রংপুর মিঠাপুকুর উপজেলার নির্বাহী অফিসারের প্রচেষ্টায় সার্বিক উন্নয়নে গতি

স্টাফ রিপোটার :

রংপুর মিঠাপুকুর উপজেলার নির্বাহী অফিসার মামুন-অর-রশীদএর প্রচেষ্টায় উপজেলা ব্যাপী সরকারি রাজস্ব আয় বৃদ্ধিসহ মিঠাপুকুরে সার্বিক উন্নয়নে গতি ফিরে পেয়েছে। দুর্নীতি-অনিয়ম, সন্ত্রাস ও মাদকের  বিরুদ্ধে তার কঠোর অবস্থানের কারণে উপজেলা  আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির যেমন উন্নয়ন ঘটেছে, তেমনই সরকারি সম্পদ দখলকারী, মাদকসেবী, দালালসহ কুচক্রী মহলের চোখের কাটায় পরিণত হয়েছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার।

তিনি মিঠাপুকুরে ৪নভেন্বর ১৩ সালে যয়েন্ট করেন এাসিল্যান্ড পদে সতত্যা নিষ্ঠার সাথে কাজ করে একই উপজেলায় ১১-০৮-১৬ তারিখে ইউএনও হিসেবে পদোন্নতী পায় ।তিনি মাদক, জুয়া ও দালাল চক্রের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানের ঘোষণা দেন। অন্যায়ের সঙ্গে আপোষ না করায় ইতিমধ্যে নির্বাহী অফিসারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে নেমেছে একটি দালাল চক্র।
মিঠাপুকুর উপজেলার সাধারন মানুষের দেয়া গেছে তথ্য থেকে জানা গেছে উপজেলা নির্বাহী অফিসার  বাংলাদেশের জাতির পিতা বাংলার রাখাল রাজা স্বাধীনতার ঘোষক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের  কন্যা রংপুরের পুত্রবধু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলা তৈরীর লক্ষ্যে ও এমপি এইচ.এন.আশিকুর রহমানের উন্নয়নের ধারা তরান্তিত করার লক্ষ্যে তিনি কাজ গুলো তড়িতগতিতে তত্বাবধান করেন বলে এলাকাবাসীর সুত্রে জানা গেছে । অপরদিকে যোগদানের সময় তিনি সুধী সমাবেশে ঘোষণা দেন-‘অফিস পাড়ায় কোন দালাল থাকবে না। মাদক ও জুয়াড়ি মুক্ত করা, বিনোদনের জন্য তৈরি হবে ইকো পার্ক, ভূমিদস্যুদের হাত থেকে সরকারি সম্পদ উদ্ধারসহ জলাবদ্ধতার কবল থেকে রক্ষাসহ উপজেলাবাসিকে ভিক্ষুক মুক্ত করা হবে।’কথা রেখেছেন তিনি। মাদক ও জুয়াড়ি নির্মূল এবং দালালমুক্ত করেছেন  ভুমি অফিস। বর্তমানে ভুমি  অফিসে টাঙানো হয়েছে সাইনবোর্ড। বোর্ডে লেখা আছে, ‘প্রকৃত কাগজ যার, জমি তার।’ এতে মুখ শুকিয়ে যায় ভূমিদস্যূদের। তাড়ার তিনি এাসিল্যান্ড থাকাকালিন জমির কাগজের জন্য কমপিউটারে ডাটাবেজ তৈরী করে কাজ চালাতেন ।এছাড়া জুয়াড়িদের বিরুদ্ধে পুলিশের পাশাপাশি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন তিনি। ইতিমধ্যে তিনি শতাধিক অপরাধীকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে শাস্তি প্রদান করেছেন। যাদের অধিকাংশ মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক সেবী। এছাড়া সম্প্রতি মিঠাপুকুরে  গরুর হাটটি অবৈধ দখলদারদের হাত থেকে মুক্ত করে রাজস্ব খাতে এনেছেন। মিঠাপুকুরে উন্নয়নে প্রধান সমস্যা জলাবদ্ধতা থেকে রক্ষার জন্য কপোতাক্ষ নদ খনন প্রকল্প সমন্বয় করে টিআরএম এলাকা ও পানি নিষ্কাশনের জন্য বিভিন্ন খালের থাকা বাঁধ, নেট-পাটা অপসারণ করেছেন তিনি। কঠোর হস্তে জালিয়াতির আখড়ায় পরিণত হওয়া ভুমি অফিস থেকে দালাল উচ্ছেদ করে যেমন সর্ব সাধারণের প্রশংসা কুড়িয়েছেন তেমন কুচক্রী মহলের আক্রোশের শিকার হয়ে নানা উন্নয়ন কর্মকান্ডে বাধার সম্মুখীন হচ্ছেন। আয়ের উৎস বন্ধ ও গডফাদারদের কথা না শোনায় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের উপর ক্ষিপ্ত হয়েছেন তারা ।

পুরোনো সংবাদ

রংপুর 8844324417004067557

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item