৯৯৯ ফোন করে প্রাণে রক্ষা পেল নীলফামারীর লিজা

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ কল সেন্টার ৯৯৯ নির্যাতনের হাত থেকে বাঁচলো নয় মাসের অন্তসত্ত্বা গৃহবধু ইশিতা আক্তার লিজাকে (২৩)। যৌতুক দাবিতে স্বামী ও তার পরিবারের লোকজন মারপিট শুরু করলে ৯৯৯ নম্বরে ফোন দেয় সে। এরপর পুলিশ এসে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করায় তাকে।
ঘটনাটি ঘটে  সোমবার রাতে নীলফামারীর কিশোরীগঞ্জ উপজেলার মাগুড়া ইউনিয়নের শিঙ্গেরগাড়ী গ্রামে।
লিজা জানায়, তিন বছর আগে ওই উপজেলার মাগুড়া ইউনিয়নের সিঙ্গেরগাড়ি গ্রামের বাবুল খানের ছেলে আশিকুর রহমানের (২৮) সঙ্গে বিয়ে হয় তার। বিয়ের পর থেকে স্বামীসহ পরিবারের সদস্যরা প্রায় সময় চার লাখ টাকা যৌতুকের জন্য তাকে মারপিট ও নির্যাতন করেন। তার স্বামী ক্রিকেট জুয়ায় টাকা হেরে যায়। আর টাকা আনতে আমাকে বাবার বাড়ি যেতে বলে। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল সোমবার রাতে শ্বশুর বাড়ির লোকজন মারপিট শুরু করে তাকে। জীবন বাঁচাতে দৌঁড়ে প্রতিবেশী বাড়ির ঘরে ঢুকে দরজা বন্ধ করে কল সেন্টার ৯৯৯ ফোন করে ঘটনা জানায়। এরপর কিশোরীগঞ্জ থানা পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করায়।
লিজা অভিযোগ করে বলেন, ‘এর আগেও কয়েকবার নির্যাতনের শিকার হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছি। এখন অন্তস্বত্ত্বা হলেও তারা আমাকে রেহাই দেয়নি।’
লিজার পরিবারের সদস্যদের অভিযোগ, বিয়ের সময় নগদ দুই লাখ টাকা দেয়া হলেও স্বামীসহ পরিবারের সদস্যরা আরও চার লাখ টাকা যৌতুকের জন্য নির্যাতন করে আসছে। এরই মধ্যে তাদের দাম্পত্য জীবনে দুই বছরের একটি ছেলে আছে। লিজা বর্তমানে নয় মাসের অন্তসত্ত্বা।
এ বিষয়ে নীলফামারীর কিশোরীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হারুন-অর-রশীদ জানান, ৯৯৯ থেকে ফোন পেয়ে আমরা তাৎক্ষনিক ঘটনাস্থলে গিয়ে ভিকটিমকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করাই। এ ব্যাপারে ভিকটিমের বাবা মশিয়ার রহমান একটি অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগ তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। #

পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 8592488713716663697

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

শিল্প-সাহিত্য

ফেসবুক লাইকপেজ

তারিখ অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item