যারা জেলা পরিষদে, উপজেলা পরিষদে, ইউনিয়ন পরিষদে কিংবা সরকারি বিভিন্ন জায়গায় আছি আমাদের মধ্যে যেন প্রভূত্ববাদী মানসিকতা কিংবা জমিদারী মানসিকতা সৃষ্টি না হয়। আমরা যেন আমাদের তৃণমূলের কর্মীদের ধারণ করি।
আজ বুধবার(৩০ সেপ্টেম্বর/২০২০) সন্ধ্যায় নীলফামারী জেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে এসব কথা বলেন। সভায় জেলা ও ৬ উপজেলা, চার পৌরসভার আওয়ামী লীগের নেতারা অংশ নেয়।
সার্কিট হাউস সম্মেলন কক্ষে ওই সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদ। এসময় বক্তব্য রাখেন নীলফামারী-১ (ডোমার-ডিমলা) আসনের সংসদ সদস্য আফতাব উদ্দিন সরকার, সংরক্ষিত নারী সংসদ সদস্য রাবেয়া আলিম, নীলফামারী-৩(জলঢাকা) আসনের সাবেক সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফা, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক মমতাজুল হক।
অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন যুবমহিলা লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কমান্ডের কেন্দ্রীয় সাধারন সম্পাদক সরকার ফারহানা আক্তার সুমী, ডোমার উপজেলার সভাপতি খায়রুল আলম বাবুল, জলঢাকা উপজেলার সাধারন সম্পাদক সহীদ হোসেন রুবেল প্রমুখ।
সভায় উপস্থিত জেলার ডোমার ও জলঢাকা উপজেলা ও পৌরসভা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা দ্রুত সম্মেলনের মাধ্যমে উপজেলা ও পৌর কমিটি গঠনের দাবি করলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বপন বলেন, ফাঁকিবাজি করে সংগঠন করতে আমি রাজি নই এবং যেনো-তেনোভাবে ঘরে বসে ওয়ার্ড কমিটি, ইউনিয়ন কমিটি এবং পকেট কমিটি এই ধরণের কাজটিতে আমি পছন্দ করি না। নিজেকে বড় করতে গিয়ে অন্যকে ছোট করা যাবেনা উল্লেখ করে তিনি বলেন আমি মনে করি আওয়ামী লীগ একটি সংগঠন, এই সংগঠনের প্রতিটি কর্মী একেকটি প্রাণ। তিনি দ্রুত ওই দুই উপজেলা ও পৌরসভার আওয়ামী লীগের সম্মেলনের নির্দেশ দেন জেলা কমিটিকে। এ ছাড়া দলের অঙ্গসংগঠনগুলোর মধ্যে যে যে সংগঠনগুলোর কমিটি হয়নি সেগুলো দ্রুত সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি গঠনের কথা জানান তিনি।
হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন বলেন, আমরা দেখি নির্বাচন এলে অনেকে প্রার্থী হতে চান। অনেকে কোন্দলে জড়িয়ে পড়েন। এসব আর কেউ করবেন না। তিনি বলেন, আমি দেখেছি জননেত্রী শেখ হাসিনা নতুন কাউকে নমিনেশন দিলেও পাস করছে। এই কারিশমা আমাদের নয়, এটি জননেত্রী শেখ হাসিনার। সাধারণ মানুষের আস্থা শেখ হাসিনার প্রতি আছে বলেই শেখ হাসিনা যাকেই নমিনেশন দেন তিনিই নির্বাচিত হন। তাই ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌর সভা নির্বাচনের আগে দলের সকল সমস্যা মিটিয়ে দলকে শক্তিশালী করতে হবে। এ ছাড়া ছাত্রলীগের মধ্যে কোন সমস্যা থাকলে তা নিরশন করে যারা ছাত্রলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে ফায়দা লুটার চেস্টা করবে বা করছে তাদের বহিস্কার করতে হবে।
তিনি বলেন, দলের মধ্যে যারা মুক্তিযোদ্ধা বা মুক্তিযোদ্ধা সন্তান নয় অথচ তা ব্যবহার করছে তাদের তদন্ত সাপেক্ষে দল হতে বহিস্কার করা হবে। তিনি বলেন, তৈলমর্দনকারীদের হতে সাবধান হতে হবে। এই শ্রেনীটা নানাভাবে রাজনীতি এবং আওয়ামী লীগকে প্রশ্নবিদ্ধ করছে। আমরা এগুলো এখন প্রতিহত করবো। তৈলমর্দনকারীদের আর স্থান নেই।

পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 641179018008153926

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item