সাকিব-তামিম ছাড়াই ভারতকে হারিয়েছে বাংলাদেশ


ডেস্ক



সাকিব -তামিমবিহীন ভারতের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টিতে প্রথম জয় পেল বাংলাদেশ। ৩ বল থাকতে ৭ উইকেটের জয় টাইগারদের ।
রবিবার (০৩ নভেম্বর) দিল্লির অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামে তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে মুশফিকুর রহিমের ব্যাটে ভর করে ভারতের দেওয়া লক্ষ্য টপকে যায় বাংলাদেশ। মুশফিক করেন অপরাজিত ৬০ রান এবং অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ করেন ১৫ রান।

 দ্বিতীয় বলেই চার, প্রথম দুই বলে ৬ রান। ১৪৯ রানের লক্ষ্যে দারুণ শুরু তো বটেই।
কিন্তু সে আনন্দ মিইয়ে দিতে দেরি করেননি লিটন দাস। প্রথম ওভারেই শেষ তাঁর চার বলে ৭ রানের ইনিংস। এ ধাক্কা সামলে নিয়েছিল বাংলাদেশ। শেষের ঝড়ের জন্য সামলে নেওয়াটা ভালই কাজে লেগেছে। একদম শেষ মুহূর্তে মুশফিকের দারুণ ফিনিশিং ইতিহাস গড়া এক জয় এনে দিল বাংলাদেশকে।
অভিষিক্ত মোহাম্মদ নাঈম ও সৌম্য সরকার প্রথম ৬ ওভারে ৪৫ রান এনে দিয়েছেন। জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় গতিতেই তখনো এগচ্ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু যুজবেন্দ্র চাহাল বোলিংয়ে এসেই বদলে দিলেন সব। ২৮ বলে ২৬ রান করে ফিরলেন নাঈম। ৫৪ রানে দ্বিতীয় উইকেত হারাল বাংলাদেশ। চাহালের লেগ স্পিন থেকে রানই বের করতে পারছিলেন না মুশফিকুর রহিম ও সৌম্য। এর মাঝে একটি জোরালো এলবিডব্লুর আবেদন উঠেছিল মুশফিকের বিপক্ষে। আম্পায়ার তাতে সাড়া দেননি, ভারতও রিভিউ নেয়নি। পরে রিপ্লেতে দেখা গেছে, রিভিউ নিলেই ড্রেসিংরুমে ফিরতে হতো মুশফিককে।
সাবেক অধিনায়কের রান তখন ৬ (৮ বলে), বাংলাদেশের স্কোর ২ উইকেটে ৬১। চাহালের প্রথম দুই ওভারে মাত্র ২ রান তুলতে পেরেছে বাংলাদেশ। ১০ ওভার শেষে ২ উইকেটে ৬২ রান। বাকি সময়ে দরকার ৮৭ রান। সেটা ৫ ওভারে নেমে এল ৫০-এ। হাতে তখনো ৮ উইকেট। ৩৪ রানে সৌম্য আছেন এক প্রান্তে, অন্যপ্রান্তে ২৮ রানে মুশফিক। টি-টোয়েন্টিতে এমন পরিস্থিতিতে ব্যাটিং দলই এগিয়ে থাকে।
১৬তম ওভারে মাত্র ৬ রান আসায় চাপ সৃষ্টি হয়েছিল। খলিল আহমেদের প্রথম বলেই হুক করে ছক্কা মারলেন। কিন্তু পরের দুই বলেই আবার ডট। পরের দুই বলে তিন রান এল। ষষ্ঠ বলেই আবার হতাশায় ডুবল বাংলাদেশ। উইকেটের পেছনে বল পাঠাতে গিয়ে গতিতে বিভ্রান্ত হয়ে বোল্ড সৌম্য। ৩৫ বলে ৩৯ রানের ইনিংসে দুই ছক্কার সঙ্গে এক চার ছিল তাঁর। ১৮তম ওভারের তৃতীয় বলে আবার জীবন পেলেন মুশফিক। সীমানায় তাঁর সহজ ক্যাচ হাতছাড়া করে চার বানিয়ে দিয়েছেন ক্রুনাল পান্ডিয়া। এবারও অভাগা বোলারের নাম চাহাল। ৩৮ রানে আরেকবার জীবন পেলেন মুশফিক। চাহালের সে ওভারে ১৩ রান পেয়েছে বাংলাদেশ।
শেষ ১২ বলে ২২ রান দরকার ছিল বাংলাদেশের। প্রথম দুই দলে মাত্র ২ এল। পরের চার বলে টানা চার ৪ মুশফিকের। শেষ ওভারে দরকার ৪ রান। তবে উইকেটে থাকা মুশফিক-মাহমুদউল্লাহই একবার শেষ ৩ বলে ২ রান তোলার কাজ করতে পারেননি টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে। এ তথ্যটাই অস্বস্তি বাড়াচ্ছিল। প্রথম বলেই ডট দিলেন মাহমুদউল্লাহ। ৫ বলে দরকার ৪ রান।
পরের বলে ২ রান নিয়ে চাপ কমালেন অধিনায়ক। পরের বলেই ওয়াইড। ম্যাচ টাই। ৪ বলে ১ রান দরকার বাংলাদেশের। ছয় মেরেই জেতালেন মাহমুদউল্লাহ। ৬০ রানে অপরাজিত ছিলেন মুশফিক।বিজ্ঞাপন
এর আগে নির্ধারিত ২০ ওভার শেষে ৬ উইকেট হারিয়ে ভারত সংগ্রহ করে ৬ উইকেটের বিনিময়ে ১৪৮ রান। ইনিংসের শুরুতে স্বাগতিক ভারতের বিপক্ষে টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় সফরকারী বাংলাদেশ।
বোলিং করতে নেমে ইনিংসের প্রথম বলেই শফিউল ইসলামের শিকার হয়ে ফিরে যান ভারতীয় অধিনায়ক রোহিত শর্মা (৯)। প্রথম ওভারের শেষ বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েন রোহিত (৯)। এরপর কিছুটা প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করেন শিখর ধাওয়ান এবং লোকেশ রাহুল। তবে সপ্তম ওভারের তৃতীয় বলে তরুণ লেগি আমিনুল ইসলাম বিপ্লবের বলে টাইগার অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহর হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন লোকেশ রাহুল (১৫)। স্কোরবোর্ডের ভারতের সংগ্রহ তখন ৩৬ রান।
তবে উইকেটের এক প্রান্ত আগলে রাখেন ওপেনার শিখর ধাওয়ান। অন্য প্রান্তের ব্যাটসম্যানরা আসা যাওয়ার মিছিলেই ছিল। ইনিংসের ১১তম ওভারে শ্রেয়াস আইয়ারকে (২২) নিজের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত করেন বিপ্লব। এরপর ভারতের স্কোরবোর্ডে শতক পূর্ণ হওয়ার আগেই উইকেটে থিতু ব্যাটসম্যান শিখর ধাওয়ান (৪১) ফেরেন রান আউট হয়ে। ব্যক্তিগত ৪১ রানে এবং দলীয় ৯৫ রানে ১৪.৫ ওভারে ফেরেন এই ওপেনার।
এরপর ইনিংসের ১৬তম ওভারের শেষ বলে ভারতের হয়ে অভিষিক্ত শিভম দুবেকে (১) দারুণ এক ক্যাচে প্যাভিলিয়নে ফেরান আফিফ হোসেন ধ্রুব। ১৯তম ওভার দ্বিতীয় স্পেলে বল করতে এসে নিজের ২য় উইকেট তুলে নেন শফিউল। ১৯তম ওভারের দ্বিতীয় বলে ডিপ মিড অনে নাইম শেখের তালুবন্দী হয়ে ফিরে যান রিশব পন্ত (২৬)। শেষ দিকে ক্রুনাল পান্ডিয়ার ১০ বলে ঝড়ো ৮ রানে ১৪৮ রানের পুঁজি পায় ভারত।
ভারতীয় ব্যাটিং ইনিংসের শেষ ওভারে অবশ্য মোস্তাফিজ ১৬ রান দিলে ভারতের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৬ উইকেটে ১৪৮ রান। টাইগারদের হয়ে ২টি করে উইকেট তুলে নেন শফিউল ইসলাম এবং আমিনুল ইসলাম বিপ্লব। শফিউল ৪ ওভারে ৩৬ রানের বিনিময়ে নেন ২ উইকেট আর ৩ ওভারে ২২ রান দিয়ে ২ উইকেট নেন বিপ্লব।এই ম্যাচ দিয়েই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হলো নাইম শেখের।

পুরোনো সংবাদ

খেলাধুলা 3313528096780763603

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

শিল্প-সাহিত্য

ফেসবুক লাইকপেজ

তারিখ অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item