করোনাভাইরাস সংক্রমণে মারা গেলেন আরো ৩৯ জন, শনাক্ত ২,৯০৭

অনলাইন ডেস্ক  

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণে আরো ৩৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন শনাক্ত হয়েছেন দুই হাজার ৯০৭ জন। এ নিয়ে দেশে করোনায় এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে তিন হাজার ৪৩৮ জন। আর সব মিলিয়ে শনাক্ত হয়েছেন দুই লাখ ৬০ হাজার ৫০৭ জন।


আজ সোমবার (১০ আগস্ট) করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সরকারি বুলেটিনে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। বুলেটিন প্রকাশে অংশ নেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।


ডা. নাসিমা বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা সংক্রমণে দেশে আরো ৩৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এঁরা ৩৫ জন পুরুষ এবং চারজন নারী। এঁদের বয়স ০ (শূন্য) থেকে ১০ বছরের মধ্যে একজন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে একজন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে একজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে তিনজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১০ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ১৩ জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ছয়জন এবং ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে চারজন। এ নিয়ে দেশে করোনায় এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে তিন হাজার ৪৩৮ জনের।


এ পর্যন্ত যাঁরা মৃত্যুবরণ করেছেন তাঁদের মধ্যে পুরুষ দুই হাজার ৭২১ জন এবং নারী ৭১৭ জন। আর বয়স বিবেচনায় এ পর্যন্ত যাঁরা মৃত্যুবরণ করেছেন তাঁরা এঁদের বয়স ০ (শূন্য) থেকে ১০ বছরের মধ্যে ১৯ জন, ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে ৩৩ জন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে ৯০ জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ২১৯ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে ৪৭৪ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৯৮১ জন এবং ষাটোর্ধ এক হাজার ৬২২ জন।


জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় যে ৩৯ জনের মৃত্যু হয়েছে তাঁরা ঢাকা বিভাগের ১২ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের সাতজন, খুলনা বিভাগের ছয়জন, রাজশাহী বিভাগের আটজন, ময়মনসিংহ বিভাগের তিনজন, রংপুর বিভাগের একজন এবং বরিশাল বিভাগের দুইজন। হাসপাতালে মারা গেছেন ৩১ জন এবং বাসায় আটজন।


বিভাগ অনুযায়ী এ পর্যন্ত যাঁরা মৃত্যুবরণ করেছেন তাঁরা ঢাকা বিভাগের এক হাজার ৬৩৯ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ৮১১ জন, রাজশাহী বিভাগের ২২১ জন, খুলনা বিভাগের ২৬৫ জন, বরিশাল বিভাগের ১৩৪ জন, সিলেট বিভাগের ১৫৮ জন, রংপুর বিভাগের ১৩৫ জন এবং ময়মনসিংহ বিভাগের ৭৫ জন।


এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন দুই হাজার ৬৭ জন। এ নিয়ে দেশের করোনা সংক্রমণ থেকে এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন এক লাখ ৫০ হাজার ৪৩৭ জন।


ডা. নাসিমা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ১২ হাজার ৮৫৫টি। একই সময় পূর্বের নমুনাসহ পরীক্ষা হয়েছে ১২ হাজার ৮৪৯টি। এর মধ্যে করোনা রোগী হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে দুই হাজার ৯০৭ জনকে। এ নিয়ে দেশে এ পর্যন্ত করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন দুই লাখ ৬০ হাজার ৫০৭ জন। আর এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১২ লাখ ৭৩ হাজার ১৬৮টি। 


আইসোলেশন প্রসঙ্গে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে আইসোলেশনে নেওয়া হয়েছে আরো ৮১৫ জনকে। একইসময় আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ৭৭৪ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশনে গেছেন ৫৭ হাজার ৪৮২ জন। এ পর্যন্ত আইসোলেশন থেকে ছাড় পেয়েছেন ৩৮ হাজার ৫০১ জন। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ১৮ হাজার ৯৮১ জন।


কোয়ারেন্টিন প্রসঙ্গেও তথ্য দেওয়া হয় বুলেটিনে। বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টিনে গেছেন দুই হাজার ৩৪৬ জন। এ পর্যন্ত কোয়ারেন্টিনে গেছেন মোট চার লাখ ৫৪ হাজার ৭২৪ জন। ২৪ ঘণ্টায় কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড় পেয়েছেন দুই  হাজার ৬০৪ জন। এ পর্যন্ত কোয়ারেন্টিন থেকে ছাড় পেয়েছেন চার লাখ দুই হাজার ২৪২ জন। ছাড়ের পর বর্তমানে হোম এবং প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে আছেন ৫২ হাজার ৪৮২ জন।


বুলেটিনে আরো জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের স্বাস্থ্য বাতায়ন এবং আইইডিসিআর'র হটলাইনে কল এসেছে ৬৩ হাজার ৮৫টি। এ নিয়ে এ পর্যন্ত মোট ফোনকল এসেছে এক কোটি ৮৫ লাখ ৮৭ হাজার ৭২৮টি। এসব কলে সবাইকে স্বাস্থ্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।


টেলিমেডিসিন সেবায় প্রতিদিন ৩৫ জন চিকিৎসক এবং ১০ জন স্বাস্থ্যতথ্য কর্মকর্তা দুই শিফটে মোট ৯০ জন টেলিমেডিসিনে করোনা সংক্রান্ত স্বাস্থ্যসেবা দিয়ে যাচ্ছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় তাঁদের স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণ করেছেন চার হাজার ৩৭৩ জন। এ পর্যন্ত এক লাখ ৮৬ হাজার ৭১৪ জন এই সেবা গ্রহণ করেছেন বলে জানানো হয় বুলেটিনে। 

পুরোনো সংবাদ

প্রধান খবর 2324825501178885779

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item