নীলফামারীতে শৈত্যপ্রবাহের সাঁড়াশী আক্রমন॥ আগুনে শিশু দ্বগ্ধ

ইনজামাম-উল-হক নির্ণয়,নীলফামারী প্রতিনিধি ॥ উত্তুরী হাওয়া আরও সচল হয়েছে নীলফামারীতে।
হিমালয়ের বরফ ছোয়া শৈত্যপ্রবাহে বেড়েছে। দাপটের সাথে শীতের সাঁড়াশী আক্রামন চলছেই। চারিদিকে এখন শীতের গর্জন। এক ফালি রোদের দেখা তিন দিন ধরে। এই শৈত্যপ্রাহ আরো তিন দিন ধরে থাকবে বলে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছেন।
শুক্রবার(২০ ডিসেম্বর) নীলফামারীর ডিমলা উপজেলায় সর্বনিম্ন ১০.৫ ও সর্ব্বোচ তাপমাত্রা ছিল ১৮.৩ ডিগ্রি সে. , সৈয়দপুর উপজেলায় সর্বনিম্ন  ১১.৪ ও সর্ব্বোচ তাপমাত্রা ছিল ১৮.২ ডিগ্রি সে.। উত্তুরী হিমশীত বাতাসের গতিবেগ ঘন্টায় ১২ কিলোমিটার চলছে বলে ¯'ানীয় আবহাওয়া অফিস সুত্রে জানা যায়।
নীলফামারীতে কনকনে শীতে কাবু হয়ে পড়েছে ছিন্নমূল মানুষরা। শীতের হাত থেকে রক্ষা পেতে এসব মানুষরা খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারন করছে। এমনিভাবে শীত নিবারন করতে গিয়ে গতকাল বুধবার রাত আটটার দিকে জেলা সদরের চওড়া বড়গাছা এলাকার ডাঙ্গাপাড়ার একরামুল হকের শিশু কন্যা ইতিমনি আগুনে দগ্ধ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে।এদিকে তীব্র শীতে দুই দিনে জেলার বিভিন্ন হাসপাতালে শীতজনিত রোগে আক্রান্ত হয়ে ১৭৯ জন রোগি চিকিৎসাধীন রয়েছে। এদের মধ্যে ৭০ জন শিশুসহ ১০৭ জন ক্লোড ডায়রিয়ায় আক্রান্ত এবং বাকীগুলো শ্বাষকষ্টের রোগি।
নীলফামারী সিভিল সার্জন রনজিৎ কুমার বম্মন জানান, আগুনে দগ্ধ শিশুটিকে সুচিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এ ছাড়া শীতজনিত রোগির সংখ্যা বাড়ছে বলে নিশ্চিত করেছেন।
এদিকে খেটে খাওয়া মানুষজন পড়েছে সব থেকে বেকায়দায়। তারা বলছে হাড় কাঁপানো শীত পড়েছে। হাত পা কুকড়ে যাচ্ছে। চলতে পারছিনা। গ্রামে গ্রামে দেখা যায় ছোট ছোট শিশু সহ বয়স্কো নারী পুরুষরা খড়কুটোয় আগুন জ্বালিয়ে শীত নিবারন করছে।#

পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 1537134906564234933

অনুসরণ করুন

মুজিব বর্ষ

Logo

সর্বশেষ সংবাদ

শিল্প-সাহিত্য

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

তারিখ অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item