পীরগাছায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিদ্যালয় মেরামতের অর্থ আত্নসাতের অভিযোগ

ফজলুর রহমান ,পীরগাছা(রংপুর)প্রতিনিধিঃ
রংপুরের পীরগাছায় বিদ্যালয় মেরামতের নামে নাম মাত্র কাজ করে ভূয়া বিল ভাউচার দেখিয়ে প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ টাকা আত্নসাত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বরাদ্দ পাওয়া অর্থ দিয়ে বিদ্যালয় মেরামত না হওয়াসহ শিক্ষা উপকরণ সুবিধা থেকে শিক্ষার্থীরা বঞ্চিত।
জানা যায়, চলতি অর্থ বছরে উপজেলার অন্নদানগর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচী-৩ আওতায় পাঁচটি প্রকল্পের বিপরীতে প্রায় সাড়ে তিন লাখ টাকা মেরামতের জন্য বরাদ্দ দেয়া হয়। চলতি অর্থ বছরে বিদ্যালয় ভিত্তিক উন্নয়ন পরিকল্পনা(স্লিপ) এর জন্য ৭০ হাজার টাকা, ওয়াশব্লক  মেরামত ২০ হাজার, ক্ষুদ্র মেরামত ৪০ হাজার, প্রাক-প্রাথমিক ১০ হাজার ও বৃহত্তম মেরামত ২ লাখ টাকা বরাদ্ধ পায়।
সবমিলে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে বিদ্যালয়টির বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড বাস্তবায়নের জন্য ৩ লাখ ৪০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। বরাদ্দ পাওয়া অর্থ দিয়ে প্রধান শিক্ষক জিন্নাত রেহানা বিদ্যালয়ের উন্নয়ন মুলক কাজ নামমাত্র করে সভাপতির স্বাক্ষর জাল করে প্রকল্পের সমুদয় টাকা উত্তোলন করে আত্মসাত করেন। বিদ্যালয়ের শ্রেণীকক্ষে ৪ টি সিলিং ফ্যান থাকলেও নতুন ফ্যান ক্রয় না করেও প্রধান শিক্ষক জিন্নাত রেহানা পুরাতন ভবনের ফ্যান লাগিয়েছেন।
অন্নদানগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জিন্নাত রেহানা এর সাথে কথা হলে তিনি জানান, আমার কাজের মেরামত এর ত্রুটি থাকায় উপজেলা সহকারি প্রকৌশলীকে টাকা দিতে হয়েছে।
বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আয়শা সিদ্দিকা বলেন, প্রধান শিক্ষক জিন্নাত রেহানা আমাকে না জানিয়ে আমার স্বাক্ষর জাল করে সমুদয় টাকা উত্তোলন করেন। তিনি নামমাত্র কাজ করে উত্তোলনকৃত টাকা আত্মসাত করেছেন।
উপজেলা সহকারি প্রকৌশলী হারুন-অর-রশিদ এর সাথে মোবাইলে কথা হলে তিনি জানান, প্রধান শিক্ষক যাতায়াতের ব্যয় হিসেবে আমাকে কিছু টাকা দিয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেসমিন প্রধান বলেন আমার দপ্তরে একটি অভিযোগ দাখিল হয়েছে, অভিযোগটি তদন্তের জন্য অফিসার নিয়োগ দিয়েছি।###

পুরোনো সংবাদ

রংপুর 4186031624994969561

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item