উত্তরের কৃষি শ্রমিকরা কাজের সন্ধানে দক্ষিনে ছুটছেন


এম এ আলম বাবলু.পার্বতীপুর(দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ
প্রতি বারের মতো এবারেও ইরি-বোরোর এই ভরা মৌসুমে উত্তরের কৃষি শ্রমিকেরা কাজের সন্ধানে দক্ষিনে ছুটছেন৷ তবে ছুটার ধরন একটু ভিন্ন৷ যাত্রা পথ জটিল হয়েছে৷ পথে বাধা গ্রস্হ হতে হচ্ছে তাদের৷ সবার হাতে বাঁশের বাংকুয়া, মাথাইল, কাস্তে আর পিঠে ব্যাগ। উত্তরের পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁও, দিনাজপুর, নীলফামারী ও রংপুর থেকে আসা দিনমজুররা এক সময় দেশের দক্ষিণাঞ্চলে কাজের সন্ধানে যাওয়ার পথে পার্বতীপুর রেল স্টেশনে ভিড় করতো। বৈশ্বিক মহামারী করোনার কারনে গত ২৬ মার্চ থেকে সারাদেশে ট্রেন চলাচল বন্ধ।
তাই সড়ক পথে পিক-আপ, কার, মাইক্রোবাস, ট্রাক্টর যোগে ধান কাটতে ছুটছেন দক্ষিনের পাঁচবিবি, জয়পুরহাট, আক্কেলপুর, তিলকপুর, সান্তাহার, আদমদীঘি, আত্রাই, নওগাঁ, নাটোর খুলনা, যশোরসহ বিভিন্ন জেলায়। কিন্তু দেশের অর্থনীতি ও কৃষি ক্ষেত্রে অবদান রাখা ওই সব মজুররা এখন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সড়ক পথে ছুটছেন দক্ষিণে।
দিনাজপুরের খানসামা উপজেলার  স্কুল ছাত্র  হোসেন আলী (১৬) এবারে এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছে। এখনো রেজাল্ট বের হয়নি। সে এলাকার মজুর দলের সাথে যাচ্ছে নওগাঁর আত্রাই। নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলার প্রান্তিক কৃষক জামাল উদ্দিন (৫০) ১৫ জনের দল নিয়ে ধান কাটতে যাচ্ছেন আদম দীঘির উদ্দেশ্যে। ক্ষেতে ধান পাকলেই গৃহকর্তা তাদের ফোন দেন। ওই এলাকায় মজুরী বেশি পাওয়া যায়।
শুধু এরাই নয় উত্তরাঞ্চলের হাজার হাজার কৃষি শ্রমিক অন্যান্য বছরের ন্যায় এবারও ধান কাটতে ছুটছেন দক্ষিণের বিভিন্ন জেলায়।
মঙ্গলবার দুপুরে  কথা হয়, নীলফামারী জেলার চিলাহাটিএলাকার কৃষি শ্রমিক আঃ সালামের সাথে। তিনি বলেন, বাবা-মা ও সন্তানের মুখের দিকে চেয়ে অর্থের আশায় রোজগার করতে যাচ্ছি। আমার বাবা-মা বৃদ্ধ মানুষ। সেই সাথে আমার সন্তানের লেখাপড়া খরচ, কাজ না করলে সংসার চলবে কিভাবে। এখনও এলাকায় ধান কাটা শুরু হয়নি। তাই দু-পয়সা কামাইয়ের উদ্যোশ্যে অন্যান্যদের সাথে আমিও ভাড়া করা মাইক্রোয় কাজের সন্ধানে যাচ্ছি।
পার্বতীপুর রেল স্টেশন মাষ্টার জিয়াউল আহসান বলেছেন, উত্তর অঞ্চলের কৃষি শ্রমিকদের যাতায়াতের সহজ মাধ্যম ছিল রেলপথ। এক সময় এ অঞ্চলের কৃষি শ্রমিকরা ২৪ ডাউন খুলনাগামী মেইল ট্রেন, ৩২ ডাউন উত্তরা এক্সপ্রেস, আন্তঃনগর সীমান্ত, বরেন্দ্র ও রুপসা এক্সপ্রেস ট্র্র্র্রেনে বিভিন্ন গন্তব্যে যাতায়াত করতেন। করোনার কারনে রেল যোগাযোগ বন্ধ থাকায় সড়ক পথই এখন তাদের ভরসা।
পার্বতীপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোখলেছুর রহমান বলেছেন, উত্তরের বিভিন্ন জেলা থেকে প্রতিদিন শতশত কৃষি শ্রমিক সড়কপথে পার্বতীপুর হয়ে কাজের সন্ধানে দক্ষিনের বিভিন্ন জায়গায় পাড়ি জমান। পার্বতীপুর শহরে তিনটি পয়েন্টে শ্রমিক বহন কারী যানবাহন থামিয়ে তারা প্রকৃত কৃষি শ্রমিক কিনা, কাজের সন্ধানে কোথায় যাচ্ছেন? তা প্রতিনিয়ত তদারকি করা হচ্ছে।

পুরোনো সংবাদ

নির্বাচিত 1045729090714415945

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item