নীলফামারীতে ঝড়ে গাছ চাপাপড়ে নিহত ১ শতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে দুটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান


নীলফামারী প্রতিনিধি নীলফামারীর ডোমার, জলঢাকা ও কিশোরগঞ্জ উপজেলায় বিচ্ছিন্নভাবে ঝড়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সহশতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। গতকাল রবিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকের ওই ঝড়ে ভেঙে ও উপড়ে পড়েছে অসংখ্য গাছপালা। 
এসময় ডোমার উপজেলার জোড়াবাড়ি ইউনিয়নের মিরজাগঞ্জ বাজারে শতবর্ষী একটি গাছের চাপায় নিহত হয়েছেন মোসলেম উদ্দিন (৭০) নামের এক ব্যবসায়ী। ওই ঘটনায় আহত পাঁচ জনকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা প্রদান করা হয়েছে।
জেলার ডোমার উপজেলার জোড়াবাড়ি ইউপি সদস্য মফিজুল ইসলাম জানান, গত রবিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে তিরিশ সেকেন্ডের ঝড়ে মিরজাগঞ্জ ও জোড়াবাড়ি গ্রামে কাচা ঘরবাড়িসহ গাছপালার ব্যাপক ক্ষতি হয়। এসময় মিরজাগঞ্জ বাজারে শতবর্ষী একটি বটগাছ উপড়ে পড়লে ওই গাছের চাপায় ব্যবসায়ী মোসলেম উদ্দিন ঘটনাস্থলে নিহত হন। এলাকাবাসী আহত পাঁচ জনকে উদ্ধার করে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা প্রদান করেন। নিহত মোসলেম উদ্দিন জোড়াবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাচানের ছোট ভাই।
জোড়াবাড়ি ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হাচান তার ছোটভাই নিহত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন,“ঝড়ে ইউনিয়নের মিরজাগঞ্জ ও জোড়াবাড়ি গ্রামের অর্ধ শতাধিক কাচা ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। ভেঙে ও উপড়ে পড়েছে অসংখ্য গাছপালা। ঝড়ে উড়ে গেছে জোড়াবাড়ি সিদ্দিকিয়া দ্বি-মুখি দাখিল মাদ্রাসা ও মিরজাগঞ্জ কলেজের আধাপাকা ঘরের টিনের চালা।
আজ সোমবার দুপুরে সরেজমিনে ওই দুই গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে ব্যাপক গাছপালা ভেঙে ও উপড়ে পড়তে। বিভিন্ন স্থানে ভেঙে পড়েছে কাচা ঘরবাড়ি। মিরজাগঞ্জ বাজারে শতবর্ষী একটি বটগাছ উপড়ে পড়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ওই বাজারের ১০টি দোকান। বট গাছটি পড়ে থাকতে দেখা গেছে মিরজাগঞ্জ-চিলাহাটি রেল লাইনের উপরে। করোনা পরিস্থিতিতে ওই পথে রেল চলাচল বন্ধ থাকায় চলাচল রয়েছে খুলনাগামি একটি পণ্যবাহী ট্রেন। দ্রæত গাছটি অপসারণ করা না হলে ওই পণ্যবাহি ট্রেনটি চলা চলে বিঘœ ঘটবে বলে জানান এলাকাবাসী। মিরজাগঞ্জ কলেজ ও জোড়াবাড়ি সিদ্দিকিয়া দ্বি-মুখি দাখিল মাদ্রাসার আধাপাকা ঘরের উড়ে গেছে টিনের ছাউনি। বিভিন্ন স্থানে বিদ্যুতের তারে গাছপালা ভেঙে পড়ায় বন্ধ রয়েছে বিদ্যুৎ সঞ্চালন। এসময় মাদ্রাসাটির সভাপতি ময়নুল হক জানান, মাত্র আধা মিনিটের ঝড়ে লÐভÐ করে দেয় ওই দুই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ ওই দুই গ্রামের অর্ধ শতাধিক ঘরবাড়ি।
এদিকে একই সময়ে জেলার জলঢাকা উপজেলার ধর্মপাল, শৌলমারী, কৈমারী, ডাউয়াবাড়ি, গোলমুÐা এবং কিশোরগঞ্জ উপজেলার বাহাগিলি, পুটিমারী, গাড়াগ্রাম ও কিশোরগঞ্জ সদর ইউনিয়নের ওপর দিয়ে বিক্ষিপ্তভাবে ঝড় বয়ে যায়। এসব স্থানে অর্ধ শতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্তসহ অসংখ্য গাছপাপালা ভেঙে ও উপড়ে পড়ার খবর পাওয়া গেছে।
জেলা প্রশাসক মো. হাফিজুর রহমান চৌধুরী বলেন,“ওই ঝড়ে গাছ চাপা পড়ে জোড়াবাড়ি ইইপি চেয়ারম্যানের ছোটভাই মোসলেম উদ্দিন নিহত হওয়ার খবর পেয়েছি। আজ সোমবার দুপুরে তার দাফন সম্পন্ন হয়েছে। ক্ষয়ক্ষতি নিরুপনে প্রশাসনের কর্মকর্তারা মাঠে কাজ করছেন। তালিকা পাওয়ার পর ক্ষতিগ্রস্তদের সহযোগিতা করা হবে”।#

পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 8564503776751572977

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

ফেকবুক পেজ

কৃষিকথা

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item