শীতের রাতে নীলফামারীর পল্লীতে বিধ্বংসী আগুন, পুড়ে ছাই হলো ৬৫ বসতঘর

 


ইনজামাম-উল-হক নির্ণয়,নীলফামারী॥
শীতের রাতে নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার শিমুলবাড়ি ইউনিয়নের উত্তর বেরুবন্দ দীঘলটারী গ্রামে  বুধবার রাতে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় ১৯ পরিবারের ৬৫টি ঘর পুড়ে ছাই হয়েছে। এ সময় ৯টি ছাগল, একটি গরু, দেড়শতাধিক হাঁস-মুরগি ও কবুতর অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যায়।

আজ বৃহ¯পতিবার দুপুরে শিমুলবাড়ি ইউনিয়ন পষিদের চেয়ারম্যান মো. হামিদুল হক ওই অগ্নিকান্ডের ঘটনা নিশ্চিত করে জানান,  গ্রামের নারায়ণ চন্দ্র রায়ের বাড়ির রান্নাঘরের চুলা থেকে আগুনের সূত্রপাত। ওই আগুনে পাশের বাড়ির গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ ঘটে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। খবর পেয়ে নীলফামারী ও জলঢাকা ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৭০ লাখ টাকা। তিনি বলেন, বৃহ¯পতিবার পরিবারগুলোকে ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে এক বান্ডিল করে ঢেউটিন ও খাবার সরবরাহ করা হয়েছে।

জেলা পরিষদের সদস্য মো. আলী হোসেন বলেন, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন বৃহ¯পতিবার দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্ত প্রত্যেক পরিবারকে ১০ কেজি করে চাল, ১ কেজি ডাল, ১ কেজি লবণ, এক লিটার করে ভোজ্য তেল প্রদান করেন।

নীলফামারী ফায়ার সার্ভিসের জ্যেষ্ঠ স্টেশন কর্মকর্তা মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, রান্নাঘরের চুলা থেকে আগুনের সূত্রপাত। আড়াই ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। 

জলঢাকা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুব হাসান বলেন, রাতেই ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করে পরিবারগুলোকে বিভিন্নস্থানে রাত্রিযাপনের ব্যবস্থাসহ কম্বল ও শুকনা খাবার সরবরাহ করা হয়। বৃহ¯পতিবার তিরপল দিয়ে তাঁবু বানিয়ে দেওয়া হচ্ছে। সেই সঙ্গে তাদের খাবার সরবরাহের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্তদের তালিকা করে সরকারি অনুদান প্রদানসহ ঘর নির্মাণের ব্যবস্থা করা হবে।#


পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 2821456634359628084

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

ফেকবুক পেজ

কৃষিকথা

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item