স্বচ্ছলতার জন্য বিদেশে গিয়ে ডিমলায় গৃহবধু রুমি আজ সর্বশান্ত।

জাহাঙ্গীর আলম রেজা, ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধি:

ডিমলা উপজেলার বালাপাড়া ইউনিয়নের অতিদরিদ্র রিক্সা চালক জাবেদ আলী (ধৌলু), পিতাঃ জাফর উদ্দিন, গ্রামঃ দক্ষিণ বালাপাড়া। তার স্ত্রী রুমি বেগম (২৫) দুই সন্তানের জননী। তাকে ও তার স্বামীকে প্রচুর অর্থ উর্পাজনের লোভ দেখিয়ে পার্শ্ববতী পূর্ব ছাতনাই ইউনিয়নের বাংলাপাড়া গ্রামের হারুন মিয়া (৩৫), পিতাঃ আব্দুল বারেক, ছানোয়ার হোসেন সাগর (২৪), পিতাঃ সামছুল হক, ফরিদা বেগম (৪৮), স্বামীঃ সামছুল হক এবং  আব্দুর রহিম (৪০), পিতাঃ মতিয়ার রহমান,  গ্রামঃ ডোঙ্গরবাজার , খগাখড়িবাড়ী। এরা সকলে মিলে জবেদ আলীর স্ত্রী রুমি বেগমকে বিদেশে চাকুরী দেওয়ার কথা বলে ৩০ হাজার টাকা নিয়ে ঢাকার এক পাচারকারী চক্রের নিকট দিয়ে আসে। গত ০৮/০২/২০১৬ তারিখে তারা রুমিকে ফ্লাইট যোগে লেবানন পাঠায়। এর পর রুমির স্বামী তার স্ত্রীকে ফিরে পাওয়ার জন্য ব্যকুল হয়ে উঠে এবং তার স্ত্রী সাথে যোগাযোগ করার জন্য স্থানীয় দালাল চক্রের সদস্য ফরিদা বেগমের বাড়ীতে যায়। সেখানে তার স্ত্রীর সাথে যোগাযোগের জন্য মোবাইলের নম্বর চাইলে তারা তাকে কয়েকটি ভূয়া নম্বর দেয়। এসব নম্বরে জাবেদ আলী যোগাযোগ করে কোন ফলাফল হয় না। অতপর জবেদ আলী পাঁচারকারী চক্রের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানালে সামছুল হক ও তার স্ত্রী ফরিদা বেগম সহ তার সাঙ্গপঙ্গরা তাকে বেদম মারপিঠ করে এবং বলে তোমার স্ত্রী সম্পর্কে কোথাও কোনকিছু বললে তোমার জীবন নাশ করে, লাশ গুম করা হবে। অসহায় দরিদ্র জবেদ আলী ছুটে আসে সংবাদকর্মীর নিকট। সংবাদকর্মীরা স্থানীয় থানায় তাকে একটি জিডি করার পরামর্শ দেয়। জাবেদ আলী ডিমলা থানায় একটি জিডি করেন। এই বিষয়টি দালাল চক্র জানতে পারলে জাবেদ আলীকে তার স্ত্রীকে ফিরেয়ে আনবে বলে আবার ৬০ হাজার টাকা দাবি করে। জাবেদ আলী তার ঘর বাড়ী, আসবাবপত্র বিক্রয় ও গ্রামবাসীর নিকট কিছু অর্থ ধার নিয়ে ৬০ হাজার টাকা যোগার করে দালাল চক্রের হাতে দেয়। গত ১৫/০৪/২০১৬ তারিখে রুমিকে বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনে এবং ঢাকার দালাল মান্নান রুমিকে হুমকি প্রদান করে যে, বিদেশে তোমাকে যৌন নির্যাতন এর কথা প্রকাশ করোনা, করলে তোমার স্বামী তোমাকে গ্রহণ করবে না। সেখানে রুমির স্বামীর নিকট থাকা থানায় জিডির কাজগপত্র, অভিযোগপত্র  সহ সকল কাগজ মান্নান কেড়ে নেয়। ঘটনার সত্যতা প্রসঙ্গে এই প্রতিবেদক রুমির সঙ্গে সাক্ষাৎ করলে রুমি জানায় বিদেশে একটি ব্যবসায়ীর বাড়ীতে তাকে রাখা হয় এবং সেখানকার ভাষা সে বুঝেনা। এক দিন পর পর তার যৌন নির্যাতন করা হয়। সেখানে অফিসে একটি বাঙ্গালী মহিলা ছিল তাহাকে এ বিষয়ে নালিশ করলে, উল্টো সে তাকেই আবার মারপিঠ করে। রুমি দুঃখ করে অশ্র“সিক্ত নয়নে বলেন আর কোন নারী যেন বিদেশে চাকুরী করতে না যায়। যারা আমাকে অর্থের লোভ দেখিয়ে এরুপ সর্বনাশ করলো আইনপ্রয়োগকারী কর্তৃপক্ষের নিকট আমি তাদের বিচার ও শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। 

পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 3374943189988042270

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item