আইন হবে মানবিক ও জনবান্ধব-নীলফামারীতে দিন ব্যাপী কর্মশালা


ইনজামাম-উল-হক নির্ণয়,নীলফামারী॥
অ্যাওয়ানেস বিল্ডিং ওয়ার্কসপ অন কন্সটিটিউশনাল অ্যান্ড লিগ্যাল রাইটস শীর্ষক কর্মশালার অতিথি অংশিজনরা বলেছেন, আইনের অসঙ্গতিগুলো চিহ্নিত করে তা জনবান্ধব করতে হবে। আইন হবে মানবিক। আইন যাতে মানুষের যন্ত্রণা ও শোষণের হাতিয়ার না হয়। অংশিজনদের মতে, আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির ওপর নির্ভর করে সামগ্রিক উন্নয়ন। রাষ্ট্রের ক্ষমতা ও দায়িত্ব আইন, বিচার ও নির্বাহী বিভাগের ওপর ন্যস্ত আছে। এই তিন বিভাগের মধ্যে সমন্বয় ও পর¯পর বোঝাপড়ার মধ্য দিয়ে রাষ্ট্র প্রকৃত উন্নয়নের লক্ষ্য অর্জন করতে পারে। মানুষের জীবন-জীবিকার পরেই আইনি অধিকার বর্তায়। আইনের যথাযথ প্রণয়ন ও প্রয়োগের মধ্যে নাগরিকদের বেঁচে থাকার পথ সহজ ও সুগম হয়। রাষ্ট্রের কী দায়িত্ব নাগরিকদের প্রতি এবং নাগরিকদের কী দায়িত্ব রাষ্ট্রের প্রতি সে ব্যাপারে সচেতনতা দরকার।

“গবেষণার মাধমে আইন সংস্কার করবো, বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়বো” এই প্রতিপাদ্য নিয়ে আজ শনিবার(১৯ ডিসেম্বর/২০২০) লেজিসলেটেভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের আয়োজনে নীলফামারী জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে দিনব্যাপি কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন অর্থনৈতিক স¤পর্ক বিভাগের সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন। তিনি ভার্চুয়াল সংযোগে কর্মশালার উদ্বোধন করেন এবং টেকসই উন্নয়ন লক্ষমাত্রা অর্জনে বাংলাদেশের স্বরূপ ও চ্যালেঞ্জ সমূহ উপস্থাপন করেন। প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে বলেন, বাংলাদেশ আর্থ-সামজিক উন্নয়নে অসম্ভবকে সম্ভব করেছে। এটা সম্ভব হয়েছে বর্তমান রাজনৈতিক নেতৃত্বের দক্ষতা, সক্ষমতা, দূরদৃষ্টিস¤পন্ন পরিকল্পনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণের কারণে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে স্বাধীনতা-উত্তর জাতিকে সাহসী ও আত্মপ্রত্যয়ী করেছে। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাব্রিজ নির্মাণ উন্নয়নের দিগন্ত উন্মোচন করেছে।তিনি বলেন, উন্নত বিশ্বের কাতারে দাঁড়াতে হলে অবশ্যই আমাদের গ্রোথ রেট ১০ শতাংশে নিতে হবে। দেশ সে লক্ষেই এগাচ্ছে। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই সেটা অর্জন সম্ভব হবে। 

আইন ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের সচিব মো. মইনুল কবির ভারর্চুয়ালি সংযোগে কর্মশালায় সভাপতিত্ব করেন। কর্মশালার উদ্বোধনীতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন নীলফামারী জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন, জেলা চীফ জুডিশিয়ার ম্যাজিস্ট্রেট জাহিদুল হক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(প্রশাসন) এবিএম আতিকুর রহমান, জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি আলিম উদ্দিন বসুনিয়া, নারী ও শিশু দমন ট্রাইব্রুনাল-১ আদালতের পিপি এ্যাড. রমেন্ধ বর্ধন বাপী, জেলা বার লাইব্রেরী যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. আঞ্জুমান আরা ইতি, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাহিদ মাহমুদ, জেলা চেম্বার অব কমার্সের জ্যেষ্ঠ সহ সভাপতি ফরহানুল হক, বীরমুক্তিযোদ্ধা কান্তি ভুষন কুন্ডু, জেলা ইউপি চেয়ারম্যান ফরামের সাধারণ সম্পাদক ও ইটাখোলা ইউপি চেয়ারম্যান হাফিজুর রশিদ মঞ্জু।

কর্মশালায় উপ প্রকল্প পরিচালক (যুগ্ম সচিব) মো. ওয়াদুদ হোসেন স্বাগত বক্তব্য দেন। এছাড়া আলোচনায় অংশ নেন বিভিন্ন সরকারী দপ্তরের কর্মকর্তা, সমাজ সেবক, সাংবাদিক প্রমুখ। 

আইনি গবেষণার মাধ্যমে তারতম্যমূলক আইন ও নীতি চিহ্নিতকরণ পূর্বক উহা সংস্কার প্রকল্পের পরিচালক যুগ্ম সচিব) ড. মোহাম্মদ মহিউদ্দিন কর্মশালায় প্রকল্প কার্যক্রম এবং সাংবিধানিক ও আইনি অধিকার স¤পর্কিত বিষয় উপস্থাপন করেন।কর্মশালার কারিগরি অধিবেশনে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষায় আইন স¤পর্কিত বিষয়; ক্ষুদ্র-নৃগোষ্ঠির নারীদের স¤পদে অধিকার, হিজড়াদের সামাজিক সুরক্ষা, গণমাধ্যমকর্মিদের পেশাগত সুরক্ষাসহ অন্যান্য বিষয়ে আইনের নির্দিষ্ট ও ¯পষ্টীকরণের সুপারেশ করা হয়। # 


পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 7692354736061667959

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

ফেকবুক পেজ

কৃষিকথা

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item