ডোমারে কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাসের টিকাদান কর্মসূচীর শুভ উদ্বোধন


আনিছুর রহমান মানিক, ডোমার (নীলফামারী) প্রতিনিধি>>

সারা বিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশে কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাস সংক্রমণ মহামারী আকার ধারণ করায় বাংলাদেশ স্বাস্থ্য বিভাগ ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আওতাধীন গনটিকা কার্যক্রমের অংশ হিসেবে নীলফামারীর ডোমারে টিকাদান কর্মসূচীর শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। 


শনিবার (৭ই আগষ্ট) সকাল ৯ টায় ডোমার বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে টিকাদান কর্মসূচীর শুভ উদ্বোধন করেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমেদ। এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিনা শবনম, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ বিভাগের কর্মকর্তা ডাঃ রায়হান বারী, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক সরকার, সহকারী কমিশনার (ভুমি) জায়িদ ইমরুল মোজাক্কিন, ডোমার থানা অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজার রহমান, ডোমার বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রবিউল আলম, উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক গনেশ কুমার আগরওয়ালা, পৌর আহবায়ক আনোয়ার হোসেন রকি, যুগ্ম আহ্বায়ক রিফাত হাসান সৌরভ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। ১ম উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে একই দিনে সকাল সাড়ে নয়টায় ডোমার মহিলা ডিগ্রি কলেজে ২য় বারের মতো শুভ উদ্বোধন করেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিনা শবনম। পরে  উপজেলার ১০টি টিকাদান কেন্দ্র পুিরদর্শন করেন অতিথিগণ।  এ সময় ডোমার মহিলা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ শাহিনুল ইসলাম বাবু, পূর্ব হরিণচড়া মহিলা বিএম কলেজের অধ্যক্ষ মেহেদী হাসান মুক্তি, ডোমার প্রেসক্লাবের নবগঠিত কমিটির আহবায়ক আসাদুজ্জামান চয়ন, পৌর কৃষক লীগের আহবায়ক আবু সাঈদ, যুগ্ম আহ্বায়ক গৌতম কুমার কুন্ডু  ও এবাদত হোসেন চঞ্চল প্রমুখ।  এছাড়াও  যুবলীগের স্বেচ্ছাসেবক কমিটির সদস্য, স্কাউটের সদস্য, আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন, এবং তাদের নিজ নিজ দায়িত্ব নিষ্ঠার সাথে পালন করেছেন। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিনা শবনম বলেন, সারা বিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশে  কোভিড-১৯ করোনা ভাইরাস মহামারী আকার ধারণ করায় স্বাস্থ্য বিভাগ ও  স্বাস্থ্য অধিদপ্তর কর্তৃক গনটিকা কার্যক্রম কর্মসূচী চালু হয়েছে।  উপজেলার ১টি পৌরসভা সহ ১০ টি ইউনিয়ন পরিষদে একযোগে টিকাদান চলছে। এরমধ্যে বীর মুক্তিযোদ্ধা, বয়স্ক, বিধবা, প্রতিবন্ধীরা সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক অগ্রাধিকার ভিত্তিতে তাদেরকে আগে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। তাছাড়া সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী পর্যায়ক্রমে সবাইকে ভ্যাকসিনের আওতায় আনা হবে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃপঃ বিভাগের কর্মকর্তা ডাঃ রায়হান বারী জানান, উপজেলার ১০ টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় একযোগে টিকাদান কর্মসুচীর কার্যক্রম চলছে। ১টি পৌরসভা সহ প্রত্যেক ইউনিয়নের জন্য বরাদ্দ ৬ শত ভ্যাকসিন, গোটা উপজেলায় আজকে মোট ভ্যাকসিন পাবে ৬ হাজার ৬ শত জন ব্যক্তি। পাশাপাশি আমাদের এই টিকাদান কর্মসূচী সকাল ৯ টা থেকে শুরু করে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত চালু থাকবে।  


পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 1278814130698921231

অনুসরণ করুন

Logo

ফেকবুক পেজ

কৃষিকথা

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item