উত্তরা ইপিজেডে দেশবন্ধু গ্রুপের টেক্সটাইলের উদ্বোধন করলেন বানিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশী

ইনজামাম-উল-হক নির্ণয়, নীলফামারী॥ দেশবন্ধু গ্রুপের অন্যতম প্রতিষ্ঠান  দেশবন্ধু টেক্সটাইল মিলস্ এর আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করেছে।  রবিবার দুপুরে নীলফামারীর উত্তরা ইপিজেডের অভ্যন্তরে  দেশবন্ধু টেক্সটাইল মিলস্ লিমিটেডের নিজস্ব ফ্যাক্টরীর চত্বরে আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্ধোধন করা হয়েছে।  প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে এটি উদ্ধোধন করেন বানিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

দেশবন্ধু গ্রুপের চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফার সভাপতিত্বে উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বেপজার চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল এস,এম সালাউদ্দিন, রংপুর অঞ্চলের কর কমিশনার মোঃ আহসানুল হক,নীলফামারী জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী, পুলিশ সুপার মুহাঃ আশরাফ হোসেন, নীলফামারী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র দেওয়ান কামাল আহমেদ। স্বাগত  ও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন যথাক্রমে দেশবাংলা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোলাম রহমান ও দেশবাংলা গ্রুপের উৎপাদন শাখার পরিচালক কিশোর কুমার।

অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বানিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি তার বক্তব্যে বলেন, যারা গুজব ছড়িয়ে দেশকে অস্থিতিশীল করতে চায় তাদের প্রতিহত করতে হবে । শোকের মাস আগষ্টে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর প্রতি বিন¤্র শ্রদ্ধা জানিয়ে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত কাজকে সমাপ্ত ও দেশের বেকাত্ব ঘুচিয়ে দেশের উন্নয়নকল্পে শোককে শক্তিতে পরিনত করতে হবে। আগষ্ট মাস আমাদের এগিয়ে যাওয়ার মাসভ  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে যে উন্নতির শিখরে নিয়ে যাচ্ছেন যা বিশ্বের কাছে রোল মডেল হিসেবে সু-নাম অর্জন করেছে। মন্ত্রী বলেন,একসময়ের অবহেলিত উত্তরাঞ্চলের রংপুর অঞ্চলের আট জেলা ছিল মঙ্গাকবলিত। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নে দেশের সঙ্গে তাল মিলিয়ে উত্তরবঙ্গ আজ আর পিছিয়ে নেই। আমরা আর পিছিয়ে থাকতে চাইনা,আমরা শোককে শক্তিতে পরিনত করে দেখিয়ে দিতে চাই উন্নয়নের দৃশ্যপট। আমরা আর ভিতু নই- নই কাপুরুষ। বিগত সময়ের বিএনপি জামায়াত জোট সরকার আমাদের মফিজ বানিয়ে রেখেছিল। আজ আমরা আর মফিজ নই। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ তথা উত্তরবঙ্গ এখন উন্নয়নের মাইলফলকে পরিনত হয়েছে। বিকাশ ঘটেছে শিল্পকারখানা ও ব্যবসা বানিজ্যে। ঘুচেছে বেকাত্ব। মঙ্গা ও মফিজ নামক শব্দটি আজ ইতিহাস। মন্ত্রী জানান, দেশবন্ধু গ্রুপ আমাদের উত্তরাঞ্চলের মানুষের গ্রুপ। এটি আজ  নতুন মডেলের আধুনিকমানের দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্প প্রতিষ্ঠান। যারা ব্যবসায় সম্প্রসারন করছে। এতে করে বেসরকারি খাতে ব্যাপক অবদান সহ কর্মসংস্থান, উন্নতমানে পণ্য উৎপাদনও রপ্তানিতে স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক বাজারে আগ্রসর হচ্ছে। দেশবন্ধু গ্রুপের বিভিন্ন উৎপাদিত পণ্যের সঙ্গে এবার যোগ হলো পোশাকশিল্প। যা দেশবন্ধু টেক্সটাইল মিলস্ লিমিটেড। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুরোধে দেশবন্ধু গ্রুপ নীলফামারী উত্তরা ইপিজেডে আজ হতে তৈরী পোষাক উৎপাদন শুরু করলো।
বেপজা  মেজর জেনারেল এস,এম সালাউদ্দিন তার বক্তব্যে বলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বেপজা দেশের আটটি ইপিজেডের মাধ্যমে দেশের উন্নয়নে অগ্রনী ভুমিকা পালন করছে। এক সময়ের অবহেলিত উত্তরা ইউপিজেড আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মাধ্যমে শিল্পকারখানা ও রপ্তানিতে শীর্ষস্থানের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। এ সময় তিনি দেশের আটটি ইপিজেডের বিনিয়োগ ও রপ্তানির হিসাব তুলে ধরেন।

দেশবন্ধু গ্রুপের চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা তার বক্তব্যে বলেন বাংলাদেশ আজ আর অবহেলিত নয়। আগামী দশ বছরের মধ্যে আমরা জাাপানের চেয়ে কম অংশ থাকবোনা। তিনি জানান সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে চীন সফরের প্রতিনিধি হিসাবে তার সফরের সুযোগ হয়েছিল। আজ চীন বাংলাদেশে সব থেকে বেশী বিনিয়োগ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। তিনি বলেন দেশবন্ধু গ্রুপ পরিবেশ বান্ধব হিসাবে গড়ে তোলা হচ্ছে। তারই প্রেক্ষপটে নীলফামারীর উত্তরা ইপিজেডে দেশবন্ধু টেক্সটাইল মিলস্ কে পরিবেশ বান্ধব হিসাবে নির্মান করা হয়েছে। তিনি জানান এই প্রতিষ্ঠানে  আট হাজার শ্রমিক কাজ করবে। এই প্রতিষ্ঠান শতভাগ রপ্তানি বান্ধব প্রতিষ্ঠান। যাতে এমব্রয়ডারীডেনিম গার্মেন্টস,ওয়াশিং ইউনিট এবং প্রিন্ট সুবিধা রয়েছে। প্রতি বছর এখান হতে এক কোটি ৭৪ লাখ ৭২ হাজার পিছ ডেনিম /চিনো/কার্গো প্যান্ট,আউটওয়্যার,ফেন্সিএপ্যারেলস উৎপাদনে সক্ষম হবে। দেশবাংলার এই টেক্সটাইলস (ডিটিএএল) ১৬টি আলাদা ফ্লোর ইউনিট করা হয়েছে। যার আয়তন ৭১,৭৫০ বর্গফুট এবং সর্বমোট আয়তন ২,৭১,২৭২ বর্গফুট।এতে ইটিপি প্লান্ট ও ওয়াশিং প্ল্যান্ট সুবিধাও বাস্তবায়িত হবে। তিনি আরো জানান দেশবন্ধু টেক্সটাইলস তার পরিবেশ বান্ধব গ্রীন ফ্যাক্টরীরর মাধ্যমে মনোনিবেশ করেছে যা পরিবেশ গত সমস্যা নিরসন ও জ্বালানি উৎকর্ষতা বৃদ্ধি করা।তিনি বলেন উত্তরা ইপিজেডে দেশবন্ধু টেক্সটাইল এর অবকাঠামো ইউএসজি বিসি এর মানদন্ড অনুসারে এবং শ্রীলংকান কনসালটেন্টের সহায়তায় তৈরী করা হয়েছে।

উল্লেখ যে ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর মঙ্গা দুরিকরনে শেখ হাসিনা নীলফামারীর সোনারায় ইউনিয়নে ২১৩ দশমিক ৬৬ একর জায়গায় উত্তরা ইপিজেড স্থাপনের প্রক্রিয়া শুরু করে। এরপর  ২০০১ সালের ১ জুলাই এটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
সংশ্লিষ্ট সুত্র মতে প্রতিষ্ঠার পর থেকে এ পর্যন্ত নীলফামারীর উত্তরা ইপিজেড হতে রফতানি হয়েছে ৯৯ কোটি ৫৬ লাখ ৫০ হাজার টাকা (৯৯৫.৬৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার) সমমূল্যের নানা পণ্য।
এ পর্যন্ত এখানকার ২০২টি প্লটের মধ্যে ১৫০টিতে বিনিয়োগ করেছে শিল্পপতিরা।  দেশীয়  শিল্পপতি ছাড়াও হংকং, চীন ও ভারতীয় কিছু প্রতিষ্ঠান এখানে বিনিয়োগ করেছে। এছাড়া গার্মেন্টস এক্সেসরিজ, ইলেক্টনিক্স, চশমা, পরচুলা, কফিন, চামড়ার ব্যাগ, জুতাসহ অনেক দ্রব্য আমদানি-রফতানির জন্য বিনিয়োগ করেছে কিছু প্রতিষ্ঠানও। সম্প্রতি ডিআইএজেট ই¯িপনিং এ্যান্ড নিটিং মিলস লিমিটেড ইপিজেডের একটি ভবন লিজ নিয়ে ইনভেস্টরস ক্লাব এ্যান্ড রিসোর্ট তৈরি করেছে। #

পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী সদর 2838522942369993988

অনুসরণ করুন

মুজিব বর্ষ

Logo

সর্বশেষ সংবাদ

শিল্প-সাহিত্য

ফেসবুক লাইকপেজ

তারিখ অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item