লকডাউনে নীলফামারীতে ভ্রাম্যমাণ ব্যবস্থায় মাছ, মাংস, মুরগী, দুধ, ডিম বিক্রয়


ইনজামাম-উল-হক নির্ণয়,নীলফামারী॥
করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতিতে সরকার ঘোষিত বিধিনিষেধ চলাকালিন মৎস্য ও প্রাণিস¤পদ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে সারা দেশে ন্যায় নীলফামারীতে ন্যায্যমূল্যে মাছ, মাংস, মুরগী, দুধ, ডিম ও বিভিন্ন প্রাণিজাত পণ্যের ভ্রাম্যমাণ বিক্রয় কার্যক্রম চলমান রয়েছে। 

ভ্রাম্যমাণ বিক্রয় কেন্দ্র থেকে সাধারণ মানুষ ব্যাপক আগ্রহ নিয়ে তাদের প্রয়োজনীয় পণ্য ক্রয় করছেন। খামারিরাও উৎপাদিত পণ্য ন্যায্যমূল্যে ভোক্তাদের কাছে সরাসরি বিক্রয় করতে পারছেন। আজ বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াইটায় জেলা শহরের কালিবাড়ি মোড়ে এমন দৃশ্য দেখা যায়। 

জেলা শহরের বাবুপাড়া ফজলে রাব্বী জানান, দুই লিটার দুধ ক্রম করলাম। ইফতারের সময় স্ত্রী, ছেলে ও আমি সেটি পান করবো। 

শাহীপাড়া মোশারফ হোসেন জানান, বাজার দর থেকে ২০ টাকা কমে গরুর মাংস বিক্রয় হচ্ছে। তাই দেড় কেজি গরুর মাংস ক্রম করলাম ভ্রাম্যমাণ গাড়ী থেকে। 

সদর উপজেলা প্রাণিস¤পদ দপ্তরে নিযুক্ত লাইভস্টক সার্ভিস প্রোভাইডার (এলএসপি) আল মাসুদ জানান, গত ১৩ এপ্রিল থেকে জেলা শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে প্রতিদিন ন্যায্যমূল্যে মাছ, মাংস, মুরগী, দুধ, ডিম ও বিভিন্ন প্রাণিজাত পণ্যের ভ্রাম্যমাণ বিক্রয় কার্যক্রম চলছে। সকাল ১১টা থেকে বিকাল ৩ পর্যন্ত এই কার্যক্রম চলবে। এতে গরুর মাংস প্রতি কেজি ৪৮০ টাকা, ডিম ২৭ টাকা হালি, দুধ লিটার প্রতি ৫০ টাকা, বয়লার মুরগী ২২০ টাকা কেজি ও মাস বাজারকৃত মূল্য থেকে ২০-৫০ টাকা কম করে বিক্রি করা হচ্ছে। 

জেলা প্রাণী সম্পদ দপ্তরের কর্মচারী আল মাসুদ জানান, জেলা শহরের গাছবাড়ি, বড় বাজার, ফায়ার সার্ভিস মোড়, কালিবাড়ি মোড়, আনন্দবাবুর পুল, পিটিআই মোড়, ডিসি মোড়, চৌরঙ্গী মোড়, শহীদ মিনার মোড়, পাঁচ মাথা মোড়, কবরস্থান মোড় সহ বিভিন্ন স্থানে এই  ভ্রাম্যমাণ বিক্রয় শুরু হয়েছে। প্রতিদিন দুধ ও ডিম থাকছে। এর পাশাপাশি অন্যান্যদিনে মাংস, মুরগী ও মাস বিক্রয় করা হবে।  গত মঙ্গলবার থেকে আজ বৃহস্পতিবার গরুর মাংস, দুধ ও ডিম বিক্রয় করা হয়েছে। আগামীকাল থেকে দুধ, ডিমের সাথে মুরগী বিক্রয় করা হবে। 

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ মোনাক্কা আলী জানান, করোনা পরিস্থিতিতে ও পবিত্র রমজান মাস সামনে রেখে জনসাধারণের প্রাণিজ পুষ্টি নিশ্চিতকরণে গত ১৩ এপ্রিল থেকে জেলায় মাছ, মাংস, মুরগী, দুধ, ডিম ও বিভিন্ন প্রাণিজাত পণ্যের ভ্রাম্যমাণ বিক্রয় শুরু হয়েছে। করোনা পরিস্থিতিতে মৎস্য ও প্রাণিস¤পদ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে ভ্রাম্যমাণ বিক্রয় ব্যবস্থায় গত ৩ দিনে প্রায় ৬০ হাজার টাকা মূল্যের মাংস, দুধ ও ডিম বিক্রয় করা হয়েছে। 

জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী জানান, করোনা পরিস্থিতিতে ও পবিত্র রমজান মাস সামনে রেখে জনসাধারণের প্রাণিজ পুষ্টি নিশ্চিতকরণে গত ১৩ এপ্রিল থেকে জেলা শহরের নির্দিষ্ট ১১টি পয়েন্ট সহ বিভিন্ন মোড়ে জেলা প্রশাসনের পক্ষে একটি পিকআপ গাড়িতে স্বাস্থসমত ন্যায্যমূল্যে মাছ, মাংস, মুরগী, দুধ, ডিম ও বিভিন্ন প্রাণিজাত পণ্যের ভ্রাম্যমাণ বিক্রয় কার্যক্রম শুরু হয়েছে। যা রমজান মাসব্যপী চলবে। সাধারণ মানুষ স্বাস্থ্যবিধি মেনে নির্দিষ্ট মূল্য তালিকায় নিজের প্রয়োজনীয় পর্ণ্য ক্রয় করতে পারবে। 

উল্লেখ যে, এ বছর জেলা প্রশাসনের বাস্তবায়নে জেলার মৎস্য দপ্তর ও প্রাণিস¤পদ দপ্তরের প্রাণিসম্পদ ও ডেইরী উন্নয়ন প্রকল্প ব্যবস্থাপনায় স্থানীয় ডেইরী ও পোল্ট্রি ফার্মার্স অ্যাসোসিয়েশনের মাধ্যমে এ কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। # 


পুরোনো সংবাদ

হাইলাইটস 1513218928857182407

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

ফেকবুক পেজ

কৃষিকথা

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item