ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও প:প:কর্মকর্তাসহ দুই সহকর্মির বিরুদ্ধে অনিয়ম দূর্ণীতির অভিযোগ, তদন্ত কমিটি গঠন।

মেহেদী হাসান উজ্জল,ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:
দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মো. নুরুল ইসলাম ও হাসপাতালে কর্মরত তার দুইজন সহকর্মীর বিরুদ্ধে সরকারী গাছকাটা, হাসপাতালের কোয়ার্টার বরাদ্দসহ বিভিন্ন অনিয়ম, দূর্ণীতি ও সরকারী টাকা আত্বসাৎ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
গত ৪ আগস্ট ফুলবাড়ী উপজেলার রাজু আহম্মেদ, আজিজ মন্ডল, জাকির হোসেন নামে ৩জন ব্যাক্তী দিনাজপুর জেলা সিভিল সার্জন ও দিনাজপুর দুর্নীতি দমন কমিশনের উপ-পরিচালক বরাবর এই লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন।
 অভিযুক্ত অপর দুই কর্মচারী হলেন প্রধান সহকারি কাম-হিসাবরক্ষক মো:এজাজুল ইসলাম ও মেডিকেল টেকনোলজিস্ট (ইপিআই) মো.সাইফুল ইসলাম। এ ব্যাপারে রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক মোস্তফা খালেক, সাক্ষরিত চিঠিতে গত ৫ আগষ্ট দিনাজপুর জেলা সিভিল সার্জন ডা.আব্দুল কুদ্দুসকে প্রধান করে ২সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন। 

লিখিত অভিযোগে বলা হয়েছে, ডা. মো. নুরুল ইসলাম গত ০৬/০৩/২০১৬ইং তারিখে যোগদান করার পরথেকে প্রধান সহকারি কাম-হিসাবরক্ষক মো:এজাজুল ইসলাম ও মেডিকেল টেকনোলজিস্ট (ইপিআই) মো.সাইফুল ইসলামকে সাথে নিয়ে, প্রভাব খাটিয়ে ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক কোয়ার্টাগুলো বরাদ্দ না দিয়ে সাধারণ কর্মচারীদের কাছ থেকে মাসিক অর্থ আদায়ের মাধ্যমে টাকা উত্তোলন করছেন। এতে করে ডা. নুরুল ইসলাম বিগত ৩ বছরে কয়েক লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। এব্যাপারে স্থানীয় জনসাধারণ কথা তুললে তিনি বলেন, হাসপাতাল পরিচালনা করার দায়িত্ব আমার সুতরাং হাসপাতাল কিভাবে চলবো এটা আমি বুঝি। সর্বশেষ জুন মাস থেকে বাসা বরাদ্দ প্রদান করলেও ১ম শ্রেনীর কোয়ার্টারগুলো বরাদ্দ না দিয়ে তিনি এখনো মাসিক চাঁদা আদায়ের মাধ্যমে বরাদ্দ প্রদান করছেন। নিজের খেয়াল খুশিমত অফিস পরিচালনা করেন তিনি। কিছুদিন পূর্বে কোন প্রকার টেন্ডার প্রক্রিয়া ছাড়াই হাসপাতাল চত্ত্বরের কয়েকটি গাছ কেটেছেন বলেও অভিযোগে উলেক্ষ করা হয়েছে ।

এ ব্যাপারে ডা. মো. নুরুল ইসলাম এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি সাংবাদিককে জানান, ‘হাসপাতালের সরকারি কোয়ার্টার বরাদ্দে কোন অনিয়ম হয়নি। তিনি বলেন, উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে তার ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করতে এলাকার একটি বিশেষ মহল তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে। হাসপাতালের গাছ কাটার বিষয়ে তিনি বলেন, সম্প্রতি হাসপাতাল চত্ত্বরে একটি মসজিদ নির্মান করা হয়েছে। সেখানকার ৩টি মেহগনি গাছ ও একটি শিমুল গাছের ডাল কাটা হয়েছে। এই বিষয়ে হাসপাতালের দুইজন স্টার্ফ মিথ্যা প্রচারনা চালায়। ইতোমধ্যে তাদেরকে শাস্তিস্বরুপ অন্যত্র বদলি করা হয়েছে।

এ বিষয়ে দিনাজপুর সিভিল সার্জন কর্মকর্তা মো. আব্দুল কুদ্দুস বলেন, ফুলবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অনিয়ম দূর্নীতি নিয়ে আমাকে প্রধান করে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ঈদের পরে পুরো বিষয়টি নিয়ে তদন্ত সাপেক্ষে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।

এ ব্যাপারে রংপুর বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা.মোস্তফা খালেক এর সাথে গতকাল বৃহস্পতিবার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তাদের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ হয়েছে, অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যাবস্থা নেয়া হবে।

পুরোনো সংবাদ

দিনাজপুর 5505604726630343156

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

শিল্প-সাহিত্য

ফেসবুক লাইকপেজ

তারিখ অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item