পড়াশোনার পাশাপাশি ইটভাটায় কাজ করেন সুমন


নির্ণয়,নীলফামারী॥
সুমন রায়। এক ভাই দুই বোন। অভাবের সংসার। মাথাগোজার ঠাঁইটুকু নেই তাদের। ১১ বছর বয়স থেকে দেশের বিভিন্ন জেলায় ইটের ভাটায় কাজ করে নিজের পড়াশুনা চালানোর পাশাপাশি ৫ সদস্যের একটি পরিবারের হাল ধরে রেখেছেন ইটের ভাটার উপার্জনে।

সে নীলফামারীর ডোমার উপজেলার সোনারায় ইউনিয়নের ডুগডুগী গ্রামের প্রভাত রায়ের ছেলে। সৈয়দপুর সরকারী কলেজের ইতিহাস বিভাগের ২য় বর্ষের অনার্স পড়ুয়া মেধাবী ছাত্র। 

ইটের ভাটায় একদিন কাজ না করলে তার পরিবার অনাহারে অর্ধাহারে থাকে। নিজের জমি নেই, অন্যের ভিটায় ২টি কুড়েঘড়ে তাদের বসবাস। বাবা দিনমুজুর মা গৃহিনী। তাকে পড়াশুনা করানো ও পরিবারের যাবতীয় খরচ চালানো দিনমুজুর বাবার পক্ষে সম্ভব নয়। নিজের পড়াশুনা চালিয়ে যাওয়ার জন্য ও সরকারী চাকরী করার আশায় মাথার ঘাম পায়ে ফেলিয়ে সে ইটের ভাটায় কাজ করেন। সে শুধু কলেজের প্রয়োজনে বছরে দু’একবার বাড়ীতে আসেন। নতুবা আসার সুযোগ হয়না। 

সুমন রায়ের সাথে কথা হলে সে বলেন, আমার বয়স ১১ বছর হলেই তখন থেকে সংসারের অভাব অনটন মিটাতে ও নিজের পড়াশুনার টাকা জোগারের জন্য সারাবছর দেশের বিভিন্ন জেলায় ইটের ভাটায় কাজ করি। ইটের ভাটার পরিশ্রমে আমার ৫ সদস্যের একটি পরিবারের হাল ধরে রাখতে পারছি। ইটের ভাটার পরিশ্রমের টাকা দিয়ে আমি  অনার্স ২য় বর্ষ পর্যন্ত পড়তে সক্ষম হয়েছি। আমার আশা, আমি এভাবে কষ্ট করে পড়াশুনা শেষে একটি সরকারী চাকরী করতে পারবো।

সোনারায় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল কালামের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, পরিবারটি গরীব । সুমন রায় ছোট বেলা থেকে ইটের ভাটায় কাজ করে ও নিজের পড়াশুনা চালায়। নিজের পরিশ্রমের টাকা দিয়ে সে অনার্স পর্যন্ত পড়তে পারছে। তার বাবা মার পক্ষে সুমনকে লেখাপড়া করানো সম্ভব নয়। তবে আমি যতটুকু পারছি এই পরিবারটিকে সাহায্য সহযোগিতা করে আসছি। #


পুরোনো সংবাদ

শিক্ষা-শিক্ষাঙ্গন 5384000756466112423

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

ফেকবুক পেজ

কৃষিকথা

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item