যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরের গাছ কাটলেন চেয়ারম্যান

মুহম্মদ তরিকুল ইসলাম, পঞ্চগড় প্রতিনিধিঃ যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই নিয়ম না মেনে পঞ্চগড় জেলাধীন তেঁতুলিয়া উপজেলার ৪নং শালবাহান ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরের গাছ কাটার অভিযোগ উঠেছে ওই ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান লিটনের বিরুদ্ধে। চেয়ারম্যান অনেকগুলো গাছ বিক্রি করে টাকা আত্মসাৎ করেছেন বলেও অভিযোগ করেছেন স্থানীয়রা।
বিষয়টি জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিনকে জানানো হলে, তিনি তেঁতুলিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মো: মাসুদুল হককে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন।
স্থানীয়দের অভিযোগ, প্রশাসনের অনুমতি নেওয়া আছে এমন কথা বলে এক সপ্তাহ ধরে চেয়ারম্যান তার লোকজন দিয়ে ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরের চারপাশের মেহগনি, কাঁঠাল, আকাশমনি, জলপাইসহ বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় অর্ধশত গাছ কেটেছেন। এছাড়াও গাছগুলোর কিছু লগ গোপনে বিক্রি করেছেন তিনি। স্থানীয়রা প্রতিবাদ করায় কিছু গাছ পরিষদ চত্বরে রেখে দেওয়া হয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় একজন জানান, প্রশাসনের অনুমতি রয়েছে এমন কথা বলে চেয়ারম্যান গাছ কেটেছেন। পরে যখন স্থানীয়রা জানতে পারেন তিনি অনুমতি না নিয়েই গাছ কেটেছেন, তখন তারা প্রতিবাদ করেন। বিষয়টি জেলা ও উপজেলা প্রশাসনকেও জানান তারা।
শালবাহান এলাকার বাসিন্দা আব্দুল কুদ্দুস, শওকত আলী ও আব্দুস সামাদ জানান, ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে বড় বড় গাছ ছিল। এগুলো চত্বরে ছায়া দিতো ও সৌন্দর্য বাড়াতো। একইসঙ্গে গাছের ছায়ায় বসে বিশ্রাম নিতেন স্থানীয়রা। অথচ সেই গাছ কেটে বিক্রি করে চেয়ারম্যান টাকা আত্মসাৎ করেছেন।
তবে চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান লিটন জানান, গাছের কারণে ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের ক্ষতি হচ্ছে, এ কারণেই পরিষদের সবার মত নিয়ে গাছ কাটা হয়েছে। ৩৫টির মতো গাছ কাটা হয়েছে। গাছগুলো পরিষদে চত্বরে স্তুপ করে রাখা আছে।
এদিকে তেঁতুলিয়া উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) মোঃ মাসুদুল হক জানান, শালবাহান ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে গাছ কাটার বিষয়টি শুনেছি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।


পুরোনো সংবাদ

পঞ্চগড় 732830928523869104

অনুসরণ করুন

মুজিব বর্ষ

Logo

সর্বশেষ সংবাদ

শিল্প-সাহিত্য

ফেসবুক লাইকপেজ

তারিখ অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item