প্রশ্নফাঁস রোধে মানুষের পক্ষে যা যা সম্ভব সবই করেছি : শিক্ষামন্ত্রী


শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধ ও পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠানের জন্য মানুষের সাধ্যে যা করা সম্ভব, তা-ই করা হয়েছে। তিনি আশা করছেন, এবার প্রশ্নফাঁস হবে না। আশা করছি এবার কোনো ধরনের প্রশ্নফাঁস হবে না। হলেও যে ফাঁস করবে তাকে চিহ্নিত করে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আজ সোমবার রাজধানীর বেইলি রোডে সিদ্ধেশ্বরী গার্লস কলেজ কেন্দ্র পরিদর্শনের পর সেখানে উপস্থিত সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে শিক্ষামন্ত্রী এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, অভিযোগ ওঠা অস্বাভাবিক নয়, কিন্তু সেটা গোড়ায় গিয়ে দেখা উচিত, তা সত্য না মিথ্যা। এত কিছুর পরেও কেউ প্রশ্ন ফাঁস করলে তিনিই দায়ী থাকবেন এবং আইন অনুযায়ী কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, সব পরীক্ষার্থী সকাল সাড়ে ৯টার মধ্যে হলে ঢুকেছে। আমরা ২৫ মিনিট আগে প্রশ্নপত্রের খাম খুলেছি। এর পর পরীক্ষার হলে প্রশ্ন বিতরণ করা হয়েছে। এখানে প্রশ্নফাঁসের কোনো সুযোগ নেই।

কয়েকজন পরীক্ষার্থী নির্ধারিত সময়ের পরে হলে প্রবেশ করেছে। এ বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, মাত্র ১০ জন দেরি করেছে। কেন্দ্রের নিয়মানুসারে তাদের রোল নম্বর ও কলেজসহ সব তথ্য নিয়ে পরীক্ষার হলে পৌঁছে দিয়েছেন দায়িত্বরত কর্মকর্তারা।

শিক্ষামন্ত্রী আরও বলেন, আপনারা জানেন আমাদের পরীক্ষার্থীর সংখ্যা এতো বেড়ে গেছে যে গ্রামাঞ্চলে পরীক্ষার সিট নির্ধারণ করা হয়েছে। সব জায়গায় নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে যদিও সেটা অনেক কঠিন বিষয় ছিলো। আশা করছি এ বছর প্রশ্নপত্র ফাঁস হবে না। যদি প্রশ্নপত্র ফাঁস হয় তাহলে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এমসিকিউ প্রশ্ন বাতিল হবে কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, প্রাথমিক পর্যায়ে আলোচনা ও কাজ শুরু হয়েছে। এখানে জনমতের ব্যাপার রয়েছে।

কোচিং সেন্টারগুলো খোলা থাকার বিষয়ে মন্ত্রীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখানে শুধু শিক্ষা মন্ত্রণালয় নয় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও আইসিটি মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট সবাই কাজ করছে। সবাই খুব সচেষ্ট রয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে প্রশ্নপত্র ফাঁসের গুজব ছড়ানো বা প্রশ্নপত্র ফাঁসের বিজ্ঞাপন দেওয়ার বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, সঙ্গে সঙ্গে বিটিআরসিকে জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে।

শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদসহ মন্ত্রণালয় ও শিক্ষা বোর্ডের উচ্চপদস্থ কয়েকজন কর্মকর্তা রাজধানীর বেইলি রোডে অবস্থিত সিদ্ধেশ্বরী গার্লস কলেজ কেন্দ্র পরিদর্শন করেন। এ সময় মন্ত্রীর উপস্থিতিতে প্রশ্নপত্রের প্যাকেট খোলেন ওই কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (কেন্দ্র সচিব) ও কলেজটির অধ্যক্ষ কানিজ মাহমুদা আকতার। কেন্দ্র পরিদর্শনের সময় শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মাহাবুবুর রহমান, ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান মু. জিয়াউল হক প্রমুখ।

উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষা আজ সকাল ১০টা থেকে শুরু হয়েছে। এবার ১০ বোর্ডে মোট ১৩ লাখ ১১ হাজার ৪৫৭ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিচ্ছে। ২ হাজার ৫৪১টি কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে এই পরীক্ষা। পরীক্ষা শেষ হবে আগামী ১৪ মে।

পুরোনো সংবাদ

শিক্ষা-শিক্ষাঙ্গন 8223775345171657223

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item