ডিমলায় শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত


জাহাঙ্গীর রেজা, ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ
সারা দেশের সাথে ১৪ ডিসেম্বর সোমবার সকালে নীলফামারীর ডিমলায় শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্য দিয়ে শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবস পালিত হয়েছে। উপজেলা প্রশাসন ও আওয়ামী লীগ পরিবারের উদ্যোগে সকাল ৯ টায় উপজেলার বালাপাড়া ইউনিয়নে নির্মিত শহীদ স্মৃতিস্তম্ভতে জাতীয় সংগীতে সাথে জাতীয় ও কালো পতাকা উত্তোলন পরে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে আলোচনা সভায় মিলিত হয়।



এ সময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন নীলফামারী-১ (ডোমার-ডিমলা) আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আফতাব উদ্দিন সরকার। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা তবিবুল ইসলাম। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জয়শ্রী রানী রায়, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুল হক সরকার মিন্টু, সিনিয়র ওয়ারেন্ট অফিসার (অবঃ) বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ আশরাফ আলী, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোগবুল হোসেন, ডিমলা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সিরাজুল ইসলাম, বালাপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান জহুরুল ইসলাম ভূঁইয়া, উপজেলা তাতী লীগের সভাপতি জাহানারা বেগম, পশ্চিম ছাতনাই ইউনিয়নের কৃষক লীগের সভাপতি মাহবুবুল আলম (দুলাল),বালাপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক সুইট মাহমুদ, উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক আবু সায়েম সরকার প্রমুখ।


শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে আলোচনায় সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব আফতাব উদ্দিন সরকার বলেন, আজ শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস ১৯৭১ সালের নয় মাস রক্তগঙ্গা পেরিয়ে গোটা জাতি যখন উদয়ের পথে দাঁড়িয়ে, পূর্ব দিগন্তে টগবগিয়ে বিজয়ের লাল সূর্য উদিত হচ্ছে, দেশ তখন স্বাধীনতার দ্বারপ্রান্তে ঠিক তখনই বাঙ্গলীর কৃতী সন্তানদের নৃশংসভাবে হত্যা করে পরাজয়ের গ্লানিমাখা পাক হানাদার আর তাদের এদিশীয় দোসর রাজাকার, আলবদর, আলশামস ও শান্তি কমিটির সদস্যরা। বুদ্ধিজীবীদের হত্যার ঠিক দুই দিন পর ১৬ ডিসেম্বর জেনারেল নিয়াজির নেতৃত্বাধীন বর্বর পাকিস্থানী বাহিনী আত্মসমর্পণ করে এবং বিজয়ের মধ্য দিয়ে স্বাধীন দেশ হিসেবে বাংলাদেশের অভ্যুদয় ঘটে। শেষে দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনা করে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বাঙ্গালী জাতির পিতা ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের সাধীনতার ঘোষনা দানকারী, বাংলাদেশের সাধীনতা যুদ্ধের স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে সকল বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে দোয়া ও মুনাজাত করা হয়।


উল্লেখ্যঃ উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরে বঙ্গবন্ধু’র ম্যুরালে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে উপজেলার ৭টি স্থানে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের গণকবর জিয়ারত সহ বিশেষ মুনাজাত করা হয়, সেই সাথে শহীদ বুদ্ধিজীবী পরিবারদের মাঝে শীতবস্ত্র হিসেবে কম্বল, শুকনা খাবার ও নগদ অর্থ বিতরণ করা হয়।

পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 75036165614637638

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

ফেকবুক পেজ

কৃষিকথা

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item