আগামী জুলাই মাসে চিলাহাটি-হলদিবাড়ি রেলপথের উদ্বোধন করবেন দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী

আবু ফাত্তাহ্ কামাল (পাখি)/ইনজামাম-উল-হক নির্ণয়/আনিছুর রহমান মানিক/এআইপলাশ    - আগামী জুলাই মাসেই চিলাহাটী -হলদীবাড়ী রেল পথ চালু হবে, চিলাহাটী রোডে যুক্ত করা হবে কয়েকটি নতুন ট্রেন। প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমšী¿ নরেন্দ্র মোদি ভিডিও কনফারেন্স এর মাধ্যমে তা উদ্বোধন করবেন।
ভারতের সাথে রেল সংযোগ স্থাপনের লক্ষ্যে চিলাহাটী ও চিলাহাটী  বর্ডারের মধ্যে ব্রডগেজ রেলপথ নির্মান প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে কথা গুলো বলেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি মাননীয় রেলপথ মšী¿ নুরুল ইসলাম সুজন,এমপি। শনিবার ( ২১  সেপ্টেম্বর) দুপুরে ডোমার উপজেলার ভোগডাবুড়ি ইউনিয়নের চিলাহাটী রেলষ্টেশন চত্তরে বাংলাদেশ রেলওয়ে আয়োজিত  এ উদ্বোধনী  অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ রেলওয়ে মন্ত্রনালয়ের সচিব(ভারপ্রাপ্ত) মজিবর রহমান।
বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার শ্রীমতি রীভা  গাঙ্গুলী দাস, নীলফামারী-২ আসনের সংসদ সদস্য  আসাদুজ্জামান নুর ,নীলফামারী-১ আসনের সংসদ সদস্য  আফতাব উদ্দিন সরকার, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য(৩২৩) রাবেয়া আলীম, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান গোলাম রহমান  আলমগীর প্রমুখ ।এ ছাড়া এ অনুষ্টানে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রসাশক হাফিজুর রহমান চৌধুরী,পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আশরাফ হোসেন পিপিএম,উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উম্মে ফাতিমা, ,উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি অধ্যাপক খায়রুল আলম বাবুল ,মুক্তিযোদ্ধা  সন্তান কমান্ডের কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি ফারহানা আকতার সুমি সহ  সরকারী ও বেসরকারী পর্যায়ের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।
এ সময় রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন আরো বলেন, ঢাকার সাথে সরাসরি আমাদের কোন রেল যোগাযোগ ছিল না । বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৯৬ সালের সরকার সর্ব প্রথম সড়ক যোগাযোগের সাথে রেলপথ চালু করে সরাসরি রেলপথ  যোগাযোগ চালু করেন ।ভালো কোচ এবার দিব । নিলফামারীর,ডোমারের রাস্তা এত খারাপ আমি জানতাম না । তিনি সংশ্লিষ্ট এমপিদের (সংসদ সদস্য  আসাদুজ্জামান নুর ,নীলফামারী-১ আসনের সংসদ সদস্য  আফতাব উদ্দিন সরকার )এটা দেখার জন্য অনুরোধ করেন ।
এ অঞ্চলের মানুষের সাথে আমার আত্মার  সম্পর্ক। এখানে কিছু করতে পারলে আমি নিজেকে ধন্য মনে করবো। তিনি কাজটি সঠিক সময়ে শেষ করার জন্য সকলের সহযোগীতা কামনা করেন।   দুই দেশের সরকারই নির্বাচনের মাধ্যমে আবার ক্ষমতায় এসেছে কিছুদিন আগে ।দুই দেশের সরকার প্রধানের  অতি অল্প সময়ের মধ্যে  বৈঠক হবে ।তারা দুই দেশের সম্পর্ককে কিভাবে আরো উচ্চতায় নিয়ে যাওয়া যায় তা নিধারন করবেন ।
উল্লেখ্য, ৬৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ছয় দশমিক ছয় কিলোমিটার ওই রেলপথ নির্মান কাজ শেষে পাঁচ দশক পর এ পথে ভারতের সঙ্গে রেল যোগাযোগ পুণস্থাপন হবে।
সূত্রমতে, ব্রিটিশ আমলে ওই রেল পথটি চালু ছিল। সে সময়ে ভারতের দার্জিলিং থেকে  খুলনা হয়ে কলকাতা পর্যন্ত ট্রেন চলাচল ছিল নিয়মিত। এরপর পাক-ভারত যুদ্ধে থেমে যায় সে গতি। সে থেকে পরিত্যক্ত হয়ে পড়ে চিলাহাটি থেকে ভারতের হলদিবাড়ি পর্যন্ত ১১ দশমিক ৩৪ কিলোমিটার রেলপথ।
বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে দুই দেশের পরিত্যক্ত ওই রেলপথ নির্মান করে রেল যোগাযোগ পুণস্থাপনের উদ্যোগ গ্রহন করে। এরই ধারাবাহিকতায় ভারত সরকার ৩১ কোটি টাকা ব্যয়ে তাদের অংশে ৪ দশমিক ৩৪ কিলোমিটার রেলপথের নির্মানকাজ শেষ করে। ওই অংশে ২০১৭ সালের ৫ নভেম্বর কাজ শুরু করে  সমাপ্ত করে ২০১৮ সালের ১৪ মার্চ।
বাংলাদেশ অংশের প্রায় ৭ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণ কাজের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছে ম্যাক্স ইন্টারন্যাশনাল নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। ওই প্রতিষ্ঠানের প্রকল্প কর্মকর্তা মো. রোকনুজ্জামান সিহাব জানান, ৬৮ কোটি টাকা ব্যয়ে বাস্তবায়ধীন এক বছর মেয়াদে প্রকল্পটির কার্যাদেশ দেওয়া হয় চলতি বছরের ৮ জুলাই। এরপর থেকে প্রাথমিক কাজ শুরু হয়। ইতিমধ্যে পরিত্যক্ত রেলপথের অবৈধ স্থাপনা সরানো হয়েছে। রেলমন্ত্রী আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে কাজটি পুরোদমে শুরু হবে।
চিলাহাটি রেলস্টেশন মাস্টার আব্দুল মতিন বলেন, বর্তমানে চিলাহাটি থেকে খুলনা, ঢাকা ও রাজশাহী সরাসরি ট্রেন চলাচল করছে। এসব স্থানে পাঁচটি আন্তঃনগরসহ একটি মেইল ট্রেন চলাচল করছে। পরিত্যক্ত রেলপথটি পুণঃনির্মান শেষে ভারতের সঙ্গে রেল যোগাযোগ শুরু হবে

প্রকল্পের মূল তথ্য

প্রকল্পের ব্যয়                 ঃ ৮০১৬.৯৪ লক্ষ টাকা
প্রকল্পের মেয়াদ                 ঃ জুন, ২০২০
ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান এর নাম                 ঃ ম্যাক্স ইনফ্রাসট্রাকচার লি.
নতুন রেলপথ নির্মাণ (মেইন লাইন)               ঃ ৭ কি:মি:
নতুন রেলপথ নির্মাণ (লুপ লাইন)         ঃ ২.৩৬ কি:মি:
মাইনর ব্রীজ নির্মাণ ও লেভেল ক্রসিং গেট ঃ ৭ টি ও ২ টি
রেস্ট হাউজ (দ্বি-তল)                 ঃ ১ টি
অন্যান্য স্থাপনা               ঃ ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস হাউস বিল্ডিং, টিএক্সআর অফিস, এ্যাটেনডেন্ট                                                                  ব্যারাক   ও মেশিন রুম
                                                   
লেভেল সার্ভে কাজ                 ঃ সম্পন্ন
ইকুইপমেন্ট মোবিলাইজেশন                 ঃ ১২টি
প্রকল্পের বাস্তব অগ্রগতি                 ঃ ১৬.০০%

পুরোনো সংবাদ

lead 2541048229900347839

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

শিল্প-সাহিত্য

ফেসবুক লাইকপেজ

তারিখ অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item