ঢাকার দায়িত্ব আওয়ামী লীগের হাতেই

 ডেস্ক

আবারও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন আতিকুল ইসলাম।
আর দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন ফজলে নূর তাপস। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সমর্থনে নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিপুল ভোটে দুই সিটির নগরপিতার দায়িত্ব পেয়েছেন আতিকুল-তাপস।
শনিবার (১ ফেব্রুয়ারি) ইভিএমের (ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন) মাধ্যমে ভোটগ্রহণের পর ফল ঘোষণা করা হয়। এতে দেখা যায়, ডিএনসিসিতে নৌকা প্রতীকে আতিকুল ইসলাম পেয়েছেন ৪ লাখ ৪৭ হাজার ২১১ ভোট, আর তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি সমর্থিত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী তাবিথ আউয়াল পেয়েছেন পেয়েছেন ২ লাখ ৬৪ হাজার ১৬১ ভোট। ডিএসসিসিতে নৌকা প্রতীকে তাপস পেয়েছেন ৪ লাখ ২৪ হাজার ৫৯৫ ভোট, আর তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি সমর্থিত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন পেয়েছেন ২ লাখ ৩৬ হাজার ৫১২ ভোট।

 ইভিএম বিভ্রাট, সাংবাদিক মারধর, কোথাও কোথাও সংঘর্ষ, বিরোধী দলের এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়ার অভিযোগসহ নানা ঘটনার মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে ঢাকার দু’সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। শনিবার সকাল ৮টায় ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি ও ডিএসসিসি) নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হয়। যা টানা বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলে। বিএনপি নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যক্ষান করে আজ ঢাকায় সকাল-সন্ধ্যা হরতাল আহবান করেছে।
ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার পর বিকেল ৫টার দিকে আনুষ্ঠানিকভাবে ডিএসসিসির ফলাফল ঘোষণা শুরু হয় সেগুনবাগিচার শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে। ঘোষণা করেন ডিএসসিসির রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আব্দুল বাতেন। অন্যদিকে ডিএনসিসির ফলাফল ঘোষণা শুরু হয় শেরেবাংলা নগরের কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় মিলনায়তন থেকে। ঘোষণা করেন ডিএনসিসির রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আবুল কাসেম।
দু’সিটিতে ভোটারদের উপস্থিতি কম ছিল। সকালে শীত থাকায় ধারণা করা হয়েছিল দুপুরের দিকে ভোটার উপস্থিতি বাড়বে। কিন্তু দুপুর গড়িয়ে বিকেলেও ভোটার উপস্থিতি কাঙ্খিত মাত্রায় লক্ষ্য করা যায়নি। এ নিয়ে খোদ প্রার্থীরাও বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। ক্ষমতাসীন দলের মেয়রপ্রার্থীদের মুখেও ভোটার উপস্থিতি কম থাকা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ পেয়েছে।
আনিসুল হকের প্রয়াণের পর ডিএনসিসির মেয়র পদে উপ-নির্বাচনে জয় লাভ করে ৯ মাসের মতো দায়িত্ব পালন করেন আতিকুল ইসলাম। এবারের নির্বাচনের আগের প্রচারণায় আতিকুল ওই নয় মাসকে তার অভিজ্ঞতা-অর্জনের সময়কাল বলে উল্লেখ করেন এবং এ অভিজ্ঞতায় ঢাকা সাজাবেন বলে অঙ্গীকার দেন নগরবাসীকে।
তার আগে বিকেলে গ্রিন রোডে নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে ফজলে নূর তাপস বলেন, ‘আমরা উন্নত ঢাকা গড়ার যে রূপরেখা দিয়েছি সেটা ঢাকাবাসী সাদরে গ্রহণ করেছে।’
সকাল ৮টায় দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) নির্বাচনে সিটি কলেজ কেন্দ্রে ভোট দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
নির্বাচন কমিশনের অনুমোদিত যানবাহনের বাইরে যানচলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকায় ভোটের সময় ঢাকার চিত্র পাল্টে যায়। চিরচেনা যানজট কিংবা মানুষের ভিড় ছিল না। রাস্তা ছিল পুরো ফাঁকা।
বেলা ১১টার দিকে উত্তরার আইইএস স্কুল অ্যান্ড কলেজে ভোট দিতে গেলে আঙুলের ছাপ মেলেনি সিইসির। পরে জাতীয় পরিচয়পত্র দেখিয়ে নিজের ভোট দেন তিনি।
দু’সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ৩০ শতাংশের কম ভোট পড়েছে বলে মনে করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা।  শনিবার রাতে নির্বাচন কমিশনারদের সঙ্গে অনানুষ্ঠানিক আলাপ শেষে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।  দু’সিটির ভোট ভালো হয়েছে দাবি করে তিনি বলেন, পার্সেন্টেজের খবর আমি জানি না তবে ৩০ শতাংশ হতে পারে।
এদিকে, ঢাকার দু’সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে আজ রাজধানীতে হরতাল ডেকেছে বিএনপি। শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন।
এর আগে নয়া পল্টনে বিএনপি কার্যালয় এলাকায় আওয়ামী লীগের সঙ্গে দলটির নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ হয়। এরপর হরতালের ডাক দেয় বিএনপি। এর আগে ভোটগ্রহণ শেষ হলে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ঢাকা সিটি ভোটে একটি তামাশার নির্বাচন হয়েছে।
বিএনপির অবস্থান তুলে ধরে তিনি বলেন, সিটি নির্বাচন শুরুই হয়েছে বড় রকমের আচরণবিধি লঙ্ঘনের মধ্য দিয়ে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকালে নিজে ভোট দিয়ে নৌকায় ভোট দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। এটা সরাসরি নিবাচনে হস্তক্ষেপের শামিল। কোনোক্রমেই তার বক্তব্য নির্বাচন আচরণবিধির মধ্যে পড়ে না।
ফখরুল অভিযোগ করেন, ‘অনেক ভোটকেন্দ্রে নানান রকম অনিয়ম হলেও সরকারি বাহিনী কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। কোনো কোনো কেন্দ্রে ইভিএমে ধানের শীষের প্রতীক ছিল না। ফলে অনেক ভোটার ধানের শীষে ভোট দিতে পারেনি। অনেকে ভোটকেন্দ্র থেকে ভোটারদের ভোট না দিতে দিয়ে বের করে দেয়া হয়েছে’।
পরে রাত সোয়া ৮টার দিকে নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আমরা এই নির্বাচনকে সম্পূর্ণভাবে প্রত্যাখ্যান করছি। এর প্রতিবাদে রোববার সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালন করা হবে’।
ধানের শীষের প্রার্থীর পোলিং এজেন্টদের ভোটকেন্দ্র থেকে বের করে দেয়া হচ্ছে বলে বিএনপি যে অভিযোগ করেছে; তাকে মিথ্যাচার বললেন আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক। দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব আলম হানিফ বলেছেন, এবারের নির্বাচন শত বছরের মধ্যে অন্যতম শ্রেষ্ঠ নির্বাচন।
আওয়ামী লীগ ও বিএনপির বাইরে ঢাকার দুই সিটিতে মেয়র পদে আরও ১১ জন প্রার্থী হন। এর মধ্যে ডিএনসিসিতে ছিলেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি-সিপিবি সমর্থিত প্রার্থী আহাম্মদ সাজেদুল হক রুবেল, ইসলামী আন্দোলনের শেখ ফজলে বারী মাসউদ, এনপিপির আনিসুর রহমান দেওয়ান ও পিডিপির শাহীন খান। আর ডিএসসিসিতে ছিলেন জাতীয় পার্টি সমর্থিত হাজী সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আব্দুর রহমান, এনপিপির বাহারানে সুলতান বাহার, গণফ্রন্টের আব্দুস সামাদ সুজন ও বাংলাদেশ কংগ্রেস সমর্থিত আকতারুজ্জামান ওরফে আয়াতুল্লাহ।

পুরোনো সংবাদ

প্রধান খবর 5775838985832476553

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item