পীরগাছায় জনশুমারি ও গৃহগণনায় লোক নিয়োগে অর্থ বাণিজ্যের অভিযোগ

ফজলুর রহমান, পীরগাছা (রংপুর) প্রতিনিধি
বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন ‘জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২১’ এর লিস্টিং অপারেশন কার্যক্রমে রংপুরের পীরগাছায় তালিকাকারী/গণনাকারী ও সুপারভাইজার পদে নিয়োগের জন্য প্রবেশপত্রের নামে মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গণনাকারী ও সুপারভাইজার পদে তিন হাজার ৬৫৬ জন বেকার যুব ও যুব মহিলা আবেদন করেন। আবেদন যাচাই-বাছাই শেষে ৮০৫টি আবেদন বাতিল করা হয়।
প্রার্থীদের নিকট থেকে কোন টাকা নেওয়ার নিয়ম না থাকলেও প্রবেশপত্র বাবদ জনপ্রতি ১০০ টাকা করে হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় বেকার যুব ও যুব মহিলাদের ক্ষোভের মুখে গতকাল বুধবার দুপুরে উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা নিজ কক্ষে তালা দিয়ে আত্মগোপন করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।
সরেজমিনে জানা গেছে, ‘জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২১’ বাস্তবায়নের জন্য উপজেলা পরিসংখ্যান কার্যালয় থেকে গত ১০ জানুয়ারি একটি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। এতে উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে সুপারভাইজার পদে ৪০ জন ও তালিকাকারী/গণনাকারী হিসেবে ২২০ জন নেওয়ার কথা বলা হয়। বাছাই শেষে নির্বাচিত প্রার্থীগণ প্রশিক্ষণ ভাতা হিসেবে প্রতিদিন ৪০০ টাকা করে পাবেন। এ ছাড়া পারিতোষিক হিসেবে সুপারভাইজারদের ৮৫০০ টাকা ও গণনাকারীদের ৮০০০ টাকা প্রদান করা হবে। বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর উপজেলার বেকার যুব ও যুব মহিলারা আবেদন শুরু করেন।
মোট ২৬০টি পদের বিপরীতে আবেদন পড়ে তিন হাজার ৬৫৬টি। শর্ত পূরণ না করায় ৮০৫টি আবেদন বাতিল করা হয়। আবেদন বেশী হওয়ায় বেকার যুব ও যুব মহিলাদের সঙ্গে প্রতারণার আশ্রয় নেয় সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ। তারা প্রার্থী যাচাই-বাছাই করতে মৌখিক পরীক্ষার পরিবর্তে লিখিত পরীক্ষার সিদ্ধান্ত নেন। পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায়।
ওই পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য প্রবেশপত্র বাবদ দুই হাজার ৮৫১ জন প্রার্থীর নিকট থেকে ১০০টাকা করে মোট দুই লাখ ৮৫ হাজার ১০০টাকা টাকা আদায় করেন। বিষয়টি নিয়ে প্রার্থীদের মাঝে ক্ষোভ দেখা দিলে বুধবার দুপুরে উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা তার কক্ষে তালা দিয়ে অন্যত্র চলে যান। এসময় উপজেলা পরিসংখ্যান অফিসের ডাটা এন্ট্রি অপারেটর আলআমিনকে হল রুমে প্রার্থীদের নিকট থেকে টাকা আদায় করতে দেখা যায়।
প্রার্থীদের অভিযোগ, ‘পরিসংখ্যান অফিসের কতিপয় কর্মচারী টাকার বিনিময়ে আগেই লোক চূড়ান্ত করে রেখেছেন। পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে শুধু লোক দেখানো।’
গণনাকারী হিসেবে আবেদনকারী শামিউল ইসলাম বলেন, ‘পাশের অন্য উপজেলাগুলোতে মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে লোক নেওয়া হয়েছে। প্রার্থীদের কাছ থেকে কোন টাকা আদায় করা হয়নি। অথচ পীরগাছায় লিখিত পরীক্ষার নামে জনপ্রতি ১০০ টাকা করে আদায় করা হচ্ছে। এটা বেকারদের সঙ্গে প্রতারণা ছাড়া আর কিছু নয়।’
সুপারভাইজার পদে আবেদনকারী সাজেদুল ইসলাম বলেন, ‘আদমশুমারির জন্য বেকারদের পকেট কেটে কর্মকর্তাদের পকেট ভারী করার ফন্দি করা হয়েছে। প্রার্থীর সংখ্যা বেশী হওয়ায় টাকা হাতিয়ে নিতেই তারা এ বুদ্ধি করেছে।’
উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা এস এম শাহনেওয়াজ বলেন, ‘নিয়োগ পরীক্ষার জন্য অতিরিক্ত টাকা খরচের কোন সুযোগ নেই। তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সিদ্ধান্তক্রমে জনপ্রতি ১০০ টাকা করে আদায় করা হয়েছে।’
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ‘জনশুমারি ও গৃহগণনা ২০২১’ এর গণনাকারী ও সুপারভাইজার নির্বাচন কমিটির সভাপতি জেসমীন প্রধান বলেন, ‘কমিটির সিদ্ধান্তে টাকা নেওয়া হচ্ছে। ওই টাকা পরীক্ষা সংক্রান্ত কাজে ব্যয় করা হবে।’

পুরোনো সংবাদ

রংপুর 5420269577808654856

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item