সৈয়দপুর পৌরসভা এলাকায় বিশেষ ওএমএস চাল এর বরাদ্দ অপ্রতুল


তোফাজ্জল হোসেন লুতু,সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি:
নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভা এলাকায় সরকারের খোলাবাজারের (বিশেষ ওএমএস) ১০ টাকা কেজি দরের চালের অপ্রতুল বরাদ্দের কারণে অনেক কর্মহীন ঘরবন্দি অসহায় মানুষ তা কিনতে পাচ্ছেন না। দীর্ঘ সময় লাইনে দাঁড়িয়েও অনেকেই চাল সংগ্রহ করতে না পেরে নিরাশ হয়ে বাড়ি ফিরে যাচ্ছেন। এ নিয়ে করোনা ভাইরাসের কারণে কর্মহীন ঘরবন্দি অসহায় মানুষের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করছেন।
 জানা গেছে, করোনা ভাইরাসের প্রভাবে কর্মহীন হয়ে পড়া অসহায় মানুষের জন্য নীলফামারীর সৈয়দপুর পৌরসভা এলাকায় ১০ টাকা কেজি দরে খোলাবাজারে (বিশেষ ওএমএস) চাল বিক্রি গত মঙ্গলবার থেকে শুরু হয়েছে। সৈয়দপুর  উপজেলা খাদ্য বিভাগের ছয়জন ডিলার সপ্তাহের রবি, মঙ্গল ও বৃহস্পতিবার পর্যায়ক্রমে পৌরসভা এলাকায় ওই চাল বিক্রি করছেন। সরকারি নির্দেশনা অনুয়ারী  প্রতিজন কর্মহীন অসহায় দুস্থ মানুষ ১০ টাকা কেজি দরে সর্বোচ্চ ৫ কেজি করে চাল কিনতে পারবেন। সে হিসেবে প্রতিদিন ওএমএস এর দুই ডিলার প্রত্যেকে দুই শত জন করে সর্বমোর্ট ৪ শ’ মানুষের কাছে চাল বিক্রি করতে পারছেন। কিন্তু শ্রমিক অধ্যূষিত শহর সৈয়দপুর পৌরসভা এলাকায় কয়েক শত শত শ্রমজীবী মানুষ রয়েছেন। 
 সিডিউল অনুযায়ী গত বৃহস্পতিবার (৯ এপ্রিল) সৈয়দপুর শহরের রেলওয়ে মাঠে খাদ্য বিভাগের তালিকাভূক্ত ডিলার মো.  মুস্তাফিজ আলী ও ফরিদা পারভীন প্রত্যেকে ১ হাজার (এক মে. টন) কেজি করে চাল বিক্রি করেন। কিন্তু বরাদ্দ অপ্রতুল হওয়ার  অনেক মানুষ সরকারের ১০ টাকা কেজি দরের ওএমএস এর চাল সংগ্রহে ব্যর্থ হয়ে ফিরে যান।
গত বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সৈয়দপুর রেলওয়ে মাঠে দুই জন ডিলার পাশাপাশি বসে চাল বিক্রি করছেন। সকাল ১০ টা থেকে এ চাল বিক্রি কথা থাকলে অভাবী লোকজন ভোর থেকে এসে লাইনে দাঁড়িয়ে পড়েন। তখন বেলা সাড়ে ১১ টা। অথচ ডিলারদের বরাদ্দকৃত চাল বিক্রি প্রায় শেষ পর্যায়ে। আর তখন লাইনে প্রায় অর্ধশতাধিক নারী পুরুষ দাঁড়িয়ে ছিলেন।
 এ সময় কথা হয় চাল কিনতে আসা সৈয়দপুর পৌরসভার নিয়ামতপুর টার্মিনাল এলাকার মো. সেলিমের সঙ্গে। তিনি জানান,  তাঁর বাড়ি সৈয়দপুর পৌরসভা ৬ নম্বর ওয়ার্ডে। তিনি ১০ টাকা কেজির চাল নিতে এসে দীর্ঘ সময় লাইনে দাঁড়িয়েছেন। কিন্তু  ডিলারের অনুকূলে বরাদ্দকৃত চাল শেষ হয়ে যাওয়ায় সংগ্রহ করতে পারেননি তিনি।  
একই দিন চাল কিনতে এসেছিলেন সৈয়দপুর পৌরসভার উত্তরা আবাসন প্রকল্পের বাসিন্দা  বৃদ্ধা মোছা. মালেকা বেগম। পৌরসভার এক নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা ওই বৃদ্ধা জানান, সকাল ৭ টায় এসে লাইনে দাঁড়িয়েছেন। দীর্ঘ সময় লাইনের দাঁড়িয়ে থাকার পর চাল মিলে সাড়ে ১১ টার দিকে। করোনা ভাইরাসের কারণে শহরের রিকশা ও রিকশাভ্যান বন্ধ। এ অবস্থায় তাকে ৫কেজি চাল নিয়ে পায়ে হেঁটে আবাসনে ফিরতে হবে। বৃদ্ধ মালেকা বেগমের মতো অনেকেই দীর্ঘ সময় লাইনে দাঁড়িয়ে চাল সংগ্রহ করতে দেখা যায়। অনেকে আবার চাল সংগ্রহে ব্যর্থ হয়ে নিরাশ হয়ে ফিরেন। ওই দিন সৈয়দপুর উপজেলা খাদ্য অফিসের খাদ্য পরিদর্শক  মো. নুরে রাহাদ রিমন ও মো. আরিফ বিল্লাহ্ ওএসএম চাল বিতরণ তদারকির দায়িত্বে ছিলেন। তারা জানান, সরকারি নিয়মনীতি মেনে ছয় জন ডিলাদের মাধ্যমে প্রতি সপ্তাহের রবিবার, মঙ্গলবার, বৃহস্পতিবার ১০ টাকা কেজির চাল বিক্রি করছেন ডিলাররা। আর সৈয়দপুর থানা পুলিশ ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সৈয়দপুর ইউনাইটেড ভলান্টিয়ার অ্যাসোসিয়েশনের বেশ কয়েকজন সদস্য কর্মহীন মানুষকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে  চাল সংগ্রহে সার্বিক সহযোগিতা দেন।
 সৈয়দপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. নাসিম আহমেদ বলেন, সরকারি সরকারি পরিপত্র অনুযায়ী সপ্তাহে তিন দিন ওএমএসএর ডিলারদের মাঝে চাল  বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে। আপাতত বরাদ্দ বাড়ানোর কোন সুযোগ নেই।          

পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 1516590760260051494

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item