সৈয়দপুর বাইপাস সড়কের অজ্ঞাত লাশটি ছিল রংপুরের ফারাজুলের

বিশেষ প্রতিনিধি॥ নীলফামারীর সৈয়দপুর বাইপাস সড়কে অজ্ঞাত যুবকের লাশের পরিচয় পাওয়া গেছে। ঘটনার দুই দিন পর আজ সোমবার(৩০ সেপ্টেম্বর) দুপুরে রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার গোপীনাথপুর গ্রামের খিয়ারপাড়ার সহিদার রহমান তার নিজ ছেলে ফারাজুল ইসলামের লাশ সনাক্ত করে।
নিহত ফারাজুল পেশায় ভ্যানচালক ছিল।
ফারাজুলের বাবা জানায় ২৮ সেপ্টেম্বর বিকেলে যাত্রী নিয়ে সে সৈয়দপুর যায়। কিন্তু সে রাতে আর বাড়ি ফিরে আসেনি। এমনকি গত দুইদিনেও তার কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিলনা। গ্রামের লোকজনের মুখে জানতে পারি, সৈয়দপুরে এক অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধার হয়েছে। লাশের ছবি দেখে আমি চিনতে পারি এটাই আমার ছেলের ফারাজুল। নিহতের পরিবারের দাবি ছিনতাইকারীরা তার ছেলেকে হত্যা করে  চার্জার ভ্যান ও তার মোবাইল নিয়ে পালিয়ে গেছে।
সৈয়দপুর থানার ওসি শাহজাহান পাশা জানান, অজ্ঞাত যুবকের পরিচয় পাওয়া যায়। ময়নাতদন্ত শেষে   ফারাজুলের লাশ, স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।
এলাকাবাসী জানায় সৈয়দপুর বাইপাস সড়কটির যেন ছিনতাই ও মানুষ হত্যার নিরাপদ স্থানে পরিনত হয়েছে। এ ঘটনার তিন দিন আগেও নীলফামারীর চড়াইখোলা এলাকার ইপিজেড শ্রমিক জয়দেবের লাশ পাওয়া গিয়েছিল। প্রথমে এ সব মৃত্যু সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত বলে ধারনা করা হয়েছিল। কিন্তু এখন এলঅকাবাসী পরিস্কার হয়েছে এসব ছিনতাইকারীরা করছে।
নীলফামারী পুলিশ সুপার আশরাফ হোসে পিপিএম- এ ব্যাপারে সাংবাদিকদের বলেন তিনি জানান, ময়না তদন্ত  রিপোর্ট হাতে পেলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে। তাছাড়া ঘটনার প্রকৃত কারণ উদঘাটনে ইতিমধ্যে মাঠে তদন্ত শুরু করা হয়েছে পাশাপাশি সৈয়দপুর বাইপাস সড়কে রাতে পুলিশী টহল বৃদ্ধি করা হয়েছে।
উল্লেখ্য যে, গত ২৮ সেপ্টেম্বর রাত আনুমানিক ১টার দিকে সৈয়দপুর শহরের বাইপাস মহাসড়কের বসুনিয়া মোড়ের দক্ষিনে অজ্ঞাত হিসেবে ভ্যানচালক ফারাজুলের লাশ উদ্ধার করে সৈয়দপুর থানা পুলিশ। এ ঘটনার তিন দিন পূর্বে ওই মোড়ের উত্তরে রাত ৮টার দিকে এক ইপিজেড শ্রমিককে মুমুর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে সৈয়দপুর ফায়ার সার্ভিসের একটি দল। পরে সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালে নেয়ার পর সে মারা যায়। #

পুরোনো সংবাদ

সৈয়দপুর 1472531074108281179

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

শিল্প-সাহিত্য

ফেসবুক লাইকপেজ

তারিখ অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item