ফুলবাড়ীতে জেলা প্রশাসকের হস্তক্ষেপে ৩ হাজার বিঘা জমির জলাবন্ধতা নিরসন


মেহেদী হাসান উজ্জ¦ল, ফুলবাড়ী,দিনাজপুর প্রতিনিধি:


দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার খয়েরবাড়ী ও দৌলতপুর ইউনিয়নের প্রায় ৩ হাজার বিঘা জমিতে দীর্ঘদিন ধরে জলাবদ্ধতা নিরসনের ব্যবস্থা করেছেন দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল আলম।


শনিবার (২৪ অক্টোবর) ১২ টায় উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের বারাইপাড়া গ্রামে কোদাল হাতে ক্যানেল নির্মাণ কাজ উদ্বোধন করেন দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল আলম।


স্থানীয় কৃষকরা বলেন, দীর্ঘ ৫ বছর ধরে ফুলবাড়ী উপজেলার খয়েরবাড়ি-দৌলতপুর উউনিয়নের আশপাশের ১০টি গ্রামের প্রায় ৩ হাজার বিঘা জমিতে দির্ঘদিন জলাবদ্ধতা থাকার কারণে ওই জমি গুলো অনাবাদী হয়ে পড়ে ছিলো। দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন মহলে কৃষকরা দাবি জানিয়ে আসলেও কোন উপকার পায়নি। সর্বশেষ দিনাজপুর জেলা প্রশাসক মহোদয়ের উদ্যোগে এই জলাবদ্ধতা নিরসনের লক্ষে এই ক্যানেলের কাজ শুরু হলো। 


দৌলতপুর মৌজায় দীর্ঘ ৫ বছর ধরে জলাবদ্ধতা থাকার কারণে আলম সরকার তার ১ একর জমিতে কোন ধরণের চাষাবাদ করতে পারছিলেন না। আলম সরকার বলেন, "আমার দুই বিঘা জমি পূর্বে থেকেই ছিল। পরে এক বিঘা জমি ক্রয় করেছি। কিন্তু গত কয়েক বছর ধরে জলাবদ্ধতার কারণে জমিতে কোন চাষাবাদ করতে পারছিলাম না!


তিনি আরও জানান, মাত্র ৩০০ ফিট একটি ড্রেন না থাকায় হাজার হাজার কৃষকরা তাদের জমিতে ফসল উৎপাদন করতে পারছিলাম না। এই ড্রেনটি নির্মাণ কাজ শেষ হলে কয়েক হাজার কৃষক পরিবার তাদের জমিতে ফসল ফলাতে পারবে।'


খয়েরবাড়ি এলাকার মো. জালাল উদ্দিন বলেন, "একটা ড্রেন না থাকায় আমাদের হাজার হাজার বিঘা জমিতে ফসল ফলাতে পারছি না। আমরা এর আগে জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য স্থানীয় কৃষকরা বিভিন্ন জায়গায় যোগাযোগ করেছি,অন্দোলন করেছি কিন্তু কোন কাজ হয়নি। সর্বশেষ দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক মহোদয় আমাদের দাবির প্রেক্ষিতে আজকে নিজেই কোদাল নিয়ে মাঠে নেমেছেন। দু'একদিনের মধ্যেই এই ড্রেনটির নির্মাণ কাজ শেষ হলে আমরা আবার জমি গুলোতে ফসল ফলাতে পারব।' 

এ বিষয়ে ফুলবাড়ী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান মিল্টন বলেন, "দীর্ঘদিন ধরে খয়েরবাড়ী ও দৌলতপুর ইউনিয়নসহ আশপাশের প্রায় ৩ হাজার বিঘা জমিতে জলাবদ্ধতা থাকার কারণে কয়েক হাজার কৃষক ফসল ফলাতে পারতেন না। এ বিষয় নিয়ে আমরা উপজেলার প্রতিটি সভায় আলোচনা করেছি কিন্তু কোন কাজ হয়নি। বিষয়টি স্থানীয় এমপি মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার মহোদয়ও জানেন। জলাবদ্ধতা নিরসনে তিনিও চেষ্টা করেছেন। আজকে এই জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য জেলা প্রশাসক মহোদয় নিজেই এসেছেন। ড্রেন নির্মাণের কাজ চলছে। এই ড্রেন নির্মান কাজ শেষ হলে কয়েক হাজার পরিবার উপক্রিত হবেন।"


জানতে চাইলে দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক মো. মাহমুদুল আলম সাংবাদিকদের বলেন, ফুলবাড়ী উপজেলার খয়েরবাড়ী ও দৌলতপুর এলাকার প্রায় ২ হাজার একর জমিতে দীর্ঘদিন ধরে জলাবদ্ধতা থাকার কারণে কৃষকরা ফসল ফলানো থেকে বঞ্চিত ছিল। আমার কাছে বিষয়টি এলাকাবাসী জানালে আমি সরেজিমন পরিদর্শন করি।

এই কয়েক হাজার পরিবার যাতে তাদের কৃষি জমিতে ফসল ফলাতে পারে সেজন্য একটি ৩০০ ফিট পরিমান ড্রেন নির্মাণ করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়। তার প্রেক্ষিতেই আজকে এলাকাবাসীর সাথে একাত্বতা ঘোষণা করে এবং স্বেচ্ছাশ্রমে ড্রেন নির্মাণের কাজ শুরু করা হয়। ড্রেন নির্মাণ শেষ না হওয়া পর্যন্ত পুরো বিষয়টি আমি নিজেই তদারকি করব। এছাড়াও ড্রেন নির্মাণের ফলে যেসব কৃষিকের ক্ষতি হয়েছে তারাও জমি এবং ফসলের ক্ষতিপূরণ পাবেন।"

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খায়রুল আলম সুমন,সদ্য যোগদাকৃত উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রিয়াজ উদ্দিন,সহকারী কমিশনার ভূমি কানিজ আফরোজ, উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নিরু সামসুন্নাহারসহ ৭টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রমুখ।ড্রেন নির্মাণ কাজে এগিয়ে আসেন ফুলবাড়ী উপজেলার শিক্ষক, সুধিজন, কৃষক, কৃষাণী, স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীসহ কয়েক হাজার মানুষ।


পুরোনো সংবাদ

নির্বাচিত 598353494143566608

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

ফেকবুক পেজ

কৃষিকথা

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item