গঙ্গাচড়ায় আইন অমান্য করেই অবাধে বিক্রি হচ্ছে অশ্লীল ভিডিও

সফিয়ার কাজল,গঙ্গাচড়া (রংপুর) প্রতিনিধিঃ পর্নোগ্রাফি পৌঁছে গেছে রংপুরের গঙ্গাচড়ার প্রতিটি ইউনিয়নে শিক্ষার্থী থেকে শুরু করে সব বয়সী মানুষের হাতের নাগালে। অল্প টাকায় বিভিন্ন কম্পিউটারের দোকান হতে  প্রতিদিন বিক্রি হচ্ছে পর্নো ভিডিও ক্লিপ, শহর ছাড়িয়ে ইউনিয়ন পর্যায়ে অলি-গলিতে ছেয়ে গেছে মোবাইল পর্নোগ্রাফিতে। সহজলভ্য হওয়ার কারণে কিশোররাও হয়ে উঠেছে এগুলোর ক্রেতা। পর্নোগ্রাফি উৎপাদন, সংরক্ষণ, ক্রয়, বিক্রয় নিষিদ্ধ করে আইন রয়েছে কিন্তু নেই এর কোনো প্রয়োগ। সচেতন নাগরিকরা বলছেন, পর্নোগ্রাফি যেভাবে প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে এভাবে চলতে থাকলে এমন একটা সময় আসবে যখন নেশার মতোই আসক্তি জন্মাবে সবার মাঝে। পর্নোগ্রাফি দেখেই বিপথে যাচ্ছে উঠতি বয়সী যুব সমাজ। বেড়ে যাচ্ছে ইভটিজিং, ধর্ষনসহ নানা অপরাধ। পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণে দরকার কঠোর নজরদারি। এদিকে পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রন আইন ২০১২ এর ৪নং ধারায় বলা আছে, পর্নোগ্রাফি উৎপাদন, সংরক্ষণ, বাজারজাতকরণ, বহন, সরবরাহ, ক্রয়, বিক্রয়, ধারণ বা প্রদর্শন করা যাবে না। এই আইনের সর্বোচ্চ সাজা ১০ বছর জেল এবং ৫ লাখ টাকা জরিমানা। কিন্তু কে শুনে কার কথা? আইন অমান্য করেই প্রশাসনের সামনেই উপজেলার বিভিন্ন কম্পিউটার সার্ভিসিং ও ডাউনলোডের দোকানগুলোতে অবাধে বিক্রি হচ্ছে পর্নো ভিডিও। সরেজমিনে দেখা যায়, গঙ্গাচড়া, বেতগাড়ী, বড়বিল, কোলকোন্দ, আলমবিদিতর, নোহালী, লক্ষ্মিটারী, গজঘন্টা, মর্ণেয়া ইউনিয়ন পর্যায়ে হাটে-বাজারে অবস্থিত কম্পিউটারের দোকানগুলোতে সব ধরনের গান ডাউনলোড করা হয়। প্রকাশ্যে গান কেনা-বেচার দোকান হলেও গোপনে চলছে পর্নোগ্রাফি বিক্রি। এসব দোকানে খুব সহজেই মোবাইলের মেমোরি কার্ড, পেনড্রাইভ আর হার্ডড্রাইভে কেনা-বেচা হয় নিষিদ্ধ ভিডিও চিত্র। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন ব্যবসায়ী বলেন, অনেকেই আসে পর্নোগ্রাফি ভিডিও ডাউনলোড করার জন্যে। ১০-২০ টাকা হলেই মিলছে এসব ভিডিও। এসবের জন্যে আমাদের আলাদা হার্ডডিক্সও আছে। যদি কখনো ভ্রাম্যমান আদালত অভিযান পরিচালনা করেন  তাহলে এই হার্ডডিক্স লুকিয়ে রাখা হয়। তবে প্রশাসনের লোকেরা খুব বেশি একটা আসেন না এসব দেখতে। আমাদের ধরে কি হবে? মূল জায়গায় তো বন্ধ করতে পারে না। কয়েকজন ব্যবসায়ীকে জিজ্ঞেস করা হয়, "আপনারা যা করছেন তা কি বৈধ নাকি অবৈধ?" পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইন জানা আছে আপনাদের? এমন প্রশ্নের জবাবে নিরব সবাই। স্থানীয়রা বলছেন, মোবাইলের গান ডাউনলোডের দোকানগুলোতে সারাদিনই ভীড় জমে থাকে। লক্ষ্য করলে দেখা যায়, বেশিরভাগই শিক্ষার্থী ও উঠতি বয়সী যুবক। যাদের হাতে খুব সহজেই চলে যাচ্ছে এসব অশ্লীল ভিডিও। পর্নোগ্রাফির প্রভাবে হুমকির মুখে যুব সমাজ । পর্নোগ্রাফি থেকে যুব সমাজকে রক্ষা করতে হলে দরকার আইনের কঠোর প্রয়োগ এবং অভিভাবকদের সচেতনতা।  রংপুর জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, অফিসার ইনচার্জসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে এ বিষয়ে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করার দাবি জানিয়েছেন সচেতন মহল।

পুরোনো সংবাদ

রংপুর 4887851618874355986

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

শিল্প-সাহিত্য

ফেসবুক লাইকপেজ

তারিখ অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item