প্রতিবন্ধীসহ তিন কিশোরকে নির্যাতন মামলার মূল আসামী মোস্তাকিমসহ দুই জন গ্রেফতার


মেহেদী হাসান উজ্জ্বল,ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:

দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে আলোচিত ছাগল চুরির অপবাদে শারীরিক প্রতিবন্ধীসহ তিন কিশোরকে নির্যাতন মামলার মূল আসামী মো. মোস্তাকিম হক বাবু মাষ্টার (৫০) ও তার ছোট ভাই মৌসুক পারভেজ শুভ (২৩)কে আটক করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার ভোর পাঁচ টার দিকে পৌর এলাকার ঢাকা মোড় এলাকা থেকে পুলিশ তাদের আটক করে।

থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ফখরুল ইসলাম বলেন, মামালা দায়ের পর সব আসামী গ্রেফতার করা সম্ভব হলেও এই দুই আসামী পলাতক ছিলেন। মামলার ১ নং আসামী মোস্তাকিম হক বাবু মাষ্টার ও ৫নং আসামী তার ভাই মৌসুক পারভেজ ঢাকায় পালিয়ে যাওয়ার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তার নেতৃত্বে মামলার তদন্তকারী অফিসার উপ-পরিদর্শক আজাদ সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্সসহ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ঢাকায় পালিয়ে যাওয়ার সময় মঙ্গলবার ভোরে তাদেরও গ্রেফতার করা হয়।গ্রেফতারকৃত মোস্তাকিম হক বাবু মাষ্টার ও তার ভাই মৌসুক পারভেজ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

উল্লেখ্য দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলার শীবনগর ইউনিয়নের রামভদ্রপুর গ্রামের বুদ্ধিজীবীর মোড়ে গত ১ মে দুপুরে শারীরিক প্রতিবন্ধী সৈয়দ শামীম হোসেন (১৬) ত্রিমোহনী স্লুইচ গেট, রাকিবুল ইসলাম (১৯) ও নিশাতকে (১৬) পূর্ব জাফরপুর গ্রামের নিজ বাড়ী থেকে কৌশলে ডেকে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর গ্রামের রুপচাঁদের ছাগল চুরির অপবাদ দিয়ে শিক্ষক মোস্তাকিম হক বাবুু মাস্টার (৫০), মো. শাকিব (২৫), মো. শিপন (২৬), রেজাউল (৫৫), আফজার হোসেন (৬০), মৌসুক পারভেজ শুভকে (২৩), হৃদয় (২৫) ও নূরনবীসহ (২৬) ওই তিন কিশোরকে গাছের সাথে বেঁধে রড, পাইপ ও লাঠিসোটা দিয়ে মধ্যযুগীয় কায়গায় পিটিয়ে গুরুতর জখম করেছে। চুরির স্বীকারোক্তি নিতে কিশোর তিনজনের পায়ে ইঞ্জেশনের সিঞ্জের সুচ ফুটিয়ে নির্যাতন চালানো হয় প্রকাশ্যে। মারপিট শেষে বাবু মাস্টারসহ তার সহযোগীরা আহত কিশোর তিনজনকে ছাগল চোর আখ্যা দিয়ে শিবনগর ইউনিয়ন পরিষদে হাজির করেন। পরে ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ওই তিন কিশোরের অভিভাবকদের জিম্মায় ছেড়ে দেওয়া হলে পরিবারের লোকজন প্রতিবন্ধী কিশোর রাকিবুল (১৯) ও শামীম হোসেনকে (১৬) চিকিৎসার জন্য উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এই বর্বরোচিত নির্যাতনের ঘটনার ভিডিও চিত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে ভাইরাল হলে। বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ হয়।

এ ঘটনার নির্যাতনের শিকার রাকিবুলের পিতা মো. মোমিনুল ইসলাম ফুলবাড়ী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার প্রেক্ষিতে ফুলবাড়ী থানা পুলিশ অন্য আসামীদের গ্রেফতার করলেও মামলার ১ নং আসামী মোস্তাকিম হক বাবু মাষ্টার ও ৫নং তার ভাই মৌসুক পারভেজ শুভ পলাতক ছিল। 


পুরোনো সংবাদ

নির্বাচিত 6438497616285952845

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

ফেকবুক পেজ

কৃষিকথা

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item