ডিমলা বন্যা কবলিত মানুষদের মাঝে শুকনা খাবার ও উন্নত মানের খিচুরি বিতরন।

জাহাঙ্গীর আলম রেজা,ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ
নীলফামারী জেলার ডিমলা উপজেলায় স্মরনকালের ভয়াবহ তিস্তা নদীর ভাঙ্গনের কবলে পড়ে শত শত পরিবার গৃহহারা হয়ে ডালিয়া পাউবো’র গাইড বাঁধ, গ্রোয়েন বাঁধ ও সিলট্রাবে কেউবা খোলা আকাশের নিচে আবার কেউ মাথার গোজার ঠাই করে কুড়ে ঘর নির্মাণ করে মানবেতর জীবন যাপন করছে। উজানের ঢলে ও গত এক সপ্তাহে প্রবল বৃষ্টির ফলে সর্বগ্রাসী তিস্তা নদী ফুঁসে উঠেছে। উপজেলার প্রায় ৪০টি গ্রাম প্লাবিত হয়ে প্রায় ৭ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। গত এক সপ্তাহে উপজেলা টেপাখড়িবাড়ী ইউনিয়নের ৪,৫, ৬,৭ ও ৮ নং ওয়ার্ডের প্রায় ৫ শতাধিক পরিবারের ঘর-বাড়ী, জায়গা-জমি, স্থাবর-অস্থাবর সম্পদসহ হাজার হাজার বিঘা জমি তিস্তা নদীর ভাঙ্গনে নদীগর্ভে পড়েছে।সব কিছু হারিয়ে নিঃস্ব বর্তমানে এসব পরিবারের সদস্যরা আশ্রয় নিয়েছে পাউবো’র দক্ষিন খড়িবাড়ী গাইড বাঁধ ,ছোটখাতা গ্রোয়েন বাঁধ এবং ডালিয়া তিস্তা ব্যারাজের ভাটিতে ছোটখাতা সীমান্ত বাজার সিলট্রাবে। পাঁচ শতাধিক মানুষ তিস্তা নদীর ভাঙ্গনের শিকার হয়ে সব কিছু হারিয়ে একটু মাথা গোজার ঠাঁই খুজে ফিরছে। এরই মাঝে ২৪ জুলাই রবিবার সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত বন্যাকবলিত পানি বন্ধি মানুষের মাঝে শুকনা খাবার, উন্নত মানের খাদ্যে ও বস্ত্র নিয়ে হাজির হয়েছেন বিশিষ্ট সমাজ সেবক ও প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম, সমাজ সেবক ও শ্রমিক নেতা ছাইদ উর রহমান বিপ্লব ,৭ নং খালিশা ইউপি চেয়ারম্যান আতাউর রহমান, আওয়ামীলীগ নেতা সোহরাব হোসেন, সেচ্ছাশ্রম কর্মী আশরাফুল ইসলাম, বিদুষ চন্দ্র রায়, রুবেল ইসলাম, বাবু, টেকো রুবেল, লাভলু ইসলাম, শাহিনুর , রাব্বি, রেজাউর করিম দারু, আমির হোসেন, মতি মিয়া, মিজানুর রহমান, রবিউল ইসলাম, আব্দুস ছাত্তার প্রমুখ । শহিদুর ইসলাম ৫০০ পরিবাবেব শুকনা খাবার, মোমবাতি, মশার কয়েল ও ছাইদ উর রহমান বিপ্লব ১২০০ জনের মাঝে উন্নতমানের খিচুরি বিতরন করেন। অপরদিকে আওয়ামীলীগ নেতা ময়নুল হক এর উপস্থিতিতে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি নীলফামারী শাখার উদ্দেগ্যে ১১৪জন মহিলার মাঝে শাড়ি বিতরন করেন।জেলার সিভিল সার্জন ও উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা বন্যাত্ব এলাকা ও নদী ভাঙ্গনের শিকার আশ্রয় নেয়া মানুষজনদের সার্বক্ষনিক খোঁজ খবর নিচ্ছেন। মেডিকেল ক্যাম্পে রয়েছে এমবিএিস ডাক্তার ও স্বাস্থ্য বিভাগের স্বাস্থ্য কর্মীগণ। রয়েছে প্রাণী সম্পদ বিভাগের পক্ষ থেকে ক্যাম্প। সার্বক্ষনিক মনিরটরিং এ রয়েছে জেলা প্রশাসন সহ বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ।

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item