সৈয়দপুরে র‌্যাবের অভিযানে বিপুল পরিমাণ নকল ওষুধ উদ্ধার।ফ্যাক্টরী মালিকের দন্ড


তোফাজ্জল হোসেন লুতু, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি: 
 নীলফামারীর সৈয়দপুর শহরের একটি ইউনানী ওষুধ ফ্যাক্টরি থেকে বিপুল পরিমাণ খোলা ট্যাবলেট এবং ফ্যাক্টরী মালিকেরা বাসা থেকে নকল প্যান্টোনেক্স ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল  বৃহস্পতিবার শহরের নিয়ামতপুর বাস টার্মিনাল এলাকার মাহবুবা প্লাজার দ্বিতীয়তলায় মেসার্স রেক্সটন ল্যাবরোটেরীজ (ইউনানী) নামক ওই ফ্যাক্টরিতে অভিযান পরিচালনা করে ওই ওষুধ উদ্ধার করা হয়। র‌্যাব- ১৩ রংপুর এবং র‌্যাব- ১৪ ময়মনসিংহ এর যৌথ দল ওই অভিযান পরিচালনা করে। এ ঘটনায় ফ্যাক্টরি মালিক আতিয়ার রহমানকে (৪৬) গ্রেপ্তার করা হয়। পরে গ্রেপ্তারকৃত ফ্যাক্টরি মালিক আতিয়ার রহমানকে (৪৬) ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে নকল ওষুধ তৈরি ও সংরক্ষণের দায়ে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনে এক বছর সশ্রম কারাদন্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও একমাসের কারদন্ড প্রদান করা হয়েছে। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের উপস্থিতিতে নকল ওষুধ ধ্বংস করা হয়। 
 জানা গেছে, দীর্ঘদিন যাবৎ ময়মনসিংহ ও এর আশপাশের বিভিন্ন এলাকায় নকল ওষুধ বিক্রি হচ্ছিল। আর এমন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে র‌্যার- ১৪ ময়মনসিংহের সদস্যরা সম্প্রতি ওই এলাকার এক ব্যবসায়ীকে আটক করেন। পরে তাঁর দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে আরও দুইজনকে পৃথক এলাকা থেকে আটক করে র‌্যাব-১৪। আটককৃতদের মধ্য থেকে একজনের তথ্যে র‌্যাব অবগত হন ওই সব নকল ওষুধ নীলফামারীর সৈয়দপুর শহরের রেক্সটন ল্যাবরোটরীজ (ইউনানী) থেকে কেনা হয়। আর এ বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে নকল ওষুধ উদ্ধার এবং এর সাথে জড়িতদের ধরতে র‌্যাব-১৩ এবং র‌্যার ১৪-ময়মনসিংহ এর যৌথ একটি দল গতকাল বৃহস্পতিবার সৈয়দপুরে যৌথ অভিযান চালায়। র‌্যাব-১৪ ময়মনসিংহ এর উপঅধিনায়ক মেজর আব্দুল্লাহ আল মঈন হাসান এবং র‌্যাব- ১৩ রংপুর এর সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার হাফিজুল ইসলাম বাবুর নেতৃত্বে ওই যৌথ অভিযান পরিচালনা করা হয়। প্রথমে রেক্সটন ল্যাবরোটরীজের (ইউনানী) মালিক মো. আতিয়ার রহমানের সৈয়দপুর শহরের শহীদ তুলশীরাম সড়কের বহুতল ভবনের ভাড়া বাসায় অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় সেখান থেকে কয়েক লাখ টাকা ম‚ল্যের চার কার্টুন নকল প্যানটোনেক্স ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। পরে শহরের নিয়ামতপুর বাস টার্মিনাল এলাকার মাহমুদা প্লাজায় অবস্থিত রেক্সটন ল্যাবরোটরীজ (ইউনানী) ফ্যাক্টরিতে অভিযান চালিয়ে দুইটি ড্রামে খোলা (লুস) অবস্থায় বিপুল পরিমাণ ট্যাবলেট উদ্ধার করে র‌্যাব সদস্যরা। এ সময় উদ্ধার হওয়া ওষুধের কোন বৈধ কাগজপত্র দেখাতে না পারায় রেক্সটন ল্যাবরোটরীজের (ইউনানী) মালিক মো. আতিয়ার রহমানকে (৪৬) আটক করা হয়। পরে সেখানে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে নকল ওষুধ সংরক্ষণ এবং এর স্বপক্ষে কোন কাগজপত্র দেখাতে না পারায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইনে ফ্যাক্টরি মালিক আতিয়ার রহমানকে এক বছরের সশ্রম কারাদন্ড ও ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড অনাদায়ে আরও এক মাসের কারাদন্ড প্রদান করা হয়। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন নির্বাহী ম্যাজিষ্টেট ও সৈয়দপুর উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভ‚মি) পরিমল কুমার সরকার। এ সময় উদ্ধার হওয়া নকল ওষুধ ধ্বংস করা হয়। দন্ডপ্রাপ্ত আতিয়ার রহমান তাৎক্ষণিক জরিমানার অর্থ পরিশোধ করলেও এক বছরের দন্ডপ্রাপ্ত হওয়ায় তাকে নীলফামারী জেল হাজতে পাঠানো হয়। 
র‌্যাবের এ অভিযানে অন্যদের মধ্যে র‌্যাব-১৩ রংপুর সিপিসি-২ ক্যাম্পের নীলফামারী ক্যাম্প কমান্ডার সিহিয়র সহকারি পুলিশ সুপার আবুল কালাম আজাদ, র‌্যাব- ১৪ ময়মনসিংহ এর সহকারি পুলিশ সুপার তৌফিকুল আলম, উপ-পরিদর্শক মো. ফিরোজসহ র‌্যাবের অন্যান্য কর্মকর্তাবৃ‚ন্দ উপস্থিত ছিলেন। 
র‌্যাব জানায়, ইদানিং নকল ওষুধে গ্রামাঞ্চলের হাট বাজারে সয়লাব হয়ে পড়ায় নকল ওষুধ তৈরি এবং বাজারজাত করা চক্রের সদস্যদের ধরতে সোর্স নিয়োগ করা হয়। পরে সাধারণ ভোক্তা, ফার্মেসী ব্যবসায়ী হয়ে ম‚ল হোতাকে ধরতে ওই অভিযান পরিচালনা করা হয়। 
অভিযোগ রয়েছে, ফ্যাক্টরী মালিক আতিয়ার রহমান দীর্ঘদিন ধরে ইউনানী ওষুধ তৈরির অনুমোদন নিয়ে নকল ওষুধের ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিলেন।                   

পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 8273797591804683474

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

ফেকবুক পেজ

কৃষিকথা

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item