বেতন বৃদ্ধির হাওয়া লেগেছে আলুর গায়ে

মো. জহুরুল ইসলাম খোকন, সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি

সরকারী কর্মকর্তা কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধির সাথে সাথে মওসুমের শুরুতেই আলুর মূল্য বৃদ্ধি হওয়ায় সৈয়দপুরের কৃষকদের মাঝে আনন্দের হাসি ল করা গেছে। সম্প্রতি উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়ন ঘুরে এমনই দৃশ্য চোখে পড়েছে। এলাকার হিমাগার মালিকরাও কৃষকদের আলু তাদের হিমাগারে রাখার প্রস্তাব দিয়ে চলেছেন বলে জানা যায়।
উপজেলার বাঙ্গালীপুর ইউনিয়নের কৃষক হেলাল, বেলালসহ একাধিক কৃষক জানান, গত বছর আলু আবাদ করে লাভের মুখ দেখেনি তারা। এ কারণে চলতি মৌসুমে অনেক কৃষকই আলুর চাষাবাদ করেননি। তবে বর্তমান সরকার সরকারী কর্মকর্তা কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধি করায় আলুর মূল্য অনেকটা বৃদ্ধি পেয়েছে। আলুর চাষাবাদ কম আর মূল্য বৃদ্ধি হওয়ায় জমিতে আলু থাকা অবস্থায় হিমাগারের মালিকরা তাদের হিমাগারে আলু রাখার প্রস্তাব নিয়ে কৃষকদের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন।
বোতলাগাড়ী ইউনিয়নের আব্বাস সরকারসহ বেশ কয়েকজন কৃষক বলেন, কর্মকর্তা কর্মচারীদের বেতন বেড়ে যাওয়ার ফলে চলতি মওসুমে ৪০ কেজির এক বস্তা আলু বিক্রি হচ্ছে ২২শ থেকে ২৩শ টাকায়। অথচ গত বছর আলুর মওসুমে এক বস্তা আলু বিক্রি হচ্ছে ৬ থেকে ৭শত টাকায়। গত বছর সম্ভাবনার চেয়েও বেশি আলু উৎপাদিত হওয়ায় নীলফামারীসহ সৈয়দপুরের ১৫ হিমাগারে আলু সংরণের জায়গাও ছিলো না। আর মূল্য না পাওয়ায় বড় ধরনের লোকসান গুনতে হয় কৃষকদের। কিন্তু এবারে আলু উৎপাদন কম আর মূল্য দ্বিগুন হওয়ায় সব কৃষকের মুখেই হাসির ঝিলিক দেখা যাচ্ছে।
সৈয়দপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হুমায়রা মন্ডল বলেন, গত বছর এ উপজেলার ৫ ইউনিয়নের আলুর আবাদ হয়েছিল ২ হাজার ২০ হেক্টর জমিতে। আবাদকৃত এসব জমিতে আলু উৎপাদিত হয় দ্বিগুন। কিন্তু মূল্য না পেয়ে ভেঙ্গে পড়ে তাদের মনোবল। লোকসানও গুনতে হয় ব্যাপক। সেকারণে চলতি মওসুমে এ উপজেলায় আলু চাষাবাদ হওয়ায় মাত্র এক হাজার ২০০ হেক্টর জমিতে। চাহিদা অনুযায়ী আলুর চাষাবাদ কম হওয়ায় বর্তমান বাজার মূল্যের চেয়ে দ্বিগুন মূল্যে আলু ক্রয় করতে হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

পুরোনো সংবাদ

নীলফামারী 8832637538023821429

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item