নীলফামারীতে পাওনা টাকা আদায়ের দাবিতে অফিস ঘেরাও, মিথ্যা অভিযোগের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

 


ইনজামাম-উল-হক নির্ণয়,নীলফামারী-
নীলফামারীতে শিশু ভাতা, অসহায় মানুষদের ঘর করে দেয়া এবং বয়স্ক মহিলাদের সাহায্যের নামে ৫০০জনের কাছ থেকে ৪২লাখ টাকা উত্তোলন করার অভিযোগ উঠেছে। সেই পাওনা টাকা আদায়ের দাবিতে আজ বুধবার(৩ মার্চ/২০২১) দুপুরে বিক্ষোভ মিছিল ও বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা রিলেসন’এর অফিস ঘেরাও করেছে ভুক্তভোগিরা। এর আগে মঙ্গলবার(২ মার্চ) দুপুরে জেলা শহরের চৌরঙ্গি মোড়ে মানববন্ধন করে তারা। 

তারা অভিযোগ করে বলেন, সরকারী বিভিন্ন সেবা মুলক কার্যক্রমের কথা বলে ২০১৮ সালের ৫ অক্টোবর থেকে ২০২০ সালের ১৩ নবেম্বর পর্যন্ত ৫টি গ্রæপের ৫০০ জনের কাছ থেকে এই টাকা গ্রহণ করা হয়। আর এই টাকা আদায়ে জড়িত ছিলেন রিলেশনের মাঠকর্মী রাবেয়া আক্তার, তহুরা, কুলসুম, হেলেন ও সুজন। কিন্তু দুই বছর পার হলেও কোন সুযোগ সুবিধা পায়নি ভুক্তভোগী নারীরা। 

ভুক্তভোগী রাবেয়া আক্তার(২২), কুলসুল আক্তার(২০), সায়মা বেগম(২৫), বাসবী রায়(৩৮) সহ অনেকে অয়োগ করে বলেন, সরকারী সুযোগ সুবিধা দেয়ার জন্য ৪২লাখ টাকা গ্রহণ করি পাঁচটি গ্রæপে আমরা পাঁচজন। উত্তোলনকৃত টাকা নির্বাহী পরিচালক আব্দুল হাকিম সরকার মুকুলের কাছে জমা প্রদান করা হয়। কিন্তু অসহায় মানুষদের সুবিধা দিতে না পারায় তারা টাকা ফেরতের জন্য চাপ দিচ্ছেন এমতাবস্থায় এনজিও’র প্রধান নির্বাহী পরিচালকের কাছে টাকা ফেরত চাইলে তিনি নানাভাবে হুমকী দিচ্ছেন। কোন উপায় না পেলে টাকা ফেরতের দাবিতে গতকাল মঙ্গলবার মানববন্ধন করি।  


এদিকে একই দিন বেলা ১১টায় জেলা শহরের বাবুপাড়াস্থ আর্শীবাদ ভিলা রিলেসন কার্যালয়ে অর্থ আত্বসাধের মিথ্যা অভিযোগের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক আব্দুল হাকিম সরকার মুকুল। এসময় সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, রিলেসনের চেয়ারম্যান এবিএম নূরুল ইসলাম। সংবাদ সম্মেলনে জানান হয়, মঙ্গলবার অর্থ আত্বসাধের মানববন্ধন ছিল একটি ভিত্তিহীন। সেখানে রিলেসনের কর্মী দাবি করে রাবেয়া নামের একজন মেয়ে। সে কখনই রিলেসনের কর্মী ছিলেন না। তিনি আরো জানান, সংস্থাটি ২০০৫ সাল থেকে সফলতার সাথে ক্ষুদ্রঋণ, স্যানিটেশন, জিআইজেড এর সাথে পরিবেশ বান্ধব বন্ধু চুলাসহ বাংলাদেশ ব্যাংকের গৃহায়ন তহবিল ফান্ডের সহায়তায় গৃহ নির্মাণ কর্মসূচি পরিচালনা করেন। এ ছাড়াও কোভিড-১৯ এর সময় আমাদের সংস্থা সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক মাস্ক বিতরন, অসহায় সদস্যদের মাঝে খাবার বিতরন এবং গ্রামে গ্রামে গিয়ে সদস্যদের স্বাস্থ্য বিষয়ক বিভিন্ন পরামর্শ প্রদান করা হয়। রিলেসন একটি স্বচ্ছ প্রতিষ্ঠান যাহা প্রতিবছর বাংলাদেশ ব্যাংক কতৃক নির্ধারিত অডিট ফার্ম দ্ধারা নিরীক্ষিত হয়ে থাকে। একটি কুচক্রি মহল রিলেসনের সুনাম নষ্ট করার জন্য বিভিন্ন প্রকার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। 

এ বিষয়ে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রউপ জানান, এখন পর্যন্ত কোন পক্ষই থানায় অভিযোগ দায়ের করেনি। তাদের অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। # 


পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 4251102567917274716

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

ফেকবুক পেজ

কৃষিকথা

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item