পীরগঞ্জে ভিজিএফ’র চাল কালোবাজারে বিক্রির সময় আটক ইউপি চেয়ারম্যানকে বাঁচানোর চেষ্টা!

মামুনুর রশিদ মেরাজুল-পীরগঞ্জ (রংপুর) থেকে ঃ

পীরগঞ্জে এক ইউপি চেয়ারম্যান কালোবাজারে ভিজিএফ’র চাল বিক্রির সময় পিআইও হাতেনাতে আটক করলেও চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়নি। উল্টো ওই অভিযোগ থেকে চেয়ারম্যানকে অব্যাহতি দিতে পিআইওসহ একটি মহল উঠেপড়ে লেগেছে। গত বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলার বড়আলমপুর ইউনিয়নে ঘটনাটি ঘটেছে।
অভিযোগ ও পিআইও’র দফতর সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার ১৫ টি ইউনিয়নে দরিদ্র-অসহায় মানুষের মাঝে ১০ কেজি করে ঈদপূর্ব ভিজিএফ’র চাল বিতরন করা হচ্ছে। উপজেলার বড়আলমপুর ইউনিয়নে ৩ হাজার ৮৩৭ জন কে ওই ভিজিএফ’র আওতায় এনে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। গত বুধবার ওই ইউনিয়নের ট্যাগ অফিসার উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা মহিউল ইসলামের উপস্থিতিতে দিনব্যাপী প্রায় ৩৮ মে. টন চাল বিতরন করার পর শেষ বিকেলে বেশ কয়েক বস্তা চাল অবশিষ্ট থাকে। ট্যাগ অফিসার সেখান থেকে চলে আসার পর সন্ধ্যার আগ মুহুর্তে ওই চাল কালোবাজারে বিক্রির জন্য ভ্যানযোগে পাচারের সময় এলাকাবাসী উপজেলা ত্রান ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা (পিআইও) কে খবর দেয়। খবর পেয়ে পিআইও ওই ইউপি কার্যালয় পতœীচড়া বাজারে গিয়ে হাতেনাতে ১৮ বস্তা (প্রতিটিতে ৫০ কেজি করে প্রায় ১ মে. টন চাল) চাল আটক করে একটি ঘরে তালাবদ্ধ করে রাখেন। এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান বলেন- অনেক মানুষ না আসায় চালগুলো দিতে পারিনি। অপরদিকে পিআইও শরফুল ইসলাম বলেন- নতুন তালিকা তৈরী করে আটক চাল বিতরন করা হবে। তিনি চাল আত্মসাতের বিষয়ে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নিতে পারবেন না জানিয়ে বলেন- ব্যবস্থা নেয়া যাবে না, আমি তো চাল বিতরনের ব্যবস্থা করছি। ওসি রেজাউল করিম জানান- উল্লেখিত বিষয়ে অভিযোগ পাইনি। উল্লেখ্য, সম্প্রতি ওই ইউনিয়নে ১০ কেজি দরে চাল বিতরন কার্ডের তালিকা তৈরীতেও দরিদ্রদের কাছ থেকে টাকা নেয়ার অভিযোগ উঠলে পরে টাকা ফেরত দেয়া হয়েছে।

পুরোনো সংবাদ

রংপুর 7879572485446412948

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item