জলঢাকায় জেএমবি সদস্য গ্রেফতার

নীলফামারী প্রতিনিধি ৪ মার্চ॥ জেএমবি সদস্য রশিদুল ইসলাম (৩২) কে গ্রেফতার করেছে নীলফামারীর জলঢাকা থানা পুলিশ। গোপন সংবাদে গতকাল মঙ্গলবার(৩ মার্চ/২০২০) গভীর রাতে জলঢাকা উপজেলার শৌলমারী ইউনিয়নের তিস্তা নদীর চর গোপালঝাড় এলাকায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়।
গ্রেফতারকৃত রশিদুল ইসলাম ঢাকার গুলশান হলি আর্টিজান হামলা মামলার ফাঁসির দন্ডপ্রাপ্ত রাজীব গান্ধীর অন্যতম সহযোগী লালমনিরহাটের শামসুল আলম খন্দকারের ছেলে মোছাব্বির খন্দকার প্রিন্স ওরফে রিপন এবং দিনাজপুরের বুদা মন্ডলের ছেলে সাবু ওরফে মিজানের সহযোদ্ধা জেএমবি সদস্য।
পুলিশ জানায়, ২০১৫ সালের ৯ আগষ্ট সকালে জলঢাকা উপজেলার গোলমুন্ডা উচ্চ বিদ্যালয়ের পন্ডিত শিক্ষক মাবধ চন্দ্র রায় জলঢাকার বাসা থেকে ইজিবাইক যোগে স্কুল যাচ্ছিলেন। ছদ্ম বেসে একই অটো ইজিবাইকে ছিল দুইজন জেএমবি সদস্য। পথে মাধব মাস্টারকে প্রকাশ্যে গুলি ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে তারা।
পরে আশঙ্কাজনক অবস্থা মাধব মাষ্টারকে রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনদিন পর তার মৃত্যু হয়।
এ ঘটনায় মামলা হলে পুলিশ ও সিআইডির তদন্তে বেরিয়ে আসে ঘটনার সঙ্গে জেএমবি সদস্যরা জড়িত। ওই মামলায় নীলফামারীর সিআইডি জেএমবি সদস্য মোছাব্বির খন্দকার প্রিন্স ওরফে রিপন এবং সাবু ওরফে মিজানকে গ্রেফতার করে। মাধব মাষ্টার হত্যার সঙ্গে জড়িত তাদের সহযোগী জলঢাকার
গোপালঝাড় দিঘলটারী এলাকার মৃত ওসমান আলীর ছেলে রশিদুল ইসলাম নাম পরিবর্তন করে ছদ্মনামে  আব্দুর রশীদ ও আবুল কালাম আজাদ পরিচয়ে পুলিশে চোখ ফাকি দিয়ে চলাচল করছিল। এ ছাড়া রশিদুল জেএমবি সদস্য সাজাপ্রাপ্ত আটক তৈয়ব আলীর সঙ্গে বিভিন্ন নাশকতামুলক কর্মকান্ডে অংশ নিয়েছিল।
আজ বুধবার(৪ মার্চ/২০২০) জলঢাকা থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, মাধব মষ্টার হত্যাকান্ড মামলায় জেএমবি সদস্য রশিদুল ইসলাম ছদ্মনামে লুকিয়ে লুকিয়ে চলাচল করতো। গোপন সংবাদে নিশ্চিত হয়ে অভিযান চালিয়ে তাকে তার বাড়ি হতে গ্রেফতার করা হয়। #

পুরোনো সংবাদ

হাইলাইটস 551880988435803050

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item