ফুলবাড়ী সাব রেজিষ্টারের কার্যালয়ে দুই লাখ দলিলসহ সরকারী সম্পদ রক্ষায় ৬০ টাকা বেতনে মাষ্টারোলের নৈশপ্রহরী

মেহেদী হাসান উজ্জল,ফুলবাড়ী (দিনাজপুর) প্রতিনিধি:
দিনাজপুরের ফুলবাড়ী সাব রেজিষ্টার অফিসে সংরক্ষিত উপজেলার দুই লাখ ভুমি মালিকের দলিল ও রেকর্ড ভলিয়ম রক্ষার দায়িত্বে রয়েছেন, দৈনিক ৬০ টাকা বেতনে মাষ্টারোলের এক নৈশ্য প্রহরী।
ফুলবাড়ী সাব-রেজিষ্টার অফিসে সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সাব-রেজিষ্টার অফিসে নৈশ্য প্রহরী হিসেবে দায়িত্বে রয়েছেন, পৌর এলাকার স্বজনপুকুর বুন্দিপাড়া গ্রামের মৃত আতাউর রহমান মোল্লার ছেলে মোতালেব মোল্লা (৩০)।
এই নৈশ্য প্রহরী মোতালেব মোল্লা জানায়, সে গত ২০০৯ সাল থেকে দৈনিক ৬০ টাকা বেতনে মাষ্টারোলে নৈশ্য প্রহরীর দায়িত্ব পালন করে আসছেন। তিনি ছাড়া এই অফিসে আর কোন নৈশ্য প্রহরী নাই। তিনি আরো জানান এই বেতন দিয়ে তার সংসার চলে না, এই জন্য তিনি দিনের বেলা দলিল লেখকদের সেরেস্তায় সহযোগীতা করে যে বকশিষ পায় তা দিয়ে কনোরকমে সংসার চালান।
এই বিষয়ে জানতে চাইলে ফুলবাড়ী সাব-রেজিষ্টার মনিরুল ইসলাম বলেন, সরকারী নৈশ্য প্রহরী গত ২০০৯ সালে অবসরে যাওয়ার পর সরকার আর কোন নৈশ্য প্রহরী নিয়োগ দেয়নি, এই কারনে সরকারী নিয়মানুসারে মোতালেব মোল্লা মাষ্টারোলে নৈশ্য প্রহরী হিসেবে দায়ীত্ব দেয়া হয়েছে।
এক প্রশ্নে উত্তরে সাব-রেজিষ্টার মনিরুল ইসলাম বলেন, এই সাব-রেজিষ্ট্রি অফিসে গত ২০০৭ সাল থেকে এই প্রর্যন্ত রেজিষ্ট্রি কৃত প্রায় ৭০হাজার দলিলের ভলিয়ম রেজিষ্টার বহি ও দলিল সংরক্ষিত আছে। যা সরকার ও ভূমি মলিকের সম্পদ।
ফুলবাড়ী সাব-রেজিষ্টার অফিসের দলিল লেখক সমিতির সাবেক সভাপতি ও সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান নজমুল হক নাজিম বলেন, দলিলের এক একটি ভলিয়ম রেজিষ্টার পাতা মহা-মূল্যবান। তিনি বলেন ভলিয়ম বহির একটি পাতা কম-বেশি হলে, ভূমি মালিকের জমি বে-হাত হয়ে যেতে পারে। সেখানে অফিসটির নিরাপত্তা একজন মাষ্টারোলের নৈশ্য প্রহরীর উপর দেয়া ঝুঁকিপূর্ন বলে তিনি উল্ল্যেখ করেন। সে কারনে তিনি সাব-রেজিষ্টার অফিসের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কতৃপক্ষের নিকট গুরুত্ব দেয়ার দাবী জানান।

পুরোনো সংবাদ

দিনাজপুর 1869860280958143700

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

শিল্প-সাহিত্য

ফেসবুক লাইকপেজ

তারিখ অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item