মুজিববর্ষে তিস্তায় ডিজিটার সেচ ব্যবস্থাপনার কার্যক্রম শুরু


ইনজামাম-উল-হক নির্ণয়,নীলফামারী॥
দেশের সর্ববৃহৎ তিস্তা সেচ প্রকল্পকে ডিজিটাল পানি ব্যবস্থাপনায় রূপন্তরের কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। তিস্তার সঙ্গে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের ফেনীস্থ মুহুরী সেচ প্রকল্পকেও ডিজিটাল পানি ব্যবস্থাপনায় যুক্ত করা হয়েছে। শুক্রবার(৫ ফেব্রুয়ারী/২০২১) নীলফামারীর ডালিয়াস্থ পানি উন্নয়ন বোর্ডের অবসর সভাকক্ষে দিন ব্যাপী অবহিতকরণ কর্মশালার মাধ্যমে এই কার্যক্রমের উদ্ধোধন করেন পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ের যুগ্ন সচিব (প্রশাসন)ও চিফ ইনভেশন অফিসার মোঃ আজাদুর রহমান মল্লিক। 

দিনব্যাপী কর্মশালায় তিস্তা সেচ প্রকল্পের ৫০ জন এসওয়ানটি ও এসসিক্স-টি, পানি ব্যবস্থাপনা এ্যাসোসিয়েশন (ডাব্লু এমএ) এর প্রকল্পের সুবিধাভোগী কৃষক ও কৃষক প্রতিনিধি বৃন্দনের মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে সেচ ব্যবস্থার ডিজিটাল পদ্ধতি অবহিত করা হয়।

কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন নীলফামারীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) আজাহারুল ইসলাম, পানি উন্নয়ন বোর্ডের প্রধান পানি ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা মাহফুজ আহমদ, পানি উন্নয়ন বোর্ডের সিস্টেম এনালিষ্ট, কেন্দ্রীয় আইসিটি পরিদপ্তরের ইনোভেশন অফিসার আরিফ ইকরামুল আজিম, বোর্ডের মুখ্য সম্প্রসারন কর্মকর্তা আব্দুল হাকিম সহ পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়, পানি উন্নয়ন বোর্ড, নদী গবেষনা ইনষ্টিটিউট,হাওড় ও জলাভুমি উন্নয়ন অধিদপ্তর, যৌথ নদী কমিশন, বাংলাদেশ পানি সম্পদ পরিকল্পনা সংস্থা, এটুআই ও নীলফামারী জেলা প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ। 

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের রংপুর পওর সার্কেল(২) এর তত্তাবোধায়ক প্রকৌশলী মাহবুবর রহমান।

কর্মশালার প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রূপকল্প ২০২১ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ই-গভর্ন্যান্স তথা সরকারের সকল পর্যায়ে জনগণের সম্পৃক্ততা ই -সার্ভিস চালুকরণের জন্য ডাব্লুএমও রেজিস্ট্রেশন এন্ড ইরিগেশন সিস্টেম নামে পানি ব্যবস্থা সংগঠন নিবন্ধন ও সেচ ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি বিষয়ে একটি ওয়েব ভিত্তিক সফটওয়্যার এপ্লিকেশন তৈরী করা হয়েছে। যা  মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়ন শুরু করা হলো। পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সার্বিক তত্ত্বাবধানে এটুআই এর সহযোগীতায় বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড-এর পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নে  ডেভলোপমেন্ট এন্ড পাইলটিং অফ ডাব্লুএমও রেজিস্ট্রেশন এন্ড ইরিগেশন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম শীর্ষক প্রকল্পের এই সফওয়্যার কাজ করবে। বর্তমানে প্রকল্পের কার্যসূচী অনুযায়ী তিস্তা সেচ প্রকল্পের আওতাভুক্ত নীলফামারী জেলার ডালিয়ায় এবং ফেনীর মুহুরী সেচ প্রকল্পকে একসঙ্গে রাখা হয়েছে। 

সেমিনারে প্রধান অতিথি আরো বলেন, বর্তমান সরকার কৃষি ও কৃষক- বান্ধব সরকার। মুজিব শতবর্ষে ১০০টি ডিজিটাল সেবা কার্যক্রম গ্রহনের অংশ হিসাবে নব-উদ্ভাবিত এই সেবাটি অত্যান্ত কৃষক বান্ধব। এই কার্যকরি সফটওয়্যার ব্যবহারের মাধ্যমে ৩ লাখ কৃষক ঘরে বসে সেচ ব্যবস্থাপনা, পদ্ধতি,সংগঠন ও প্রয়োজন মতো সময়ে সেচ সেবা ও সুবিধা গ্রহন করতে পারবেন। এতে জাতীয় পানি নীতি ও অংশগ্রহণমূলক পানি ব্যবস্থাপনা নির্দেশিকা মোতাবেক অংশগ্রহণমূলক ব্যবস্থাপনার নীতি বাস্তবায়ন কৃষকদের সহজতর হবে। যা নিবিড় মনিটরিং ও দ্রুত সময়ে সেবা প্রদান নিশ্চিতকরনের লক্ষ্যে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড (বাপাউবো)-এর একটি উদ্ভাবনী উদ্যোগ এই পানি ব্যবস্থাপনা সংগঠন নিবন্ধন ও সেচ ব্যবস্থাপনা পদ্ধতি। তিনি আরো বলেন, এই সিস্টেমের মাধ্যমে পানি ব্যবস্থাপনা সংগঠন নিবন্ধনের কার্যকলাপ দ্রুততম সময়ে স¤পন্ন হতে পারবে। কৃষক শুমারী, এডহক কমিটি গঠন, সাধারন সদস্য পদের জন্য আবেদন, সাধারন কমিটি গঠন, নির্বাচন কমিটি গঠন, নির্বাচন সংক্রান্ত যাবতীয় কার্যকলাপ যেমন নির্বাচন তফসিল ঘোষনা, আবেদন, প্রতীক বরাদ্দ, ফলাফল ঘোষনা, পানি ব্যবস্থাপনা সংগঠন নিবন্ধন এই সকল কার্যকলাপ অনলাইনে দ্রুততম সময়ে স¤পন্ন হতে পারবে। এছাড়া সেচ ব্যবস্থাপনায় খাল বা পা¤প ভিত্তিক পানির লক্ষ্যমাত্রা, চাহিদা ও সরবরাহের রিপোর্ট পাওয়া যাবে। খালভিত্তিক সেচ সিডিউল প্রদানের ব্যবস্থা থাকবে। এছাড়া সকল তথ্য সংরক্ষিত থাকায় কাজের মূল্যায়ন করার সুযোগ সৃষ্টি হবে। #


পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 3104167063006607250

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

ফেকবুক পেজ

কৃষিকথা

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item