ডোমারে সরকারী সড়কের গাছকাটার অভিযোগ,তদন্তেই বছর পার।

আনিছুর রহমান মানিক, ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধি>>
নীলফামারীর ডোমারে একটি ঘটনার তদন্ত করতেই এক বছর পার হয়ে গেল।
ঘটনার শতভাগ সত্যতা থাকলেও অভিযোগকারীর অভিযোগ তদন্তে গড়িমশি করায় হতাশ হয়ে পড়েছে ওই অভিযোগকারী সহ এলাকাবাসী।
অভিযোগ  সুত্রে জানা গেছে, গত বছর উপজেলার হরিণচড়া ৫নং ওয়ার্ডের মৃত ডাক্তার নুর উদ্দিনের ছেলে ময়নুল হোসেন গং এলাকার সরকারী সড়কের ১৭টি বিভিন্ন প্রজাতির গাছ কেটে নেয়। ২০১৮ সালের আগষ্ট মাসের ৯ তারিখে ওই ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডবাসী ওই এলাকায় সড়কের গাছকাটা নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্র্মকর্তা বরাবরে অভিযোগ করেন।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে ফাতিমা বিষয়টি তদন্তের জন্য উপজেলা বিট অফিসার আতাউর রহমানকে দায়িত্ব দেন। কিন্তু বিট কর্মকর্তা আতাউর রহমান তদন্ত নিয়ে গড়িমশি করে। তদন্তের বিষয়টি জানতে অভিযোগকারী তার সাথে যোগাযোগ করলে তিনি অভিযোগকারী সাথে অসৌজন্য মূলক আচরণ করে বলে একাধিক অভিযোগকারী জানান। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে ফের অভিযোগ করলে তিনি রেঞ্জ কর্মকর্তাকে পূণঃ তদন্তের নির্দেশ দেন। তাকে দ্বায়িত্ব দেয়ার এক বছর পার হয়ে গেলেও তিনি একই পথে হাটছেন বলে অভিযোগকারী মশিউর রহমান প্রতিবেদককে জানান। তিনি আরো বলেন, সরকারী সড়কের ১৭টি গাছ দিনে দুপুরে দূর্বৃত্তরা কেটে নিলেও প্রসাশন কোন পদক্ষেপ না নেওয়ায় আমরা হতাশ হয়ে পড়েছি। বিষয়টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আজিজুল ইসলাম তিনি মাপযোগ করে গাছ গুলো যে রাস্তার তার প্রমান পায়। এখনো তিনি তারই ইউনিয়ন পরিষদের চত্তরে একটি নিম গাছ জব্দ করে রেখেছেন। অথচ তদন্ত কর্মকর্তা নানা  তাল বাহানায় সময় কাল ক্ষেপন করছে। এ বিষয়ে জানতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে ফাতিমা’র সাথে তার মুঠোফোনে এ বিষয়ে জানতে চাইলে  তিনি বলেন ,পূণঃতদন্তের জন্য পাঠিয়েছি রিপোট এখনো আসেনি, আসলে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা নিব।

পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 5544849296133398729

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

শিল্প-সাহিত্য

ফেসবুক লাইকপেজ

তারিখ অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item