সৈয়দপুরে বৃদ্ধা মাকে নির্যাতন করে বাড়ি দখলের ঘটনাটি সাজানো দাবি করে সংবাদ সম্মেলন


তোফাজ্জল হোসেন লুতু,সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি:
নীলফামারীর সৈয়দপুরে বৃদ্ধা মা সাফতারা বেগমকে নির্যাতন করে বাড়ি থেকে বের করে দিয়ে বাড়ি জবর দখলে নেয়ার ঘটনাটি সম্প‚র্ণ সাজানো বলে দাবি করা হয়েছে। এ ঘটনাকে নিয়ে পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত খবরের প্রতিবাদে এক সংবাদ সম্মেলনে ওই দাবি করেন বৃদ্ধার চতুর্থ ছেলে মো. খালেদ সিদ্দিকী। আজ (শুক্রবার) বেলা ১১টায় শহরের মুন্সীপাড়ায় ছেলে খালেদ সিদ্দিকীর নিজ বাড়িতে ওই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে মো. খালেদ সিদ্দিকী বলেন, আমার মা সাফতারা বেগমের বর্তমান বয়স পঁচাত্তর বছরেরও বেশি  হবে। এ বয়সে তিনি কিছুটা চলাফেলা করতে পারলেও বয়সের ভারে ন্যুজ। তিনি (মা) সৈয়দপুর শহরের তাদের পৈত্রিক পুরাতন বাড়িতে বসবাস করেন। আর আমি পরিবার পরিজন নিয়ে আমার নির্মাণকৃত নতুন বাড়িতে থাকি। অথচ মাকে দিয়ে সংবাদ সম্মেলন করে আমার বিরুদ্ধে তাকে নির্যাতন করে বাড়ি থেকে বের করে দিয়ে বাড়ি জবর দখলের মিথ্যে অভিযোগ আনা হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে বৃদ্ধা মায়ের সঙ্গে আমার আদৌ এ ধরণের কোন ঘটনা ঘটেনি। কারণ আমার মতো সন্তান হয়ে জন্মদাত্রী মায়ের সঙ্গে এ ধরণের আচরণের প্রশ্নই আসে না। 
সংবাদ সম্মেলনে খালেদ সিদ্দিকী দাবি করেন ম‚লতঃ আমার বড় ভাই রাশেদ সিদ্দিকী বৃদ্ধা মাকে নিয়ে নানা রকম ষড়যন্ত্র করছেন। তিনি বলেন, মায়ের এখন অনেক বয়স। কথাবার্তাও ঠিক নেই, কখন কি যে বলেন ?। আর এই সুযোগে মাকে চাপ প্রয়োগ করে আমার বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করে এ ধরনের মিথ্যে ও সাজানো কথা বলতে বাধ্য করা হয়েছে। সেই সঙ্গে আমার নামে মিথ্যে অপবাদ ও বিভ্রান্তি ছড়িয়ে আমাকে সমাজে হেয় প্রতিপন্ন করাসহ আমার মানসম্মান ক্ষুন্ন করার অপচেষ্টা করা হয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে খালেদ সিদ্দিকী অভিযোগ করেন তাঁর বড় ভাই রাশেদ সিদ্দিকী এর আগেও পৈত্রিক কিছু জায়গা জমি বিক্রি করেছেন। এখন আবার বৃদ্ধা মাকে ম্যানেজ করে পৈত্রিক বাড়িটিও বিক্রি করে একাই টাকা-পয়সা আত্মসাতের পাঁয়তারা করছেন। তাই তিনি বড় ভাই রাশেদ সিদ্দিকী কর্তৃক পৈত্রিক বাড়ি বিক্রিতে বাঁধা দেন। তাছাড়া মায়ের সঙ্গে পৈত্রিক বাড়িতে বসবাসকারী বড় ভাই শাহেদ সিদ্দিকীকে বাড়ি থেকে বের করে দিতে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে। আর এ সব কারণে বড় ভাই রাশেদ সিদ্দিকীর সঙ্গে আমার মত পার্থক্য ও মনোমালিন্য দেখা দেয়। এছাড়া বাবা-মায়ের দেয়া সৈয়দপুর শহরের মুন্সিপাড়ায় একটি বাড়ি, মঈন মার্কেট এবং ২৪ শতক জমি আমিসহ আমার অপর দুই ভাই রাশেদ সিদ্দিকী ও তারিক সিদ্দিকীর নামেই খারিজ হয়েছে। কারণ উল্লিখিত স্থাবর সম্পত্তি বাবা-মা আমাদের তিন ভাইয়ের নামে হেবা দলিল করে দিয়েছেন। তাই এককভাবে খারিজের কোন সুযোগ নেই। তিন ভাইয়ের নামে নামজারির কাগজপত্রও রয়েছে। 
সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে সৈয়দপুর পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়াার্ড কাউন্সিলর শেখ মোহন, স্থানীয় বাসিন্দা ব্যবসায়ী মো. আতিকুল ইসলাম, আজহারুল ইসলাম মিস্টার, কাজী মো. নজরুল ইসলাম রয়েল, মো. মোজাহার আলী, মো. ইলিয়াস আলী, মো. ইদ্রিস আলী, মো. দেলোয়ার খান, মো. মোস্তাক আহমেদ, মো. বাদল প্রম‚খ উপস্থিত ছিলেন।

পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 1897286809541905376

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item