তিস্তার চুক্তি নিয়ে ভারতের সঙ্গে পুনরায় বৈঠক হচ্ছে- তিস্তা ব্যারাজে পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী

ইনজামাম-উল-হক নির্ণয়, নীলফামারী॥ পানি স¤পদ প্রতিমন্ত্রী  জাহিদ ফারুক  বলেছেন, বর্তমান সরকার পানি সম্পদের উপর বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার গুরুত্বপুর্ন প্রকল্প হিসাবে বর্ষার পানি বিভিন্ন নদ-নদীতে ধরে রাখতে গোটা দেশে শুরু করা হয়েছে নদী খননের মেঘা প্রকল্প। এসব প্রকল্প বাস্তবায়ন কাজ এখন চলমান। তিনি উল্লেখ করে বলেন নদী খননের কাজ শুরু হওয়ায় এবারের বন্যায় ক্ষতির পরিমান অনেক কমে এসেছে। 

আজ শনিবার দুপুরে দেশের সর্ববৃহৎ সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারাজ ও তিস্তা নদীর ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শনে এসে  নীলফামারীর ডালিয়ার অবসরে পানি উন্নয়ন বোর্ডের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তাগন ও সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।

 এ সময় উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রনালয়ের অতিরিক্ত সচিব মাহমুদুল ইসলাম, পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক মাহফুজুর রহমান, উত্তরাঞ্চলের পানি উন্নয়ন বোর্ডের  প্রধান প্রকৌশলী জ্যোতি প্রসাদ ঘোষ, নীলফামারী জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) শাহীনুর আলম, ডালিয়া পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম সহ প্রমুখ ।

মতবিনিয়কালে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী জানান তিস্তা নদী খনন ও বাঁধ নির্মান এবং দেশের সর্ববৃহৎ সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারাজ কমান্ড এলাকাকে রি-মডেলিং করা হবে। এ জন্য ওই দুই প্রকল্পের জন্য ৯ হাজার ৫০০ কোটি টাকার সম্ভাব্য বাজেট ধরা হয়েছে। তিস্তাকে নতুন করে সাজানো হবে ।তিস্তা নদী ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে নাব্যতা বাড়ানো হবে। সেটি যদি আমরা করতে পারি তাহলে তিস্তার মানুষ বর্ষাকালে ও শুকনো মৌসুমের হাত হতে পরিত্রাণ পাবে।
এর পাশাপাশি মন্ত্রী বলেন  তিস্তা নদীর পানি চ্যুক্তির ব্যাপারে দেয়া হয়েছে বিশেষ গুরুত্ব। পুনরায় তিস্তা নিয়ে ভারত বাংলাদেশের বৈঠক শুরু হচ্ছে।  আগামী মাসেই তিস্তা পানি চুক্তি নিয়ে দুই দেশের সচিব পর্যায়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। আশা করা হচ্ছে বর্তমান সরকারের মেয়াদেই তিস্তার পানি চ্যুক্তি হবে এবার।
ডেঙ্গু নিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, নিজেকে আগে পরিস্কার থাকতে হবে। ডেঙ্গু প্রতিরোধে নাগরিকদের সচেতন হতে হবে। যদিও গ্রামে ডেক্সগু রোগী নেই, আছে সব শহরে। এ কারণ, শহরে রাস্তার পাশেই ময়লা ফেলে দিয়ে যায়। প্রত্যেককে নিজ নিজ জায়গা পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে।

মন্ত্রী তিস্তা ব্যারাজ, তিস্তার ফ্লাড বাইপাস ও নদীর বিভিন্ন এলাকার ভাঙ্গন ও ভাঙ্গন মোকাবেলার কাজ পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি নদী ভাঙন প্রতিরোধে নেওয়া প্রকল্প নিজেদের কাজ মনে করে তদারকি করার জন্য স্থানীয়দের প্রতি আহ্বান জানান।

অপর দিকে কেপিআই ওয়ানের আওতায় তিস্তা ব্যারাজের রক্ষাবেক্ষনে অনিয়মের অভিযোগ পেয়ে পানি স¤পদ প্রতিমন্ত্রী কর্নেল (অব:) জাহিদ ফারুক শামীম  অটোমেশন অপারেটিং সিস্টেম কক্ষে প্রবেশ করেন। সেখানে দেখা যায় সম্প্রতিকালে সাড়ে ৬ কোটি টাকা ব্যয়ে অটোমেশন অপারেটিং সিস্টেম ও ১৩ লাখ টাকা ব্যয়ে  স্থাপিত সিসি ক্যামেরা কাজ করছেনা। এ নিয়ে প্রতিমন্ত্রী ওই কাজে তদারকিতে থাকা তিস্তা ব্যারাজের যান্ত্রিক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শামসুজ্জোহাকে তড়িৎ গতিতে এ সব চালু ও মেরামত করার নির্দেশ দেন। #

পুরোনো সংবাদ

lead 1061245767284247129

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

শিল্প-সাহিত্য

ফেসবুক লাইকপেজ

তারিখ অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item