সৈয়দপুর শহরে ডাকাতি, ওসির ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন

বিশেষ প্রতিনিধি,১৭ মার্চ॥
নীলফামারীর সৈয়দপুর শহরের আবাসিক এলাকা নতুন বাবুপাড়ায় বি জামান লেনের আবিদ রানার বাসায় দুর্ধর্ষ ডাকাতি সংঘটিত হয়েছে।  আজ শুক্রবার ভোর রাতে ওই ডাকাতির ঘটনা ঘটে। তবে পুলিশ নয়, এলাকাবাসী জোট বেঁধে ডাকাতদের ধাওয়া করলে এক ডাকাত আটক হয়। শহরের আবাসিক এলাকায় ডাকাতির ঘটনায় সৈয়দপুর থানার ওসি ভুমিকা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ উক্ত ওসি সৈয়দপুর থানায় যোগদানের পর এলাকার আইনশৃংঙ্খলা পরিস্থিতি উন্নতির চেয়ে অবনতি হয়েছে বেশী। বাসাবাড়িতে চুরি,গরু চুরির সঙ্গে বৃদ্ধি পেয়েছে মাদক ব্যবসা। সচেতন মহলের অভিযোগ মিস্টিভাষী সৈয়দপুর থানার ওসির সঙ্গে তৃপ্তটার সর্ম্পক রয়েছে সব অপরাধ জগতের মানুষজনের সঙ্গে। মাসোয়ারা দাও আর অপরাধ করো এমনই যেন অবস্থা।
সৈয়দপুর শহরের সিগারেট কোম্পানীর প্রায় ২১ লাখ টাকা ডাকাতি হলেও ওসি সেটিকে চুরি বলে চালিয়ে দেন। আর ডাকাত ধরতে এবং টাকা উদ্ধারে ব্যর্থ ওসি ঘটনা ভিন্নদিকে নিতে ওই সিগারেট কোম্পানীর কর্মচারীদের আটক করে বাহাবা নেয়ার ধান্ধা করেন। সৈয়দপুরের সাধারন মানুষজন এক বাক্যেই অভিযোগ করে বলছেন ঘুষ যারা বেশী খায় সেই শহরে আইন শৃংঙ্খলা পরিস্থিতি ঠিক থাকে না। যা সৈয়দপুরের একের এক ঘটনা সাক্ষ্য দিচ্ছে।
সৈয়দপুরে ব্যাপক গরু চুরি হচ্ছে। থানায় গেলে ওসি মামলা নেন না কৃষকদের। বাধ্য হয়ে কৃষকরা দালাল ধরে অর্থের বিনিময়ে গরু ফেরত নিতে বাধ্য হচ্ছে। অভিযোগ এইঅর্থের একটি অংশ ওসির পকেটে যায়।
জানা যায়, হিলি স্থল বন্দরের একটি ট্রান্সপোর্ট কো¤পানীতে চাকুরীরত আবিদ আলী তার পরিবার নিয়ে সৈয়দপুর শহরের আবাসিক এলাকা নতুন বাবুপাড়ায় বি জামান লেনে বসবাস করতেন।   আজ শুক্রবার আনুমানিক ভোর ৪টার দিকে মুখোশধারী ৮ সদস্যের একটি ডাকাত দল বাসার মূলগেটের তালা ও রুমের দরজা ভেঙ্গে বাসার ভিতরে প্রবেশ করে। ডাকাতরা এ সময় অস্ত্রের মুখে স্বামী-স্ত্রীর হাত-মুখ বেঁধে ফেলে। এরপর তারা ঘরে থাকা আলমিরা ভেঙ্গে ৬ ভরি সোনা, ৫২ ভরি রূপা ও প্রায় নগদ ১ লাখ টাকা নিয়ে পালিয়ে যায়।
ভোর ৫টার দিকে  গৃহকর্তা প্রতিবেশীদের সহযোগীতায়  ডাকাত দলকে ধাওয়া করে। ভোর সাড়ে ৫টার দিকে সৈয়দপুর শহরের সুড়কি মহল্লা থেকে সুলতান নামে এক ডাকাত সদস্যকে আটক করে পুলিশে সোর্পদ্দ করে। অন্যান্য ডাকাতরা মালামাল সহ পালিয়ে যায়। আটক ডাকাতের নিকট হতে ডাকাতির আলামতও পাওয়া যায়।
সৈয়দপুর থানার ওসি আমিরুল ইসলাম ঘটনার এবারো ভিন্নখাে প্রবাহে সাংবাদিকদের বলছেন ঘঁনাটি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।
এদিকে সৈয়দপুরের সচেতন মহল উক্ত ওসির দ্রুত অপসারন করে সৈয়দপুরের আইনশৃংঙ্খলা পরিস্থিতি উন্নতিকরনের দাবি করেছে।

পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 6310657140026977420

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item