পঞ্চগড়ে তেতুলিয়া ওসিএলএসডি কৃষকের গম সংগ্রহ না করে ব্যবসায়ীদের গম সংগ্রহের অভিযোগ

মোঃ সাইদুজ্জামান রেজা, পঞ্চগড় প্রতিনিধি:

পঞ্চগড় জেলার তেতুলিয়া উপজেলার তেতুলিয়া খাদ্য গুদামের খাদ্য শস্য কৃষকের কাছে সংগ্রহের জন্য জননেত্রী শেখ হাসিনা কৃষক ও খাদ্য বান্ধব সরকার কৃষকের খাদ্য শস্য গুরুত্ব বিবেচনা করে সরাসরি কৃষকের নিকট হতে খাদ্য শস্য সংগ্রহের জন্য বরাদ্দ প্রদান করেন ১৫১৮ মে.টন গম এবং ৭৪০ টন চাল। ইতোমধ্যে কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি গম সংগ্রহ না করে ব্যবসায়ীদের নিকট হতে প্রায় চারশত টন গম সংগ্রহ করেছেন প্রতি বস্তা গম সংগ্রহে দুইশত টাকা করে ব্যবসায়ীদের নিকট হতে ঘুষের বিনিময়ে। উপজেলা খাদ্য বিভাগের তথ্যমতে, এ যাবৎ ৪টি ইউনিয়নের ৪৫৫ জন কৃষকের নাম তালিকা খাদ্য অফিস পৌছিয়েছেন ইউপি চেয়ারম্যান। মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন ইউনিয়নের কৃষকদের সাথে কথা বললে তারা জানায়, মাঠপর্যায়ে কোন কৃষক খাদ্য অফিসের গম সংগ্রহের জন্য আছে কি না তা আমাদের জানা নেই। চেয়ারম্যান মেম্বার তার পছন্দের কয়েকজন ব্যক্তির নাম তালিকা দিয়ে ব্যবসায়ীদের নিকট হতে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে তেতুলিয়া ওসিএলএসডি আমজাত হোসেন এর যোগসাজসে খাদ্য শস্য গম খাদ্য গুদামে সংগ্রহ করছেন। কোন প্রকৃত  কৃষক গম নিয়ে খাদ্য গুদামে গেলে ওসিএলএসডি আমজাত হোসেন জানায়, আপনাদের নাম তালিকা নেই গম ভেজা নানা টালবাহানা দিনের পর দিন মাঠে ফেলে রাখে নষ্ট করে ফেলান। তেতুলিয়া ইউনিয়নের কৃষক সহিদুল, আজাদ, মফিজল হক, আব্দুল্লাহ্, তিরনই হাট ইউনিয়নের কৃষক আশরাফুল ইসলাম, বছির উদ্দীন, সাজ্জাদ হোসেন জানান, তেতুলিয়া ওসিএলএসডি আমজাত হোসেন আমাদের কৃষকের গম চাল ক্রয় না করে ব্যবসায়ীদের নিকট হতে বস্তা প্রতি দুইশত টাকা হারে ঘুষ গ্রহণ কর ব্যবসায়ীদের নিকট হতে লক্ষ লক্ষ টাকা ঘুষ গ্রহণ করেন। প্রশাসনের নিকট অভিযোগ করেও কোন প্রকার প্রতিকার না  পেয়ে কৃষকদের নীরব থাকতে হয়। ওসিএলএসডি আমজাদ হোসেন সাথে কথা বললে তিনি জানায়, ঘুষ দুর্নীতি কোন ব্যাপার নয়। প্রতিবছর আমার বিরুদ্ধে জাতীয় স্থানীয় পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ করা হয়। এ ব্যাপারে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের প্রয়োজনীয় হস্তক্ষেপ কামনা করছেন ভুক্তভোগী কৃষকগণ।

পুরোনো সংবাদ

পঞ্চগড় 1351079573751569486

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item