রংপুরের হারাগাছে মাদক বাণিজ্য বেড়েই চলেছে

হাজী মারুফ রংপুর বুরে‌্যা অফিস :

জীবন থেকে জীবন কেড়ে নেওয়া ফেন্সিডিল বাবা ব্যবসা হারাগাছে বেড়েই চলেছে। ঈদ-উল ফিতরের পর এই দৌরাত্ম থামছেই না। হারাগাছ ও হারাগাছের আশপাশ এলাকার নতুন পুরাতন মিলে ফেন্সিডিল ব্যবসায়ীর সংখ্যা দেড় শতাধিক ছাড়িয়ে গেছে। বিভিন্ন সময়ে মাদক ব্যবসায়ী আটক হলে তার পরিবারের অন্যান্য সদস্য মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ছে।
সকাল থেকে রাত অবধি মোটরসাইকেল অটোরিক্সা মহিন্দ্রায় ফেন্সিডিল সেবনকারীরা হারাগাছ ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় মাদক স্পটগুলোতে মাদক সেবন করে অতি সহজেই চলে যাচ্ছে। হারাগাছের প্রবেশদ্বার বানুপাড়া গুচ্ছগ্রাম, ছোটপুল, আঠারো দোন, চাঁনকুঠি, কলেজ বাজার, পোদ্দারপাড়া, বাঁধেরপাড়, সুইচগেট, হাজীরবাজার, খলিফার বাজার, চৌদ্দমাথা, জমচওড়া বাজার, চওড়ার হাট, আলেমার বাজার, আবুল টোবাকো মোড় হক বাজার, পাইকার বাজার, নতুন বাজার, মেনাজ বাজার, বাঁধেরপাড়, মায়াবাজার, চরচতুরা, কদমতলী, বাংলা বাজার, টাংরীর বাজার, দালালহাট চর, চর মর্ণেয়া, ভাঙ্গাগড়া মিলন বাজার, তালপট্টি, প্রেমের বাজারসহ বিভিন্ন স্পটে বিভিন্ন স্টাইলে ফেন্সিডিল বিকিকিনি চলে প্রতিনিয়ত। এলাকাবাসী ঐক্যবদ্ধ হলে মাদক বিক্রি বন্ধ করা সম্ভব।
সূত্রে জানা যায়, আদিতমারী, মহিষখোচা হয়ে নৌ পথে গংগাচড়া উপজেলাধীন মর্ণেয়ার চরে ফেন্সিডিল খালাস ভাঙ্গাগড়া হাটবাজার ও চৌদ্দ মাথায় বিভিন্ন ফেন্সিডিল ব্যবসায়ীদের হাতে চলে যায়। লালমনিরহাটের কালমাটি, তালপট্টির চড় খুনিয়াগাছ, মিলনবাজার, টাংরীরবাজার হয়ে ফেন্সিডিল হারাগাছ চরচতুরায় খালাস হয়ে বিভিন্ন মাদক ব্যবসায়ীদের হাতে পৌঁছে যায়। পাগলারহাট, চিনাডুলী, চর হকবাজার হয়েও ফেন্সিডিল বিভিন্ন ব্যান্ডের ভারতীয় মদ ইয়াবা ওরফে বাবা লালমনিরহাটের ব্যবসায়ীরা এ অঞ্চলের ব্যবসায়ীদের হাতে তুলে দিয়ে অনায়াসে চলে যায়। মাদক অধিদপ্তর, পুলিশ, র‌্যাব, থানা পুলিশ ফেন্সিডিল সম্রাটদের গ্রেফতার করলেও আইনের ফাঁক-ফোঁকরে বেড়িয়ে এসে পুনরায় স্বভাবজাত ফেন্সিডিল ব্যবসায় জড়িয়ে গেছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যক্তি জানিয়েছেন বর্তমানে প্রতি ফেন্সিডিলের বোতল ৫০০-৫৫০টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে বিভিন্ন সময় প্রতিটি ফেন্সিডিল ৪০০টাকায় বিক্রি হয়ে থাকে। ঈদের কারণে দাম বেড়েছে। এসব ফেন্সিডিলের গ্রাহক রংপুর বিভাগের বিভিন্ন অঞ্চলের লোকজন। হারাগাছে ফেন্সিডিল নির্মূলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর অভিযান প্রয়োজন। ফেন্সিডিলের সর্বনাশা ছোবল থেকে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। কিন্তু হারাগাছে ফেন্সিডিলের ব্যবসা থামছেই না। জীবন থেকে জীবন কেড়ে নেওয়া ফেন্সিডিলের দৌরাত্ম বেড়েই চলেছে। 
এ বিষয়ে হারাগাছ ফাঁড়ির দায়িত্বরত ইজাজ আহমেদ মুঠোফোনে প্রথম খবরকে জানান, আমি দায়িত্বরত হবার পর ১৭ জন ওয়ারেন্ট আসামীকে আটক করেছি। সেইসাথে ২জন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছি। মাদক বিরোধী অভিযান অব্যাহত রয়েছে। আগের তুলনায় হারাগাছের পারিবেশ শান্ত রয়েছে। মাদককের বিরুদ্ধে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে নিয়ে জোরেশোরে অভিযান চালানো হবে। মাদক নির্মূলে পুলিশের সাথে স্থানীয় জনগণকেও ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। এলাকাবাসী অতি জরুরি প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

পুরোনো সংবাদ

রংপুর 2280627491392006540

অনুসরণ করুন

সর্বশেষ সংবাদ

কৃষিকথা

ফেসবুক লাইকপেজ

আপনি যা খুঁজছেন

গুগলে খুঁজুন

আর্কাইভ থেকে খুঁজুন

ক্যাটাগরি অনুযায়ী খুঁজুন

অবলোকন চ্যানেল

item